1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

জলবায়ু সংরক্ষণে ওবামার আগ্রহ

অ্যামেরিকা অবশেষে নড়েচড়ে বসেছে৷ বিশ্বের সবচেয়ে বেশি কার্বন নির্গমনকারী দেশের নেতা হিসেবে বারাক ওবামা নতুন উদ্যোগের ঘোষণা করেছেন৷

জলবায়ু সংরক্ষণের প্রায় সব উদ্যোগেই এতকাল বাধা সৃষ্টি করে এসেছে অ্যামেরিকা৷ এবার সেই দেশই চালকের আসনে বসতে চায়৷ প্রেসিডেন্ট ওবামা বলেছেন, বৈশ্বিক এই চ্যালেঞ্জের বৈশ্বিক সমাধান খোঁজার ক্ষেত্রে অ্যামেরিকাকে সাহায্য করতেই হবে৷

জলবায়ু পরিবর্তনের মতো সমস্যা যে শুধুমাত্র আন্তর্জাতিক স্তরেই সমাধান করা সম্ভব, ওবামার ঘোষণার মধ্যে সেই উপলব্ধির প্রতিফলন দেখা গেলো৷

২০০৯ সালে কোপেনহেগেন শহরে জলবায়ু সম্মেলনে ওবামা তাঁর ভাষণে কিছু প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন

শুধু কথায় নয়, হাতেকলমে তা করে দেখাতে চান ওবামা৷ প্রথমেই তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সব বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রের কার্বন নির্গমনের মাত্রা বেঁধে দিতে চান৷ কারণ বেশিরভাগ কেন্দ্রই কয়লায় চলে৷ দেশের কার্বন নির্গমনের প্রায় এক-তৃতীয়াংশের জন্য এরাই দায়ী৷ পাশাপাশি সৌর ও বায়ুশক্তির ব্যবহার বাড়াতে ওবামা প্রশাসন বড় আকারে উৎসাহ দিতে চায়৷ ওয়াশিংটনে জার্মান মার্শাল ফান্ড-এর পল ব্লেলডসো মনে করেন, এটাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা৷ এর আগে অন্য কোনো মার্কিন প্রেসিডেন্ট জলবায়ু পরিবর্তনের মোকাবিলার লক্ষ্যে এতদূর যান নি৷ তাছাড়া চীন ও ভারতের মতো বড় কার্বন নির্গমনকারী দেশের সঙ্গেও এ বিষয়ে দ্বিপাক্ষিক আলোচনা করতে চান ওবামা৷

জলবায়ু পরিবর্তনের মতো সমস্যা যে শুধুমাত্র আন্তর্জাতিক স্তরেই সমাধান করা সম্ভব, ওবামার ঘোষণার মধ্যে সেই উপলব্ধির প্রতিফলন দেখা গেলো৷ যেমন চীন অ্যামেরিকার তুলনায় দ্বিগুণ ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের তুলনায় তিন গুনেরও বেশি কার্বন নির্গমন করে৷ তাই এমন দেশকে শামিল না করলে কোনো সমাধানসূত্র খুঁজে পাওয়া কঠিন৷

২০০৯ সালে কোপেনহেগেন শহরে জলবায়ু সম্মেলনে ওবামা তাঁর ভাষণে কিছু প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন৷ ২০২০ সালের মধ্যে কার্বন নির্গমনের মাত্রা ২০০৫ সালের তুলনায় ১৭ শতাংশ কমানোর কথা বলেছিলেন তিনি৷ সেই প্রতিশ্রুতি পূরণ করার জন্য ওবামার হাতে আর বেশি সময় নেই৷ দ্বিতীয় ও শেষ কার্যকালের বাকি সময়ে সব মহলকে সঙ্গে নিয়ে এমন সিদ্ধান্ত কার্যকর করতে তাঁকে যে বেশ বেগ পেতে হবে, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না৷ তবে ২০০৯ সালের তুলনায় এখন আর মার্কিন কংগ্রেসে বাধার সমস্যা নেই৷ ওবামার লক্ষ্য হলো৷ যে যত নির্গমন করবে, তাকে তত মাশুল গুনতে হবে৷

শুধু কথায় নয়, হাতেকলমে তা করে দেখাতে চান ওবামা৷ প্রথমেই তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সব বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রের কার্বন নির্গমনের মাত্রা বেঁধে দিতে চান৷

জলবায়ু পরিবর্তনের কুফল ভবিষ্যতের কোনো কল্প-কাহিনি নয়

ওবামার ঘোষণার পরেও সমালোচনার সুর পুরোপুরি বন্ধ হয় নি বটে৷ অনেকে মনে করছেন, এই উদ্যোগ যথেষ্ট নয়৷ তবে ওবামা যতদূর এগিয়েছেন, তাকে যথেষ্ট গুরুত্ব দিচ্ছেন বাকিরা৷ তাছাড়া দিনকাল বদলেছে৷ একের পর এক প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের পর অ্যামেরিকার মানুষও টের পাচ্ছেন, যে জলবায়ু পরিবর্তনের কুফল ভবিষ্যতের কোনো কল্প-কাহিনি নয়৷ ওবামা তাঁর ভাষণেও সে কথা মনে করিয়ে দিয়েছেন৷ বিরোধী রিপাবলিকান দলও আর আগের মতো প্রতিরোধ দেখাতে পারছে না৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন