1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

চায়ের দেশ চীনে কফির জয়যাত্রা

চীনারা চা পানকারী হিসাবে পরিচিত হলেও কফি পানের দিকেও ঝুঁকছে ইদানীং৷ অ্যামেরিকান কফি হাউস স্টারবাকস-এর রেকর্ড পরিমাণ লাভ দেখে সেটাই বোঝা যায়৷

১৫ বছর আগে অ্যামেরিকান কফি হাউস স্টারবাকস-এর শাখা খোলা হয় বেইজিং-এ৷ তখন অনেকেই মনে করেছিল শুধু অ্যামেরিকান কিংবা বিদেশিদের কাছেই সমাদর পাবে এটি৷

একে তো কফির তিতা স্বাদে চীনারা অভ্যস্ত নয়, তার ওপর দামও আকাশচুম্বী, তাই সনাতন টি-হাউস থেকে তাদের সরানো যাবে না – এমনটি ভাবা হয়েছিল প্রথম দিকে৷

সংশয় দূর হয় দ্রুত

স্টারবাকস-এর কর্মকর্তারাও তাদের দোকানটি চলবে কিনা সে ব্যাপারে নিশ্চিত ছিলেন না৷ চা পানকারী চীনারা কাগজের কাপে কাপুচিনো ও লাটে মাখিয়াটোর প্রতি আগ্রহ দেখাবে কিনা সেটা বোঝা যাচ্ছিল না৷ কিন্তু এই সংশয় দ্রুতই দূর হয়ে যায়৷

১৫টি শাখা প্রতিষ্ঠান নিয়ে যাত্রা শুরু হলেও এখন স্টারবাকস-এর ৬০০-র ওপর শাখা চীনের নানা স্থানে ছড়িয়ে রয়েছে৷ অ্যামেরিকার পর চীনই এখন স্টারবাকস-এর দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ বাজার৷ এজন্য আগামী বছরের মধ্যে স্টারবাকস তার শাখা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা দ্বিগুণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷

স্টারবাকস-এর এই সাফল্যের কারণ হিসাবে ব্যাখ্যা দেওয়া যায় এভাবে, চীনের বড় বড় শহরের বাসিন্দাদের কাছে কফি অনেক আগেই লাইফস্টাইলের অংশে পরিণত হয়েছে৷

কফির স্বাদে সুখানুভূতি

উচ্চমধ্যবিত্তরা কফির স্বাদে এক ধরনের সুখানুভূতি খুঁজে পান৷ ইতোমধ্যে দক্ষিণ পূর্ব চীনে কফি উৎপাদনও শুরু হয়েছে৷

গত বছর চীনের মহাকাশযান শ্যেনজুতে প্রতীক স্বরূপ একটি চা-পাতার পরিবর্তে কফির বীজ সাথে দেওয়া হয়েছিল৷ চীনা কর্তৃপক্ষ কফিকে শুধু পশ্চিমের হাতে ছেড়ে দিতে চান না৷

পশ্চিমের যে-কোনো কিছুই আধুনিক ও চটকদার, এরকমই মনে করা হয় চীনে৷ তাই স্টারবাকসও তার গরম পানীয় অন্যান্য দেশের চেয়ে উচ্চ মূল্যেই বিক্রি করে চীনে৷ এক কাপ সাধারণ কফির দাম প্রায় চার ইউরো৷

স্টারবাকস-এর প্রতি সংহতি

তবে পশ্চিমি জীবানুভূতির জন্য উঁচু দামও যে কোনো বাধা নয়, তা বুঝতে পেরেছে চীনের সরকারি টেলিভিশন সিসিটিভি-ও৷ এক রিপোর্টে এই টিভি চ্যানেল স্টারবাকস-এর কফির গলাকাটা দামের সমালোচনা করায় উল্টো প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়৷ ব্লগাররা স্টারবাকস-এর পক্ষ নিয়েই মন্তব্য করেন৷ চীনের বড় বড় শহরে স্টারবাকসকে তার প্রতিষ্ঠানের জন্য মোটা অংকের ভাড়া গুণতে হয় এই যুক্তি দেন তাঁরা৷ অবশ্য ম্যানহাটানের চেয়ে বেইজিং-এ ভাড়া বেশি কিনা সে ব্যাপারে প্রশ্ন উঠতে পারে৷

প্রতিযোগীরাও বসে নেই

তবে স্টারবাকস ভবিষ্যতেও তার সাফল্য ধরে রাখতে পারবে কিনা, তা নিশ্চিত করে বলা যায় না৷ কেননা প্রতিযোগীরাও বসে নেই৷ ইতোমধ্যে ব্রিটেনের ‘কোস্টা কফি' চীনে ৩০০টি শাখা খুলেছে৷ অন্যদিকে দক্ষিণ কোরীয় ‘ক্যাফে বেনে' আগামী বছরের মধ্যে ৩,০০০ শাখা খুলবে বলে ঘোষণা দিয়েছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন