1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

চ্যাম্পিয়ন্স লিগ: লিঁয়’র বিরুদ্ধে জয় পেলো বায়ার্ন মিউনিখ

ফরাসি দল অলিম্পিক লিয়ঁ এবং জার্মানির বায়ার্ন মিউনিখের মধ্যে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের বুধবার রাতের ফুটবল ম্যাচের সেমিফাইনালের খেলাটি ছিল তীব্র উত্তেজনাপূর্ণ৷ বায়ার্ন মিউনিখের মাঠ অ্যালিয়ান্স অ্যারেনায় এই খেলা অনুষ্ঠিত হয়৷

default

আরিয়েন রবেন৷ গোলের পর তার উচ্ছাস ছিল চোখে পড়ার মত

খেলায় দুই দলের শক্তিমত্তার দিক থেকে যদি বলতে হয় তাহলে বলতেই হবে সেয়ানে সেয়ানে লড়াই৷ ৯০ মিনিটের এই খেলায় জয় কিন্তু এসেছে বায়ার্ন মিউনিখের৷ খেলার ৬৯ মিনিটে আরিয়েন রবেনের গোলে এগিয়ে যায় বায়ার্ন৷ এর ফলে ফাইনালের পথে আরেক ধাপ এগিয়ে গেল এই দলটি৷

নানা ঘটনায় গত বুধবার রাতের ম্যাচটি ছিল মনে রাখবার মতো৷ কারণ, দুই দলকেই খেলতে হয়েছে ১০ জন নিয়ে৷ না শুরু থেকে নয়!

Fußball Champions League Halbfinale 2010 Bayern München Olympique Lyon

অপ্রাপ্তবয়স্ক কলগার্ল সংক্রান্ত কেলেঙ্কারি, পরে মাঠে লাল কার্ড, ভাগ্য ভালো যাচ্ছে না ফ্রাংক রিবেরির

শুরুতে দুই দলেই ছিল এগার জন করে খেলোয়াড়৷ ৩৭ মিনিটের মাথায় বিপজ্জনক খেলা খেলতে গিয়ে লালকার্ড দেখে মাঠ ছাড়তে হয় বায়ার্নের অন্যতম খেলোয়াড় ফ্রাংক রিবেরি'কে ৷ এর আগে ১৬ মিনিটে হলুদ কার্ড দেখিয়ে সতর্ক করে দেয়া হয় ড্যানিয়েল প্রানজিচকে৷ কিন্তু অলিম্পিক লিয়ঁ গোল না পেয়ে যেন শক্তি প্রয়োগ করতে থাকে৷ তখন বার্য়ানের ১০ জন আর লিয়ঁ তাদের ১১ জন খেলোয়াড় মাঠ দাবড়ে বেড়াচ্ছিল৷ ৫১ মিনিটে একটি বিপজ্জনক ফাউল করায় জেরোমি তুলালাঁকে প্রথমে দেখানো হয় হলুদ সংকেত৷ এরপরও তিনি ছিলেন বেপরোয়া৷ আর এরই মাসুল গুনতে হলো অলিম্পিক লিয়ঁ এর এই খেলোয়াড়কে ৫৪ মিনিটের মাথায়৷ লাল কার্ড পেয়ে মাঠ ছাড়তে হয় তাকে৷

অবশ্য ক্রীড়া বিশ্লেষকরা দুই দলের কাউকেই ছাড় দিতে নারাজ৷ তারা বলেছেন, দুই দলই খেলার ছন্দময় কৌঁশল দেখানোর পরিবর্তে শারিরীক শক্তির নানা কৌঁশল দেখিয়েছে৷ বলে রাখা ভালো চাম্পিয়ন্স লিগের নিয়ম অনুসারে আগামী ২৭ এপ্রিল দুই দল আবার মুখোমুখি হবে৷ সেই খেলার ভেন্যু অলিম্পিক লিয়ঁর নিজস্ব মাঠে৷

প্রতিবেদন: সাগর সরওয়ার

সম্পাদনা: রিয়াজুল ইসলাম

সংশ্লিষ্ট বিষয়