1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

চা – তোমাকেই চাই

চা রসিকদের মনের কথা এটা৷ ভারতের চা শিল্পের ভবিষ্যত কী বলে? বিশেষ করে পশ্চিম বঙ্গের ডুয়ার্স, তরাই ও দার্জিলিং চা-এর বাজার দেশে বিদেশে কেমন? বিভিন্ন চা-বাগান দেখে মনে হয় ভবিষ্যত উজ্জ্বল৷

default

‘‘চা গাছ বড় আদুরে, রোদ সহ্য করতে পারে না, তাই বাগানের মাঝে এসব গাছ চা গাছকে ছায়া দেয়’’

ভারতীয় উপমহাদেশে চা যেন স্রেফ চা নয়, প্রধান পানীয় হিসেবে জাতীয় জীবনধারার সংস্কৃতির সঙ্গে মিলেমিশে একাকার৷ সকালে হোক বা বিকেলে, বৃষ্টি পড়া মেঘলা দিন হোক বা রোদ মাখা ঝলমলে দিন – এক পেয়ালা ধোঁয়া ওঠা চা মনের সব ক্লান্তি দূরে সরিয়ে দেহমনকে করে তোলে চাঙ্গা৷ শুধু এনার্জি আনে না, এর অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট উপাদান রক্তের দূষিত কণা সাফ করে৷ স্বল্পদামের এই পানীয়ের কদর বাড়ছে দিনে দিনে৷ সেইসঙ্গে বাড়ছে ভারতীয় চা বিশেষ করে দার্জিলিং চায়ের রপ্তানি বাজার৷

Indien - Teeplantage in Jalpaiguri

চায়ের অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট রক্তের দূষিত কণা সাফ করে

উপমহাদেশ ছাড়াও জার্মানিসহ প্রায় গোটা ইউরোপ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও মধ্যপ্রাচ্যের অনেক দেশে ভারতীয় চায়ের গুণমান মন কেড়ে নিয়েছে বিদেশি চা প্রেমিকদের৷ ভারতীয় চায়ের বৈচিত্র্য অনন্য৷ সেটা গ্রীন চা-ই হোক কিংবা সিটিসি চা বা সুবাসিত দার্জিলিং চা৷

ডুয়ার্স ও দার্জিলিং-এর রাস্তার দুপাশে মাইলের পর মাইল সমান মাপে ছাঁটা চা গাছের ঘন সবুজ গালিচায় মোড়া দৃশ্যে নগর জীবনের দুষণ-ক্লান্ত চোখ দুটো জুড়িয়ে যায়৷ দিগন্ত প্রসারি চা বাগানের মাঝে মাঝে মাথা তোলা মাঝারি মাপের ছায়াতরু দেখে জানতে চাইলে স্থানীয় মানুষজনের উত্তর – চা গাছ বড় আদুরে, রোদ সহ্য করতে পারে না৷ ঐসব গাছ ওদের ছায়া দেয়৷

দার্জিলিং-এর একটি চা বাগানের মালিক ঐ এলাকার এক বড় ব্যবসায়ী জে. রাই ডয়চে ভেলেকে ডুয়ার্স ও দার্জিলিং-এর বৈচিত্র্য ও গুণাগুণ প্রসঙ্গে জানালেন, সিটিসি হলো গুঁড়ো চা, চলতি কথায় যাকে বলে দুধ- চা৷ টি-ব্যাগে বেশি ব্যবহৃত হয়৷

Indien - Teeplantage in Jalpaiguri

চা শিল্প কার্যত মেশিন-নির্ভর নয়, মানব-শ্রমিক নির্ভর

আর অর্থোডক্স চা বলতে বোঝায়, বিনা দুধের দার্জিলিং চা৷ এই চায়ের প্রক্রিয়াকরণ হয় পাঁচ ধাপে৷ এর গুণমান নির্ভর করে বৃষ্টি, মাটি, ঠাণ্ডা হাওয়া ও চা পাতা তোলার বিশেষ পদ্ধতির ওপর৷ আর ঔষধি গুণযুক্ত গ্রীন টি খেতে হয় দুধ ও চিনি ছাড়া৷ এতে দেহের কিডনি, লিভার ভালো থাকে৷ পরিবেশবাদীদের কথা মাথায় রেখে মকাইবাড়ির চা-এর বৈশিষ্ট্য হলো, এই চা গাছে বা পাতায় কোনোরকম কীটনাশক ওষুধ ছেটানো হয় না, বললেন চা বাগানের মালিক জে. রাই৷ অনন্য বৈশিষ্টের জন্য দার্জিলিং চা বিশ্বের অন্য কোথাও হয় না৷ যেমন, শ্যাম্পেনের মৌলিকত্ব থাকে শুধু ফ্রান্সের তৈরি শ্যাম্পেনে৷ বৃষ্টি ও ঠাণ্ডা আবহাওয়ায় তিন হাজার ফুট উঁচু পাহাড়ের ঢালে এই চা হয়৷ বৃষ্টি হবে, কিন্তু জল দাঁড়াবে না৷

আসল দার্জিলিং চায়ের পাতা হাতে তুলে হাতে মুড়ে রোদে শুকাতে হয়৷ চায়ের রং হয় সাদাটে৷ ওলং নামে আর এক ধরণের দার্জিলিং চায়ের রং হয় কমলা৷

উল্লেখ্য, বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা দার্জিলিং চাকে পৃথক পেটেন্ট দিয়েছে এর ভৌগলিক বৈশিষ্ট্যের জন্য৷

২০০৯-১০ সালের হিসেবে ভারতে মোট চা উৎপাদনের পরিমাণ প্রায় ৯ লাখ ৮০ হাজার টনের মত৷ বিশ্বের মোট চা উৎপাদনের প্রায় ৩৫ শতাংশ৷ স্বাধীনতার পর তা বেড়েছে ২৫০ শতাংশ৷ বেশি উৎপাদন হয় পূর্ব ভারতের আসাম ও পশ্চিম বঙ্গের ডুয়ার্স, তরাই ও দার্জিলিং জেলায়৷ আর দক্ষিণ ভারতের নীলগিরি পাহাড়ি অঞ্চলে৷

উত্তরবঙ্গে এখন ভাল চা তৈরি হচ্ছে৷ বিশ্বের নজর কেড়েছিল একসময় সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন৷ এখন উত্তরবঙ্গের চা শিল্প রপ্তানি বাণিজ্যে পাখির চোখ করতে চেষ্টা চালাচ্ছে রাশিয়াকে৷ বিক্রির পরিমাণ প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকার বেশি৷ বিদেশি মুদ্রায় আয় হয় গড়ে বছরে ১,৮৫০ কোটি টাকার মতো৷ চা শিল্প কার্যত শ্রমিক-প্রধান৷ মেশিন-নির্ভর নয়, মানব-শ্রমিক নির্ভর৷ প্রায় ১১-১২ লাখ শ্রমিকের মধ্যে অর্ধেকের বেশি নারী৷

ভারতে চা শিল্পের ইতিহাস দীর্ঘ৷ এর পত্তন ১৮২০-এর দশকে ব্রিটিশদের ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির হাত ধরে৷ চীনের একাধিপত্যকে চ্যালেঞ্জ জানাতে চীনেরই চা-চাষ পদ্ধতি অবলম্বন করে ইংরেজরা৷ আজকের ভারতীয় চা শিল্পের সূত্রপাত ১৯৫০-এর দশকের গোড়ায়৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন