1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

জমে যাওয়া মাটিতে যে বিপদ লুকিয়ে থাকতে পারে

ইংরেজিতে বলে ‘পার্মাফ্রস্ট', অর্থাৎ যে জমির তাপমাত্রা হিমাঙ্কের নীচে, যেমন সাইবেরিয়ায়৷ হিট ওয়েভে সেখানকার পার্মাফ্রস্ট গলতে শুরু করায় অ্যানথ্র্যাক্স ব্যাকটেরিয়া বের হয়ে পড়ে৷ অসুস্থ হয়ে পড়েন অনেকে৷

পৃথিবীতে এমন কিছু জায়গা আছে, যেখানকার মাটি শীতে জমে পাথর হয়ে আছে৷ গরমে হয়ত দু'মিটার গভীরতা অবধি মাটি নরম হয়ে আসে, কিন্তু শীত পড়লেই আবার জমে যায়৷ যে মাটি দু'বছর কিংবা তার বেশি সময় ধরে হিমাঙ্কের নীচের তাপমাত্রায় জমে আছে, তাকেই বলে পার্মাফ্রস্ট৷ ভূপৃষ্ঠের বিশ শতাংশ এই পার্মাফ্রস্টে ঢাকা৷

সর্বাধিক পার্মাফ্রস্ট পাওয়া যাবে উত্তর ও দক্ষিণ মেরু অঞ্চলে, যার মধ্যে পড়বে সাইবেরিয়া, ক্যানাডার উত্তরাঞ্চল, অ্যালাস্কা ও গ্রিনল্যান্ড৷ আন্ডিজ পর্বতমালা, এমনকি আফ্রিকার কিলিমাঞ্জারো পাহাড়ের চূড়াতেও পার্মাফ্রস্ট পাওয়া যাবে৷

অ্যানথ্র্যাক্স জীবাণু

অ্যানথ্র্যাক্সের জীবাণু

কিন্তু বিশ্বের উষ্ণায়নের ফলে পার্মাফ্রস্টের তাপমাত্রা বাড়ছে, সেই সঙ্গে কমছে তার ঘনত্ব৷ আইপিসিসি-র বিবরণ অনুযায়ী ১৯৯২ সাল যাবৎ দক্ষিণ অ্যালাস্কায় পার্মাফ্রস্টের ঘনত্ব কমছে বছরে চার মিলিমিটার হারে৷ কিন্তু তার ফল?

ভুতুড়ে জীবাণু

সপ্তাহ খানেক আগে অ্যানথ্র্যাক্স জীবাণুতে আক্রান্ত হয়ে এক কিশোরের মৃত্যুর খবর পাওয়া যায় সাইবেরিয়া থেকে৷ সেই সঙ্গে অসুস্থ হয়ে পড়েন নাকি আরো ২০ জন মানুষ৷ কিন্তু কোথা থেকে এলো এই জীবাণু? এই অ্যানথ্র্যাক্স জীবাণু নাকি পার্মাফ্রস্টের তলায় জমে থাকা বলগা হরিণের লাশে লুকনো ছিল একশ' বছর কিংবা তারও বেশি সময় ধরে – বলছেন বিজ্ঞানীরা৷

অ্যানথ্র্যাক্স জীবাণু এতদিন ধরে বেঁচে থাকতে পারে ‘স্পোর' বা বীজগুটি হিসেবে৷ কিন্তু অপরাপর জীবাণুরও তো সে ক্ষমতা আছে৷ এবং তাদের মধ্যে বেশ কিছু জীবাণু আবার প্যাথোজেন, অর্থাৎ তাদের মারাত্মক বিষক্রিয়া সৃষ্টির ক্ষমতা আছে – টিটেনাস জীবাণু এই দলে পড়ে৷ কিন্তু কী পরিমাণ জীবাণু আছে পার্মাফ্রস্টে?

নরওয়ের স্পিট্সবার্গেনে স্থায়িভাবে জমে থাকা প্রতি গ্রাম মাটিতে দশ লক্ষ থেকে এক কোটি জীবাণু খুঁজে পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা৷ তাদের প্রায় এক-চতুর্থাংশ নাকি ডিফ্রস্টিং-এর পরেও বেঁচে ছিল৷

২০১৪ সালে ফরাসি ও রুশ গবেষকরা সাইবেরিয়ার পার্মাফ্রস্ট থেকে এক অজ্ঞাত, সুবিশাল ভাইরাস খুঁজে পান, যার ব্যাস ছিল এক মাইক্রন – যা কিনা যাবতীয় জ্ঞাত ভাইরাসের প্রায় এক হাজার গুণ বেশি! ভাইরাসটি অবশ্য মানুষের পক্ষে ক্ষতিকর নয়৷ এই ভাইরাস নাকি ৩০ হাজার বছর ধরে পার্মাফ্রস্টের মধ্যে জমে ছিল৷ কিন্তু গলানোর পরেই সেই ভাইরাস একটি অ্যামিবাকে সংক্রমিত করতে সক্ষম হয়৷

মনে রাখতে হবে ভাইরাসরা আমাদের অর্থে ‘বাঁচে' না, কাজেই তারা মরেও না৷ গরমে তারা ধ্বংস হতে পারে, নিম্ন তাপমাত্রায় নয়৷ রুশ গবেষকরা জমা মাটি থেকে তুষার যুগের এক ফুলকেও বাঁচিয়ে তুলতে সমর্থ হয়েছেন৷ সেই ফুল নাকি তখনও ফল ধরানোর অবস্থায় ছিল৷

কাজেই পার্মাফ্রস্টে ভুতুড়ে জীবাণুর বিপদ ছাড়া হারানো জীবনের হাতছানিও লুকিয়ে থাকতে পারে বৈকি৷

বন্ধুরা, কেমন লাগলো ‘পার্মাফ্রস্ট'-এর গল্প? জানান আমাদের, লিখুন মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন