1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ছাইমেঘে জার্মানির দু'টি বিমানবন্দরের ফ্লাইট বাতিল

জার্মানির দু'টি বিমানবন্দর বুধবার তাদের ফ্লাইট বাতিল করেছে৷ আইসল্যান্ডের আগ্নেয়গিরির উদগীরণে ছাইমেঘ ছড়িয়ে পড়েছে উত্তর ইউরোপের আকাশে৷ একইসঙ্গে ছাইমেঘের কারণে স্ক্যান্ডিনেভিয়ার দেশগুলোতেও বিমান চলাচল ব্যাহত হচ্ছে৷

default

ছাইমেঘ এসে পড়েছে জার্মানির আকাশেও

গ্রিমসভ্যোটন আগ্নেয়গিরি থেকে বেরিয়ে আসা ছাই ও ধোঁয়া ছড়িয়ে পড়তে থাকায় মঙ্গলবার ইউরোপের প্রায় ৫০০টি ফ্লাইট বাতিল করা হয়, বিশেষ করে স্কটল্যান্ডের ফ্লাইটগুলো৷ ব্রাসেলস এর ইউরো কন্ট্রোল সংস্থা বলেছে, ছাই মেঘের কারণে বুধবার ডেনমার্কের কিছু এলাকা, নরওয়ের দক্ষিণাঞ্চল এবং সুইডেনের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে বিমান চলাচলে বিঘ্ন ঘটতে পারে৷

জার্মানির উত্তরাঞ্চলীয় শহর হামবুর্গ এবং ব্রেমেন বিমানবন্দর বিমানের টেকঅফ এবং ল্যান্ডিং বাতিল করেছে৷ জার্মান কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, বার্লিন বিমানবন্দরও ছাইমেঘের ঝুঁকির মধ্যে পড়তে যাচ্ছে৷

Vulkanasche Sperrung des Luftraums Hamburg NO FLASH

স্তব্ধ হয়ে গেছে হামবুর্গ বিমানবন্দর

হামবুর্গ বিমানবন্দরের ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, কবে বা কখন থেকে আবার বিমান চলাচল শুরু হবে তা আগে থেকে কিছুই বলা যাচ্ছেনা৷ জার্মান বিমান সংস্থা লুফতহানসা যাত্রীদেরকে জার্মানির ভেতরে ফ্লাইট টিকিট বাতিল করে তার পরিবর্তে ট্রেনে যাত্রার পরামর্শ দিচ্ছে৷

তবে ছাইমেঘ গতবছরের চাইতে এখন পর্যন্ত কম সমস্যা সৃষ্টি করেছে৷ ২০১০ সালে আইসল্যান্ডের আরেকটি আগ্নেয়গিরি থেকে নির্গত ছাইমেঘ ইউরোপের আকাশে ছড়িয়ে পড়ে বিমান চলাচলে ব্যাপক সমস্যা সৃষ্টি করেছিলো৷ এর ফলে ইউরোপে বিমান চলাচল ৬দিন বন্ধ ছিল৷ আটকা পড়েছিল ১ কোটিরও বেশি যাত্রী৷ ১ দশমিক ৭ বিলিয়ন ডলারের ক্ষতির মুখে পড়েছিলো বিমান পরিবহন শিল্প৷ তবে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, এবারের পরিস্থিতি ততটা ভয়াবহ হবেনা৷

Vulkanasche Sperrung des Luftraums Schottland

অসহায় যাত্রীদের কিছুই করার নেই

সোমবার ছাইমেঘের সবচেয়ে বেশি শিকার হয়েছিলো স্কটল্যান্ড এবং ইংল্যান্ডের উত্তরাঞ্চল৷ কিন্তু এখন যুক্তরাজ্যের অবস্থা অনেকটা ভালো৷ যুক্তরাজ্যের বিমান চলাচল নিয়ন্ত্রণ সংস্থা ন্যাটস জানিয়েছে, বুধবার থেকে ব্রিটেনের আকাশে নতুন করে আর কোন ছাইমেঘ দেখা দেওয়ার সম্ভাবনা নেই৷

গত শনিবার জেগে ওঠে আইসল্যান্ডের সবচেয়ে জীবন্ত আগ্নেয়গিরি গ্রিমসবেন৷ আকাশের অনেক উপর পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়ে ছাই ও ধোঁয়ার কুণ্ডলী৷

প্রতিবেদন: জান্নাতুল ফেরদৌস

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়