1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

চীনা প্রেসিডেন্টের ঢাকা সফর পর্যবেক্ষণ করছে বৃহৎ শক্তিগুলো

চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং দুই দিনের সফরে ঢাকা আসছেন৷ তাঁর এই সফর নিয়ে ঢাকার যেমন উচ্ছ্বাস আছে, তেমনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং প্রতিবেশি দেশগুলোও এ সফরকে গভীর পর্যবেক্ষণে রেখেছে৷

Bangladeschs Premierministerin Sheikh Hasina trifft Chinesischen Präsidenten Xi Jinping 2014 (picture-alliance/dpa/W. Zhao/Pool)

২০১৪ সালে চীন সফরের সময় হাসিনা ও জিনপিং

শুক্রবার ঢাকায় আসছেন শি জিনপিং৷ তাঁর এই সফরের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ চীনের সঙ্গে সম্পর্ককে নতুন উচ্চতায় নিয়ে যেতে চাইছে৷ চীন চাইছে তার প্রস্তাবিত রোড কানেকটিভিটিকে (সিল্ক রুট) সফল করতে৷ রবিবার  বাংলাদেশের সচিব এম শহীদুল হকের সঙ্গে এক বৈঠকের পর মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা স্টিফেন্স ব্লুম বার্নিক্যাট বলেন, ‘‘এটি একটি বড় ঘটনা৷ এ সফরে কী ঘটে সেটি আমরা কৌতূহল নিয়ে দেখছি৷'' আর আন্তর্জাতিক সম্পর্কের বিশ্লেষকরা মনে করেন, চীনা প্রেসিডেন্টের এই সফর নিয়ে ভারত ও পাকিস্তানেরও কৌতুহল আছে৷

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, এ সফরের মাধ্যমে অবকাঠামো, জ্বালানি, সন্ত্রাসবাদ দমন, যোগাযোগ ইত্যাদি ক্ষেত্রে দু'দেশের মধ্যে সহযোগিতা আরও বাড়ানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে৷ তথ্য-প্রযুক্তি, সামুদ্রিক সহযোগিতা ও অন্য বিষয়গুলো প্রথমবারের মতো গুরুত্ব দিয়ে আলোচনা হবে৷ সফরের সময়ে ২০ বিলিয়ন ডলারের ২৫ টি চুক্তি এবং সমঝোতা স্মারক সই হওয়ার কথা রয়েছে৷

অডিও শুনুন 02:15

‘‘এই সফর বাংলাদেশ ও চীন উভয়ের জন্য গুরুত্বপূর্ণ’’

এদিকে চীনের সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী কং জুয়ানইউ দেশটির প্রেসিডেন্টের ঢাকা সফরের আগে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘‘চীনের প্রেসিডেন্টের সফরের সময়ে চীনের প্রস্তাবিত রোড ও বেল্ট উদ্যোগ বাস্তবায়নের জন্য বেশ কিছু চুক্তি স্বাক্ষর করা হবে৷ এ চুক্তিগুলোর লক্ষ্য হচ্ছে অবকাঠামো উন্নয়ন এবং যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন৷'' তিনি আরো  বলেন, ‘‘বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়া ও ভারত মহাসাগর অঞ্চলে চীনের গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার৷ এ সফর বাংলাদেশ-চীনের সম্পর্কের একটি মাইলফলক৷''

সাবেক কূটনীতিক এবং রাষ্ট্রদূত লিয়াকত আলী চৌধুরী ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় বাণিজ্যিক অংশীদার চীন এবং ভবিষ্যতে এটি আরও বাড়বে৷ চীন ট্রেড , ইনভেস্টমেন্ট এবং কানেকটিভিটিকে গুরুত্ব দেয়৷ আর বাংলাদেশের সঙ্গে একটি কমপ্যাক্ট সহযোগিতার চুক্তি আগে থেকেই আছে৷ বাংলাদেশে বড় আকারে বিনিয়োগ করতে চায় চীন৷ তাই এই সফর বাংলাদেশ এবং চীন উভয় দেশের জন্যই গুরুত্বপূর্ণ৷''

তিনি আরো বলেন, ‘‘অবস্থানগত কারণে বাংলাদেশের একটি ভূরাজনৈতিক গুরুত্ব আছে৷ ছোট দেশ হলেও জনসংখ্যার কারণে বাজার বড়৷ বাংলাদেশে এই অঞ্চলের যে কানেকটিভিটির কথা বলা হচ্ছে, তার ‘হাব' হয়ে উঠবে কেন্দ্রে অবস্থানের কারণে৷ আর সন্ত্রাস দমনে বাংলাদেশ গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করতে পারে৷''

আর এ কারণে চীন বাংলাদেশের সঙ্গে সন্ত্রাস দমন চুক্তিও সই করতে চায়৷ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয় সূত্র জানায়, ‘‘সন্ত্রাস এখন একটি বৈশ্বিক সমস্যা এবং এটি প্রতিটি দেশকে নেতিবাচকভাবে প্রভাবিত করে৷ এ প্রেক্ষাপটে দু'দেশ একটি সমঝোতা স্মারক সই করবে৷ তথ্য বিনিময়, সক্ষমতা বৃদ্ধি ও প্রশিক্ষনসহ বিভিন্ন বিষয় এ সমঝোতা স্মারকে থাকবে৷''

অডিও শুনুন 01:41

‘‘বাংলাদেশকে সতর্কও থাকতে হবে’’

ঢাকা বিশববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের শিক্ষক এবং আন্তর্জাতিক রাজনীতির বিশ্লেষক ড, শান্তনূ মজুমদার ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বিশ্বের বৃহৎ শক্তিগুলোর কাছে বাংলাদেশ এখন ভূরাজনৈতিক, অর্থনৈতিক এবং বৈশ্বিক সন্ত্রাসবাদ দমনে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে৷ যুক্তরাষ্ট্রের পর এখন চীনের মতো বড় শক্তিও বাংলাদেশকে গুরুত্ব দিচ্ছে৷ তাই অনেকেরই দৃষ্টি এই সফরের দিকে৷ বাংলাদেশ এসব বিষয় নিয়ে এখন একটি ইউনিক অবস্থানে আছে৷''

তবে তিনি মনে করেন, ‘‘বাংলাদেশকে সতর্কও থাকতে হবে৷ কারণ এই সফরে অনেকগুলো অর্থনৈতিক চুক্তি হবে৷ ঋণ চুক্তি হবে৷ আমাদের বুঝতে হবে এগুলো অনুদান নয়, ঋণ৷ তাই ঋনের মধ্যে যদি অন্য কোনো প্যাকেজ থাকে, রাজনীতি থাকে তাহলে তা বুঝে শুনে গ্রহণ করতে হবে৷''

প্রসঙ্গত, গত ৩০ বছরে এটিই  চীনের কোনো প্রেসিডেন্টের প্রথম বাংলাদেশ সফর৷ এর আগে ১৯৮৬ সালে চীনের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট লি শিয়াননিয়ান ঢাকা সফর করেন৷

২০১৪ সালে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চীন সফর করেন৷ সফরের সময়ে যৌথবিবৃতিতে বলা হয় দু'দেশ অংশীদারীত্ব এবং সহযোগিতার সম্পর্ককে নতুন উচ্চতায় নিয়ে যাবে৷

শি জিনপিং দু'দিনের সফরে কম্বোডিয়া থেকে ঢাকা আসছেন এবং এখান থেকে তিনি ব্রিকস শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিতে ভারতে যাবেন৷

আপনার কি কিছু বলার আছে? লিখুন নীচের মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়