1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

পাঠক ভাবনা

ছবি এক, আলোচনা অনেক

অবরোধ চলাকালে জামায়াতে ইসলামীর এক কর্মীর রাস্তায় আগুন জ্বালাতে মোটর সাইকেল থেকে পেট্রোল বের করার ছবি ব্যাপক আলোচনার জন্ম দিয়েছে৷ ডয়চে ভেলের ফেসবুক পাতায় প্রকাশিত ছবিটি শেয়ার করেছেন অনেকে৷

বার্তা সংস্থা রয়টার্স ছবিটি ডয়চে ভেলেকে সরবরাহ করেছে৷ এন্ড্রু বিরাজের তোলা ছবিটির ক্যাপশনে উল্লেখ করা হয়, ‘‘প্রেস'' লেখা নিজের মোটরসাইকেল থেকে পেট্রোল বের করছেন জামায়াতে ইসলামীর এক কর্মী৷ উদ্দেশ্য – রাস্তায় আগুন জ্বালানো৷ ২৬ নভেম্বর ঢাকার রাস্তা থেকে ছবিটি তোলা হয়৷

ডয়চে ভেলের ফেসবুক পাতায় সোমবার ছবিটি প্রকাশের পর ব্যাপক সাড়া জাগে৷ কেউ কেউ ছবিটির সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন৷ আবার অনেকে এটিকে মনে করছেন, অবরোধে সময় সৃষ্ট নাশকতার সঙ্গে জামায়াতে ইসলামীর সম্পৃক্ততার প্রমাণ৷ মাত্র ৪৮ ঘণ্টায় শুধু ডয়চে ভেলের ফেসবুক পাতা থেকেই ছবিটি শেয়ার হয়েছে ২৩২ বার৷ আর মন্তব্য জমা পড়েছে ১৪১টি, লাইক ৮১৯টি৷

আহমেদ জর্জিস নামক এক ফেসবুক ব্যবহারকারীর করা মন্তব্য ছবিটির মন্তব্যের ঘরে সবচেয়ে বেশি লাইক পেয়েছে৷ তিনি লিখেছেন, ‘‘ঠিক আছে এটা পেট্রোল বোমা, তো এই বোমাগুলি যাত্রী ভর্তি কোনো বাসে নিক্ষেপ করা হয়েছে এমন কোনো প্রমাণ কি ডিডাব্লিউ'র হাতে আছে৷ যাত্রীসহ গাড়িতে যত পেট্রোল বোমা মারা হয়েছে এর সাথে ১৮ দলের কোনো সম্পর্ক নেই বলে ১৮ দল স্পষ্ট করেছে৷ আর এই জঘন্য কাজটা করছে আওয়ামী লীগ শুধুমাত্র বিরোধী জোটের জনপ্রিয়তাকে কমানোর জন্য৷ কিন্তু তাদের ষড়যন্ত্র আজ জাতির কাছে স্পষ্ট৷''

জর্জিসের এই মন্তব্যের উত্তর এসেছে ২৩টি৷ ডয়চে ভেলের তরফ থেকে ছবিটির ইংরেজি ক্যাপশন তুলে দেওয়া হয়েছে সেখানে৷ জিয়াউর রহমান নামক এক ফেসবুক ব্যবহারকারী জর্জিসের মন্তব্যের উত্তরে লিখেছেন, ‘‘আপনাদের কি মনে হয় ১৮ দল দুধ খাওয়া শিশু যে তারা বাসে আগুন ধরাতে পারে না? আপনি ১৮ দল সাপোর্ট করতেই পারেন তাতে কারো কিছু যায় আসে না, কিন্তু অন্ধ হইয়েন না, আল্লাহ মাথা দিসে ভালো মন্দ বুঝার চেষ্টা করেন, রাজনীতির নামে ফাইজলামি করার দরকার নাই, যেদিন নিজে আগুনে জ্বলবেন সেদিন বুঝবেন৷ আর কি বলবো অন্ধকে হাতি দেখানোর মানে হয় না৷''

নাজমুল হুসাইন নামক একজন ফেসবুক ব্যবহারকারী লিখেছেন নিজের কষ্টের কথা৷ ছবিটির নিচে করা মন্তব্যে তিনি লিখেছেন, ‘‘...এই জামায়াতে ইসলামী বা বিএনপি টানা এভাবে ছয় দিন অবরোধ দিলে আমাদের মতো সাধারণ মানুষ এর যে কি পরিমাণ ক্ষতি হয় তা তারা কি বুঝে না৷ আমি যদিও আওয়ামী লীগকে ভাল বলছি না৷ কিন্তু এই বাসে আগুন বা রাস্তায় আগুন দিয়ে কি তারা দুই মুখী সাপের পরিচয় দিচ্ছে না৷''

তিনি লিখেছেন, ‘‘যে জামায়াতে ইসলামী মানুষের সাহায্যে এগিয়ে আসে(???) তারা আবার পরক্ষণেই সেই ব্যক্তির বা তাদের মতো লোকের ছোট ছোট গাড়িতে আগুন দেয় কি করে?????? আমি মনে করি এই ছবিটি একটি প্রমাণ মাত্র...৷''

জামায়াতে ইসলামীর অবরোধ সংক্রান্ত ব্যানারের সামনে রাখা মোটর সাইকেলটিতে অন্য সমস্যা থাকতে পারে বলেও মনে করছেন কেউ কেউ৷ মুহাম্মদ মুরশেদুল হক লিখেছেন, ‘‘ছবি দেখে তো মনে হচ্ছে গাড়িতে টেকনিক্যাল প্রবলেম আছে৷ আর তিনি যে জামায়াতের কর্মী তাও তো গায়ে লেখা নেই৷ শিবিরের মিছিলের সামনে দিয়ে বুঝি কোনো কাকপক্ষীও যায় না?''

সংকলন: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: জাহিদুল হক

নির্বাচিত প্রতিবেদন