1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি ইউরোপ

চীনের লাক্সারি কার সেগমেন্টে মার্সিডিজ তৃতীয়

চীনের বাসিন্দারা যতই সমৃদ্ধির মুখ দেখছেন, ততই তাঁদের বিলাসবহুল, নামি-দামি বিদেশি গাড়ির প্রতি আসক্তি বাড়ছে৷ তার থেকে সবচেয়ে বেশি লাভবান হচ্ছে জার্মানির তিন ‘লাক্সারি কার মেকার’: আউডি, বিএমডাব্লিউ এবং মার্সিডিজ৷

default

মার্সিডিজ গাড়ির সঙ্গে পোজ দিচ্ছেন চীনা মডেল

চীন এখন বিশ্বের বৃহত্তম গাড়ির বাজার৷ সেই বাজারে গতবছর আউডি বেচেছে ৪ লাখ ৯২ হাজার গাড়ি; বিএমডাব্লিউ বেচেছে ৩ লাখ ৬২ হাজার; আর ডাইমলার বেচেছে মাত্র ২ লাখ ২৮ হাজার মার্সিডিজ বেঞ্জ গাড়ি

ডাইমলারের পিছিয়ে পড়ার নানা কারণ আছে: চীনে প্রবৃদ্ধি স্থায়ী হবে কিনা, তা নিয়ে ডাইমলারের বহুদিন সন্দেহ ছিল৷ ওদিকে স্বদেশে শ্রমিক সংগঠনগুলির বিশেষ চিন্তা ছিল, ডাইমলার যাতে জিন্ডেলফিংগেন-এ তাদের মূল কারখানা থেকে উৎপাদন বিদেশে স্থানান্তরিত না করে৷ তৃতীয়ত, ডাইমলারের পাইরেসির ভয়, বিশেষ করে চীনে: অর্থাৎ ডাইমলারের প্রযুক্তি যাতে বিনা লাইসেন্সে কপি না করা হয়৷

Bollywood Schauspieler in dem Auto Expo New Delhi 2012

আউডি গাড়ির সঙ্গে বলিউড অভিনেত্রী ক্যাটরিনা কাইফ

ওদিকে চীনে সম্প্রসারণের একমাত্র পন্থা হলো কোনো চীনা কোম্পানি কিংবা সংস্থার সঙ্গে যুগ্ম উদ্যোগ বা সহযোগিতা৷ এ ধরনের সহযোগিতার ফলে আইনসম্মত টেকনোলজি ট্রান্সফারের সঙ্গে সঙ্গে কিছুটা বেআইনি প্রযুক্তি হস্তান্তরের বিপদ কিংবা আশঙ্কা থেকে যায়৷ দৃশ্যত ডাইমলার এবার সেই শঙ্কা কাটিয়ে উঠে আউডি এবং বিএমডাব্লিউ-কে ধরার চেষ্টা করবে৷

ডাইমলারের মতিগতি বদলানোর পিছনে চীন সরকারেরও খানিকটা অবদান আছে৷ চীনা কর্তৃপক্ষ সম্প্রতি কপিরাইট লঙ্ঘনের বিরুদ্ধে আরো কড়া ব্যবস্থা নিয়েছেন৷ অপরদিকে ডাইমলারের হর্তাকর্তারাও উপলব্ধি করেছেন যে, চীনে বিক্রিবাটা বাড়ানোর একমাত্র পথ হলো চীনা সংস্থাগুলির সঙ্গে সহযোগিতা৷

কাজেই এ বছর থেকে ডাইমলার তাদের সর্বাধুনিক সি-ক্লাস মডেলটি জার্মানি এবং চীন, উভয় স্থানেই উৎপাদন করবে৷ ডাইমলার তাদের চীনা সহযোগী বেইজিং অটোমোটিভ গ্রুপ কোম্পানির সঙ্গে যে ‘জয়েন্ট ভেঞ্চার' কোম্পানিটি চালায়, সেটির নাম হলো বেইজিং বেঞ্জ অটোমোটিভ কোম্পানি বা বিবিএসি৷

এই বিবিএসি নাকি ডাইমলারের কমপ্যাক্ট জিএলএ মডেলটির একটি নতুন প্রোডাকশন লাইন শুরু করার কথা ভাবছে৷

এক্ষেত্রে গোড়াতেই ডাইমলারকে তাদের পাইরেসি সংক্রান্ত দ্বিধা-দ্বন্দ্ব অতিক্রম করতে হয়েছে, কেননা সি-ক্লাস কিংবা জিএলএ মডেলগুলি চীনে উৎপাদন করতে গেলে প্রথমে চীনা কর্তৃপক্ষকে নানারকমের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে দিতে হবে, যা করার জন্য মার্সিডিজ চীনা কর্মকর্তাদের গাড়ির বিভিন্ন অংশের নমুনা নিতে দিচ্ছে; চীনা কর্মকর্তারা নতুন মডেলের গাড়িগুলো মাপজোক করারও সুযোগ পাচ্ছেন৷

‘‘এক কথায় বলতে গেলে, আমরা বাস্তবজ্ঞান হস্তান্তর করছি,'' বলেছেন বেইজিং বেঞ্জ-এর ইঞ্জিনিয়ারিং ও ম্যানুফ্যাকচারিং বিভাগের প্রধান রেনে রাইফ৷ অথচ মনে রাখতে হবে, ডাইমলার চীনে মার্সিডিজ-বেঞ্জ গাড়ি তৈরি করতে শুরু করে মাত্র আট বছর আগে৷ গতবছরেই চীনে তাদের প্রোডাকশন ক্যাপাসিটি পৌঁছায় ১ লাখ ২০ হাজার গাড়িতে৷ সে তুলনায় আউডি চীনে গাড়ি তৈরি করছে গত ২৬ বছর ধরে, কিন্তু তাদেরও ঐ অঙ্ক পার হতে ২০০৭ সাল অবধি সময় লেগে গেছে৷

এখন ডাইমলার বলছে, তাদের বেইজিং কারখানার উৎপাদন বাড়িয়ে নাকি বছরে সাড়ে তিন লাখ করাটা কোনো শক্ত কাজ নয়৷ কাজেই চীনে তিন জার্মান ‘লাক্সারি কার মেকার'-এর প্রতিযোগিতা এবার জমে উঠতে চলেছে৷ গতবছর চীনে মার্সিডিজের বিক্রি বাড়ে ২৭ শতাংশ, বিএমডাব্লিউ-এর ১৯ শতাংশ এবং আউডি-র ১২ শতাংশ৷

এসি/ডিজি (রয়টার্স, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়