1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে জাতিসংঘের সতর্কবার্তা

জাতিসংঘের পরিবেশ বিজ্ঞানীদের প্যানেল আইপিসিসি-র চতুর্থ প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয় রবিবার৷ তাতে বলা হয়েছে, জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য মানুষই দায়ী৷ এ শতকের মধ্যে কার্বন নিঃসরণ শূন্যে নামিয়ে আনার জন্যও তাগিদ দেয়া হয়েছে প্রতিবেদনে৷

ইন্টারগভর্নমেন্টাল প্যানেল অন ক্লাইমেট চেঞ্জ বা আইপিসিসি-র প্রতিবেদনে অবাক হওয়ার মতো কিছু নেই৷ পরিবেশ দূষণ বাড়ছে, তার সঙ্গে তাল মিলিয়ে জলবায়ু পরিবর্তনও হচ্ছে৷ সচেতনতা বৃদ্ধি, রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে উদ্যোগ – কোনো ক্ষেত্রেই প্রত্যাশা মতো ইতিবাচক পরিবর্তন আসছে না বলে জলবায়ু পরিবর্তন রোধে সাফল্যও আসছে মন্থর গতিতে৷ তাই আইপিসিসি প্রতিবেদনে আশঙ্কা এবং সে আশঙ্কা দূর করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের তাগিদটাই বেশি৷

Symbolbild Klimawandel

উষ্ণায়ন বাড়ছে, গলে চলেছে বরফ...

বরাবারের মতো এবারও জলবায়ু পরিবর্তন রোধে পরিবেশ বিজ্ঞানীদের মূল সুপারিশ তেল, গ্যাস পোড়ানো কমিয়ে নবায়নযোগ্য জ্রালানির ব্যবহার বাড়ানো৷ ঘরবাড়ি, গাড়ি আর কারখানায় বায়ু এবং সৌরশক্তি থেকে উৎপন্ন জ্বালানির ব্যবহার না বাড়ালে এ শতকেই জলবায়ু পরিবর্তন ভয়াবহ রূপ নিতে পারে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে প্রতিবেদনে৷ এর কিছু লক্ষণের দিকেও মনযোগ আকর্ষণ করা হয়েছে৷ জাতিসংঘের পরিবেশ বিজ্ঞানীদের প্যানেল বলেছে, উষ্ণায়ন বাড়ছে বলে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বেড়ে চলেছে, বিশ্বের অনেক জায়গায় লু-হাওয়াও বইছে ঘনঘন৷

কোপেনহেগেনে জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি-মুন বলেন, ‘‘বিজ্ঞান যা বলার বলেছে৷ সেখানে কোনো ধুম্রজাল নেই৷ সবাইকে এখন কাজ করতে হবে, কারণ, সময়টা আমাদের অনুকূলে নেই৷'' আইপিসিসি চেয়ারম্যান রাজেন্দ্র পাচাউরি বলেছেন, ‘‘পরিবর্তনের ইচ্ছাটারই বেশি দরকার আর আমরা মনে করি, জলবায়ু পরিবর্তনের বিজ্ঞান সম্পর্কে জানলে-বুঝলেই তা হবে৷''

উষ্ণায়ন এবং তার প্রভাব পর্যবেক্ষণের লক্ষ্য নিয়ে ১৯৮৮ সালে কাজ শুরু করে আইপিসিসি৷ রবিবার প্রকাশিত প্রতিবেদনটি জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক ৩০ হাজার গবেষণাপত্রের আলোকে করা৷ গবেষণায় দেখা গেছে, বিশ্ব উষ্ণায়নের জন্য মানুষই শতকরা ৯৫ ভাগ দায়ী৷

এসিবি/ডিজি (এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন