1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

চিকিৎসা ক্ষেত্রে আলোড়ন সৃষ্টিকারী উভচর ‘আক্সোলোটল’

মেক্সিকোর গিরগিটিসদৃশ এক ধরনের উভচর প্রাণীর নামটাও অদ্ভুত ‘আক্সোলোটল’ অর্থাৎ জলদৈত্য৷ জার্মানির হানোফার শহরের মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা এই প্রাণীটির প্রকৃতিপ্রদত্ত বিশেষ ক্ষমতা নিয়ে গবেষণা করছেন এখন৷

default

এই প্রাণীটির কোন অঙ্গ প্রত্যঙ্গ কাটা পড়লেও আবার তা গজিয়ে উঠে

আক্সোলোটল-এর গুণাগুণ

প্রায় ২০ সেন্টিমিটার দীর্ঘ এই প্রাণীটির কোন অঙ্গ প্রত্যঙ্গ কাটা পড়লেও আবার তা গজিয়ে উঠতে পারে৷ নিজ থেকেই রক্তক্ষরণও বন্ধ হয়ে যায় কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে৷ এই বিষয়টি গবেষকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে৷ কঠিন দুর্ঘটনায় আহত রোগীদের চিকিৎসায় এই বিশেষ নৈপুণ্য কাজে লাগানো যায় কিনা, তা নিয়ে চিন্তাভাবনা করছেন তাঁরা৷

জার্মানির হানোফার মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োরিজেনারেশন সেন্টার এব্যাপারে বিশেষ উদ্যোগ নিয়েছে৷ শোনা যাচ্ছে সেখানকার যন্ত্রপাতির আওয়াজ৷ ঘরটাও ঠাণ্ডা৷ অ্যাকোয়ারিয়ামে পানির উষ্ণতাও ১৬ ডিগ্রির বেশি নয়৷ এর চেয়ে বেশি গরম হলে সরীসৃপগুলি অসুস্থ হয়ে পড়বে৷

গবেষক ক্রিস্টিনা আলমেলিং জানান, ‘‘আমাদের বায়োরিজেনারেশন সেন্টারে শুধু গবেষণা নয়, জীবগুলোর সুরক্ষা ও প্রজননের দিকেও লক্ষ্য রাখা হচ্ছে৷ আমরা বিশেষ করে মেক্সিকোর লেজযুক্ত উভচর প্রাণী বা আক্সোলোটল নিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষা করছি৷ এগুলিকে সহজেই লালন পালন করা যায়৷ সারা জীবনই তারা পানিতে কাটায়৷ এদের বংশবিস্তারের বিযয়টিও ভালভাবে পরীক্ষা করা হয়েছে৷''

Ein Axolotl

এই প্রাণীটির বিশেষ ক্ষমতা নিয়ে গবেষণা করছেন বিজ্ঞানীরা


হুমকির মুখে এই প্রাণীগুলি

পরিবেশ দূষণের কারণে উৎপত্তিস্থল মেক্সিকোতে এই সরীসৃপগুলিকে প্রায় দেখাই যায়না৷ বিজ্ঞানের দিক দিয়ে আকর্ষণীয় না হলে এই প্রাণীগুলি হয়তো একেবারেই নিশ্চিহ্ন হয়ে যেত৷ হানোফারের গবেষণাগারে ১২০টি আক্সোলোটল রয়েছে৷ অলস ভঙ্গিতে অ্যাকোয়ারিয়ামের এদিক সেদিকে অবস্থান করছে তারা৷ দেখলে মনেই হবেনা, যে তাদের অসাধারণ গুণাগুণ রয়েছে৷

ক্রিস্টিনা আলমেলিং-এর ভাষায়, ‘‘অ্যাম্ফিবিয়াস আক্সোলোটল পুনরুজ্জীবনের ক্ষেত্রে এক বিস্ময়৷ কোনো দুর্ঘটনায় বা অন্য কোনো জন্তুর কামড়ে কোন অঙ্গ প্রত্যঙ্গ কাটা পড়লে আবার তা গজিয়ে ওঠে তাদের শরীরে৷ ঠিক এই বিষয়টি আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ৷''

অঙ্গচ্ছেদ হয়ে যাওয়ার পর কী ঘটে তা দেখার জন্য বিজ্ঞানীরা পরীক্ষামূলক অপারেশন করেন৷ বিজ্ঞানী বিয়র্ন মেনগার একটি আক্সোলোটলকে ন্যার্কোটিক দিয়ে অচেতন করে তার একটি পা অপারেশন করে ছেদ করেন৷ যার বর্ণনা দেন তিনি এভাবে: ‘‘সাধারণ অপারেশনের মতই আমরা একটি অঙ্গচ্ছেদ করি৷ কাটার ক্ষতটাতে কোনো ওষুধও লাগাতে হয়নি৷ কয়েক মুহূর্তের মধ্যেই রক্তপাত বন্ধ হয়ে যায়৷ অত্যন্ত দ্রুত ঘটে যায় এ সব৷ অঙ্গচ্ছেদ একটি অতি সাধারণ ব্যাপার৷''


ডক্টরেটের থিসিসে আক্সোলোটল

ডক্টরেটের থিসিসের জন্য আক্সোলোটল-এর ওপর ৩০০ বারের মত এই ধরনের অপারেশন করেছেন বিয়র্ন মেনগার৷ প্রত্যেকবারই অবাক হয়ে লক্ষ্য করেছেন যে, সেকেন্ডের মধ্যেই রক্তপাত বন্ধ হয়ে যায়৷ এবং কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে মাংসের তন্তু দিয়ে ঘা টাও বন্ধ হয়ে যায়৷ এ প্রসঙ্গে গবেষণাগারের পরিচালক ড. ক্যার্স্টিন রাইমার্স বলেন, ‘‘স্তন্যপায়ী প্রাণীদের তুলনায় ভিন্নভাবে ঘটে ব্যাপারটা৷ ‘ঘা' টা শুকোনোর সাথে সাথে তার নীচের অংশও ভাল হয়ে যায়৷ কয়েকদিনের মধ্যে পুনর্গঠন প্রক্রিয়া শুরু হয় এবং কাটা পা টা আবার বেড়ে উঠতে থাকে৷''

কয়েক সপ্তাহের মধ্যে নতুন পা সম্পূর্ণ আকার ধারণ করে৷ এই প্রক্রিয়াটা কীভাবে ঘটে সেটা জানতেই এখন বিজ্ঞানীরা উৎসুক৷ কোনো কোনো মাছের মধ্যেও দেখা যায় এই ধরনের পুনরুজ্জীবনের প্রক্রিয়া৷ কিন্তু চারপায়ী মেরুদণ্ডযুক্ত প্রাণী হিসাবে আক্সোলোটল জিনের দিক দিয়ে মানুষের কাছাকাছি৷ তাই এই উভচরের প্রকৃতিদত্ত বিশেষ দক্ষতা মানুষের ক্ষেত্রেও কাজে লাগানো যেতে পারে বলে আশাবাদী বিজ্ঞানীরা৷ তা হলে চিকিৎসা ক্ষেত্রে এক বিশাল দ্বার খুলে যাবে বলে মনে করেন প্লাস্টিক সার্জারি বিশেষজ্ঞ ডা. বিয়র্ন মেন্গার৷ তাঁর ভাষায়, ‘‘মানুষের চামড়া বা হাড়ে বড় রকমের আঘাত বা খুঁত হলে নিজের শরীরের কোষ প্রতিস্থাপন করেও অনেক সময় ভাল হয়না৷ তাই চিকিৎসকরা এমন এক পদ্ধতির খোঁজ করছেন, যার সাহায্যে পুনর্গঠন প্রক্রিয়াটা সহজ হয়৷ এক্ষেত্রে উভচরের প্রকৃতিদত্ত ক্ষমতাটা কাজে লাগাতে চান তাঁরা৷''

বিজ্ঞানীরা এমন এক ওষুধ তৈরি করতে চান, যার মাধ্যমে দুর্ঘটনায় অঙ্গ প্রত্যঙ্গ কাটা গেলে আক্সোলোটলের মতই দ্রুত আরোগ্যলাভ সম্ভব হয়৷ ড. ক্যার্স্টিন রাইমার্সের অবশ্য আকাঙ্ক্ষাটা আরো বেশি৷ সেটাই শোনা গেল তাঁর কণ্ঠে – ‘‘আমাদের স্বপ্ন, মানুষের শরীরে পুনরুজ্জীবন প্রক্রিয়ার শক্তিটা এমনভাবে বাড়ানো, যাতে মানুষের অঙ্গ প্রত্যঙ্গও স্বয়ংক্রিয়ভাবে পুনরুজ্জীবিত হতে পারে৷''

প্রতিবেদন: রায়হানা বেগম

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন