1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

জাইরোপ্লেন এবং সিঙ্গল রিফ্লেক্স

পোল্যান্ডের এক ফটোগ্রাফার তাঁর ক্যামেরা নিয়ে আকাশে ওঠেন ছবি তোলার জন্য, এমন সব ছবি, যার মধ্যে লুকিয়ে রয়েছে আমাদের সভ্যতার, মানুষ আর প্রকৃতির সংযোগের নানান কাহিনি৷

পোল্যান্ডের উত্তরে কাশুবিয়া অঞ্চলের হেমন্তের অরণ্যে রংয়ের জাদু৷ অথবা গেডানস্ক শহরের কাছে একটি গুদাম, বরফের মধ্যে যন্ত্রপাতি ডাঁই করা রয়েছে৷ অথবা স্যান্ডোমিয়েরৎস শহরটি যখন বন্যার জলে ডুবে৷ আবার বিমূর্ত প্রকৃতি: ডিজিটাল সিঙ্গল লেন্স রিফ্লেক্স ক্যামেরা দিয়ে আকাশ থেকে তোলা ছবি৷ এ সবই হল পোলিশ আলোকচিত্রশিল্পী কাস্পার কোভালস্কি-র ট্রেডমার্ক৷ কোভালস্কি বলেন: ‘‘এই ছবিগুলো আমাদের সভ্যতার কতোগুলো বিশেষ দিক নিয়ে৷ পোল্যান্ডের এই প্রাকৃতিক দৃশ্য যেন সভ্যতার একটি দর্পণ৷''

কাস্পার কোভালস্কি চার বছর স্থপতি হিসেবে কাজ করার পর ঠিক করেন যে, তিনি তাঁর দু'টি নেশাকে করবেন তাঁর পেশা: বিমানচালনা এবং ছবি তোলা৷ চাকরি ছেড়ে দিয়ে তিনি তাঁর নতুন পেশায় মন দেন: এরিয়াল ফটোগ্রাফি৷ তাঁর বাহন হল একটি জাইরোপ্লেন, ছাদবিহীন খুদে হেলিকপ্টার৷ এই জাইরোপ্লেন নিয়ে তিনি তাঁর স্বদেশ পোল্যান্ডের আকাশে ঘুরে বেড়ান, উড়ে বেড়ান৷ নিয়মিত তাঁর ‘বাহনের' দেখাশোনা, মেরামতি করতে হয়৷ মাঝেমধ্যে পরিষ্কার আবহাওয়ার জন্য অপেক্ষা করতে হয়৷ তবে একবার আকাশে উঠলে কাস্পার কোভালস্কি যেন ধ্যানমগ্ন হয়ে যান৷

তাঁর সামনে এমন একটা জগত, যা শুধু আকাশ থেকে দেখা যায়৷ আকাশ থেকে কোনো কোনো জায়গা যেন নতুন করে দেখেন ৩৭ বছর বয়সি কোভালস্কি৷ বার বার ফেরেন সেখানে, দিনের নানান সময়ে৷ যেমন গ্রীষ্মের সন্ধ্যায় পোল্যান্ডের সমুদ্রসৈকতে৷ এভাবেই মানুষ আর প্রকৃতির সম্পর্ক নিয়ে ছোট ছোট কাহিনি তৈরি হয়৷

দুর্গম, নির্জন স্থান

কাস্পার কোভালস্কি গোড়া থেকেই দুর্গম, নির্জন স্থানগুলি সম্পর্কে আগ্রহী – কলকারখানা, রাসায়নিকের কারখানা, খোলা কয়লাখনি, যে সব জায়গা ঘিরে রাখা হয়েছে এবং খুঁজে পাওয়া শক্ত৷ কাস্পার এমন সব জায়গার ওপর দিয়ে ওড়েন এবং ছবি তোলেন, যা মানুষজন সাধারণত দেখতে পায় না৷ কোভালস্কি বলেন, ‘‘আমি মানুষকে এমন সব স্থান দেখাতে চাই, যেগুলো আমাদের এই আরামদায়ক আধুনিক জীবনের মূল্যস্বরূপ, কেননা বাড়িতে বিদ্যুতের তারে রয়েছে বিদ্যুৎ, সেটা তো কোথাও একটা উৎপাদন করতে হবে৷ ‘টক্সিক বিউটি' বা ‘বিষাক্ত সৌন্দর্য' পর্যায়ের ছবিগুলোতে সেই সব স্থান দেখানো হয়েছে, যে সব স্থান আমরা আমাদের কল্পনা, আমাদের আবেগ-অনুভূতি থেকে বাদ দিতে চাই৷''

কোভালস্কির সর্বাধুনিক বইটির নাম হল ‘সাইড এফেক্টস': মানুষ আর প্রকৃতির সংযোগ এর উপজীব্য৷ ছবিগুলোর কোনো ব্যাখ্যা দেননি কোভালস্কি, শুধুমাত্র যে স্থানগুলি দেখানো হচ্ছে, জিপিএস অনুযায়ী সেগুলির অবস্থান জানিয়ে দিয়েছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘আমি যখন আকাশে উড়ি, তখন যেমন হয়৷ আমিও আকাশ থেকে যে মাঠঘাট দেখি, তার উপর কোনো নাম কিংবা ক্যাপশন লেখা থাকে না৷ আমার বইতেও সেভাবে আমার সঙ্গে ওড়া যায়, কোনো নাম-ধাম না জেনে৷''

কাস্পার কোভালস্কি-র চোখ দিয়ে দেখলে মাটির পৃথিবী কখনো কাব্য হয়ে যায়, কখনো হয় হেঁয়ালি৷ হয়তো সেটাই তাঁর জীবনদর্শন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়