1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

চীনা লেখকের জার্মানি সফরে বাধা

জার্মান সরকারের হস্তক্ষেপ সত্ত্বেও লেখক লিয়াও ইউ’কে কোলনের সাহিত্য উৎসবে আসতে না দিয়ে তাঁকে গৃহবন্দি করেছে চীন৷ লিয়াও ইউ-র বিদেশ যাত্রায় চীন সরকারের এমন বাধা এই প্রথম নয়৷

default

ফাইল ফটো

এর আগে, গত অক্টোবরে ফ্রাঙ্কফুর্ট বইমেলাকে কেন্দ্র করেও সংবাদ শিরোনাম হয়েছিলেন তিনি৷ চীন সরকার তখন বইমেলায় অংশ নিতে দেয়নি তাঁকে৷ এবারও তাই হলো, জার্মানি সফরের বদলে গৃহবন্দি হলেন তিনি৷ বিষয়টি নিয়ে এক টেলিফোন সাক্ষাৎকারে লিয়াও ডয়চে ভেলেকে জানান, সাড়ে এগারোটার দিকে আমার প্লেন ছাড়ার কথা ছিল৷ নিরাপত্তা চেকিং পার হয়ে আমি বিমানে উঠে বসেছিলাম৷ কিন্তু তারপর এক বিমান কর্মী আমাকে জানালো ব্যাগ নিয়ে বেরিয়ে যেতে হবে৷ তখনই বুঝেছিলাম কোথাও একটা গন্ডগোল হচ্ছে৷ দরজায় গিয়ে দেখি এক পুলিশ কর্তা অপেক্ষা করছে আমার জন্য৷

Liao Yiwu

কোলনেও চীনের এই ঐতিহ্যবাহী বাদ্য বাজানোর কথা ছিল লিয়াও (ফাইল ফটো)

ইতিমধ্যেই লিয়াও ইউ-র জার্মানি ভ্রমণ বিষয়ে এক বিবৃতি প্রকাশ করেছেন জার্মানির পররাষ্ট্র মন্ত্রী গিডো ভেস্টারভেলে৷ এই ঘটনার সমালোচনা করে ভেস্টারভেলে বলেছেন, জার্মান সরকার উচ্চতর পর্যায়ে চীনের কাছে এই যাত্রার অনুমতি পেতে একাধিকবার চেষ্টা করে সফল হয়নি৷ তবে তিনি আশা প্রকাশ করে বলেছেন, খুব শীঘ্রই হয়তো চীনের কাছ থেকে জার্মানি সফরের অনুমতি পাবেন লিয়াও৷

অবশ্য লিয়াও জানিয়েছেন, ইতিমধ্যেই থানায় নিয়ে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করেছে তাঁকে৷ বলেছে, কোলনের সাহিত্য উৎসবে যেতে পারবেন না তিনি৷ শুধু তাই নয়, পুলিশ নাকি তাঁকে শাসিয়েছে কড়া ভাষায়৷ লিয়াও জানান, তারা বলেছে, আপনি যা খুশি তাই করা চালিয়ে যেতে পারেন না৷ আমি বলেছি, উৎসবে অনেক শ্রোতা থাকবে৷ এবং সেখানে আমার নিজস্ব কিছু কবিতা আবৃত্তি ছাড়াও চীনের ঐতিহ্যবাহী বাদ্য বাজানোর কথা রয়েছে৷ কিন্তু তারা বলেছে, এটা জাতীয় ইস্যু৷

এই ঘটনার আগেই অবশ্য গত মাসে জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল এর কাছে সাহায্যের আবেদন জানিয়েছিলেন লিয়াও৷ বলেছিলেন, চীন সরকার তাকে সাহিত্য উৎসবে যোগ দিয়ে সেখানে কথা বলা থেকে বিরত রাখার চেষ্টা করছে৷ সাহায্য চেয়ে তাঁর এই বার্তা চীনের মানবাধিকার বিষয়ক একটি ওয়েবসাইটেও প্রকাশ পায়৷

কিন্তু তাতেও কাজ কিছুই হলো না৷ বরং লিয়াও-র সাক্ষাৎকারে ফুটে উঠলো তাঁর অসহায়ত্ব৷ তিনি বলেন,আমি এই মুহুর্তে কিছুই করতে পারছি না৷ আমি শুধুমাত্র ঘরেই থাকতে পারি৷ কোথাও যাওয়ার জায়গা নেই আমার৷

উল্লেখ্য, ১৯৮৯ সালে চীনের তিয়েনআনমেন হত্যাকান্ড নিয়ে একটি কবিতা লিখে বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন কবি, সাহিত্যিক এবং চিত্রনাট্যকার লিয়াও ইউ৷ এমনকি সেই কবিতার জন্য ৪ বছর কারাভোগও করতে হয় তাঁকে৷ এরপর থেকেই চীন সরকারের কড়া নজরদারিতে আছেন লিয়াও৷

প্রতিবেদক: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

সংশ্লিষ্ট বিষয়