1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

জাতীয় ঐক্য সরকারের জবাব আরও বসতি

ফাতাহ ও হামাস সমর্থিত ফিলিস্তিনি জাতীয় ঐক্য সরকার ক্ষমতায় আসার পর ইসরায়েল অধিকৃত এলাকায় আরও বসতি নির্মাণের ঘোষণা করেছে৷ ফিলিস্তিনিরা জাতিসংঘ ও আন্তর্জাতিক আদালতের দ্বারস্থ হওয়ার তোড়জোড় করছে৷

দুই শিবিরের দুই রকম যুক্তি৷ ইসরায়েলের যুক্তি ছিল, পশ্চিম তীরে ফাতাহ, গাজায় হামাসের নেতৃত্বে দুই বিচ্ছিন্ন প্রশাসন থাকায় ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে আলোচনার কোনো অর্থ নেই৷ এবার ফাতাহ ও হামাস সমর্থিত নতুন প্রশাসনের সিদ্ধান্তের পর ইসরায়েলের যুক্তি, হামাস সন্ত্রাসবাদী সংগঠন, তারা ইসরায়েলের অস্তিত্ব স্বীকার করে না, তাই তাদের অংশগ্রহণে কোনো সরকার বৈধতা পেতে পারে না৷

ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস অবশ্য এবার এমন এক মোক্ষম চাল চেলেছেন, যাতে সাপও মরে, লাঠিও না ভাঙে৷ অর্থাৎ ফাতাহ ও হামাসের মৌলিক আদর্শগত পার্থক্য কাটানো এই মুহূর্তে সম্ভব নয় জেনে তিনি বিশেষজ্ঞদের নিয়ে এক অ-রাজনৈতিক মন্ত্রিসভার পথ বেছে নিয়েছেন, বাইরে থেকে দুই দলই যাকে সমর্থন করবে৷ ফলে হামাসকে নিয়ে আপত্তি অনেকটা কেটে যেতে বাধ্য৷ প্রায় ৭ বছরের বিভাজনের পর পশ্চিম তীর ও গাজার ঐক্য দেখা গেল৷ সোমবার ক্ষমতা গ্রহণ করার পর এমন এক জাতীয় ঐক্য সরকার আন্তর্জাতিক সমাজের কাছেও গ্রহণযোগত্যা পাচ্ছে৷ এই প্রশাসন চলতি বছরেই নির্বাচনের অঙ্গীকার করেছে৷

বেনইয়ামিন নেতানিয়াহুর সরকার নতুন ফিলিস্তিনি প্রশাসনের বিরুদ্ধে নানাভাবে রোষ দেখাচ্ছে৷ বৃহস্পতিবারই পশ্চিম তীরে ইহুদি বসতিকারীদের জন্য আরও ৩,২০০ বাড়ি তৈরির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে৷

ইউরোপীয় ইউনিয়ন ইসরায়েলের এই সিদ্ধান্তে ‘গভীর হতাশা' প্রকাশ করেছে৷ এই সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করে শান্তি আলোচনা আবার শুরু করার ডাক দিয়েছে ইইউ৷ পররাষ্ট্র বিষয়ক কর্মকর্তা ক্যাথরিন অ্যাশটন বলেন, শান্তির উদ্যোগের ক্ষেত্রে এই সিদ্ধান্ত মোটেই সহায়ক হবে না৷ মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্রও ইসরায়েলের ঘোষণার ফলে হতাশা প্রকাশ করেছেন৷

ফিলিস্তিনি নেত্রী হানান আশরাউয়ি বলেছেন, ইসরায়েলের এই পদক্ষেপের পর পিএলও জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের হস্তক্ষেপ দাবি করছে৷ তাছাড়া অধিকৃত এলাকায় ইহুদি বসতি নির্মাণের অভিযোগে আন্তর্জাতিক ফৌজদারি আদালতেরও দ্বারস্থ হওয়ার কথা ভাবছে ফিলিস্তিনিরা৷ ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের এক রাজনৈতিক উপদেষ্টা মার্কিন প্রশাসনের উদ্দেশ্যে ইসরায়েলের বিরুদ্ধে পদক্ষেপের ডাক দিয়েছেন৷

নেতানিয়াহুর নেতৃত্বে সরকারের জোটসঙ্গী কিছু দল দুই রাষ্ট্র-ভিত্তিক সমাধানসূত্রে বিশ্বাস করে না৷ খোদ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী উরি আরিয়েল বসতিকারিদের দলের নেতা৷ অন্য শরিকরাও আন্তর্জাতিক চাপ উপেক্ষা করে তাদের কট্টরপন্থি নীতি চালিয়ে যেতে বদ্ধপরিকর৷ এই অবস্থায় ওবামা প্রশাসনের সঙ্গে ইসরায়েলের সম্পর্ক ক্রমশ আরও শীতল হয়ে পড়ছে৷ ইউরোপের সঙ্গে সম্পর্কেরও অবনতি ঘটে চলেছে৷

এসবি/ডিজি (এএফপি, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়