1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

চুলের নানা পর্যায়ের রহস্য

মানুষের শরীরের বিভিন্ন অংশে চুল বা রোম গজানো বা পড়ে যাবার পেছনে কাজ করে নানা বিষয়৷ নারী ও পুরুষের মধ্যেও দেখা যায় নানা পার্থক্য৷ বয়সের উপরও তার বিকাশ নির্ভর করে৷

অন্যের মাথাভর্তি চুল দেখে অনেকেই হিংসায় জ্বলতে পারেন৷ আসলে চুল গজানোর বিভিন্ন পর্যায় রয়েছে৷ এগুলো কীভাবে কিংবা আদৌ গজাবে কিনা তা মানুষের বয়স, লিঙ্গ আর জিনের উপর নির্ভরশীল৷ কয়েক মাস বয়সের শিশুর মাথার নরম, কোমল চুলগুলোকে বলে ‘ভেলাস হেয়ার'৷ খুব শীঘ্রই এগুলো পূর্ণতা পায়৷ একইসঙ্গে তার চোখের আইল্যাশ বা পলক এবং ভ্রুও গড়ে ওঠে৷

চুল গজানোর প্রাথমিক পর্যায়কে বলা হয় ‘অ্যানাজিন ফেজ'৷ এই পর্যায়ে ত্বকের ভেতরে চুলের শিকড় তৈরি হয়৷ এরপর বীজ থেকে চারা গজানোর মতোই বাড়তে থাকে চুল৷ মানুষের মাথায় আশি থেকে ৮৫ শতাংশ চুল এভাবেই গজায়৷ এই চুল সাত বছর পর্যন্ত স্থায়ী হয়৷

সাত বছর পর শুরু হয় চুলের রূপান্তর পর্যায়৷ কোষ উৎপাদন বন্ধ হয়ে যায়৷ এরপর চুলের স্থায়ীত্বকাল হয় চার মাস৷ তবে কিছু চুল, যেমন ভ্রু-র স্থায়ীত্ব একটু বেশি হতে পারে৷ একটি চুল পড়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সেটির গোড়ায় আরেকটি নতুন চুল গজায়৷ আর এই প্রক্রিয়া নিজে থেকেই পুনরাবৃত্তি হতে থাকে৷ এটা ভালো, কেননা প্রতিদিন ৬০ থেকে ১০০ চুল হারায় মানুষ৷

পুরুষের শরীরের অনেক স্থানে নারীর তুলনায় বেশি চুল থাকে৷ যেমন দাড়ি, বগলের লোম, কানের লোম – এসব স্থানে চুল গজানোটা বিভিন্ন সংস্কৃতিতে পুরুষালি ব্যাপার হিসেবে বিবেচনা করা হয়৷ চুলের বৃদ্ধির জন্য পুরুষের সেক্স হরমোন অ্যান্ড্রোজেনের দরকার হয়৷ তবে চুলের বৃদ্ধির পরিমাণ অঞ্চল ভেদে ভিন্ন হতে পারে৷

একটি চুল তুলে ফেললে তা চুলের বৃদ্ধির উপর কোন প্রভাব ফেলে না৷ চুলের শিকড় নষ্ট হলে অবশ্য সমস্যা৷ আর এগুলো কত বড় হবে তা নির্ভর করে হরমোনের উপর৷

পুরুষের মাথার চুল প্রতি তিনদিনে মাত্র এক মিলিমিটার করে বৃদ্ধি পায়৷ খুব কম, তাই না? তাই চুল কাটার আগে আমাদের সতর্ক হওয়া উচিত৷ সবসময় যে কাটতেই হবে এমন কোনো কথা নেই৷

ইয়োহান মিয়ারবাখ / এআই

সঞ্জীব বর্মন

সংশ্লিষ্ট বিষয়