1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

চাদ থেকে সৈন্য প্রত্যাহার নিয়ে অ্যামনেস্টির উদ্বেগ

আফ্রিকার দেশ চাদ'এর পূর্বাঞ্চল থেকে জাতিসংঘ শান্তি রক্ষীদের সরিয়ে নেওয়া সম্পর্কিত যে সিদ্ধান্ত জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ নিতে যাচ্ছে, মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল সেই ব্যাপারে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে৷

default

সুদানের প্রেসিডেন্ট ওমর আল বশির ও চাদ’এর প্রেসিডেন্ট ইদ্রিস দেবি ২০০৮ সালে সীমান্ত চুক্তি স্বাক্ষর করেন

অ্যামনেস্টির পক্ষ থেকে সতর্কতা উচ্চারণ করে বলা হয়েছে, শান্তিরক্ষী মিশনের সৈন্যদের সরিয়ে নেওয়া হলে তা হাজার হাজার শরণার্থীর জন্যে বিপদ ডেকে আনতে পারে৷

কেন্দ্রীয় আফ্রিকিয় প্রজাতন্ত্র এবং চাদ-এ জাতিসংঘ মিশন – ‘মিনুরকাট' বাহিনীর ভবিষ্যৎ নিয়ে বুধবার জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ বৈঠক করবে৷ মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল বলেছে, চাদ থেকে এই বাহিনীকে প্রত্যাহার করা হতে পারে৷

গৃহহীন চাদবাসি এবং সুদানের দারফুর থেকে আসা হাজার হাজার শরণার্থীকে রক্ষার জন্যে ২০০৯ সালের মার্চ মাস থেকে জাতিসংঘ বাহিনীর তিন হাজার ৩'শ শক্তিশালী সদস্য মোতায়েন করা হয়৷ তবে চাদে ইদ্রিস দেবির সরকার চায়, চলতি বছরের শেষে চাদ থেকে ঐ সৈন্য প্রত্যাহার করা হোক৷ অন্যদিকে জাতিসংঘ ত্রাণ সমন্বয়কারি জন হোমস বলেছেন, সৈন্যরা কয়েক সপ্তাহের মধ্যে চাদ ত্যাগ করবে৷

অ্যামনেস্টি বলেছে, মিনুরকাট বাহিনীকে সরিয়ে দেওয়ার সময় এখনও আসেনি৷ এবং নিরাপত্তা পরিষদের উচিৎ ঐ অঞ্চলের দুর্দশাগ্রস্থ নারী, পুরুষ এবং শিশুদের পাশে থাকা৷ সংস্থাটি বলছে, মিনুরকাট নিরাপত্তা এবং মানবাধিকার বজায় রেখেছে৷ চলতি বছরের শেষে চাদ থেকে সম্পূর্ণভাবে শান্তিরক্ষী বাহিনী প্রত্যাহার করার জন্যে ধীরে ধীরে সৈন্য সংখ্যা কমিয়ে আনার প্রস্তাবিত সিদ্ধান্ত এখনও নেওয়া হয়নি৷

১৫ সদস্যের নিরাপত্তা পরিষদ, সর্বসম্মতিক্রমে ২৬-শে মে পর্যন্ত সময় বরাদ্দ করেছে৷ পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্যে জাতিসংঘ মহাসচিবের কাছে সুপারিশ করা হয়েছে৷ আগের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী জাতিসংঘ বাহিনীর সদস্য সংখ্যা ১৫-ই অক্টোবর থেকে ধীরে ধীরে কমিয়ে আনার কথা রয়েছে৷ অ্যামনেস্টি বলছে, দারফুরের আড়াইলাখ শরণার্থী এবং চাদের একলাখ ৬৫ হাজার বাস্তুচ্যুত নাগরিক এবং ঐ অঞ্চলে বসবাসরত চাদের কয়েক লাখ নাগরিকের জন্যে ধীরে ধীরে সৈন্য সংখ্যা কমিয়ে আনার বিষয়টি ভীষণ ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে যাবে৷

অ্যামনেস্টির আফ্রিকা বিষয়ক পরিচালক এরভিন ফান ডেয়ার বরগ্ট বলেছেন, চাদের সরকার যতক্ষণ পর্যন্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থার সমন্বিত কোন পরিকল্পনা দেখাতে না পারছে, ততক্ষণ এই ধরনের প্রস্তাব আনাটা ঠিক মানা যায়না৷ সব শেষে অ্যামনেস্টি বলেছে, চাদের জাতিসংঘ ঘাঁটি থেকে যাবতীয় সমর্থন এবং প্রয়োজনীয় সহায়তা ছাড়া চাদে জাতিসংঘের উপস্থিতি একটি অসম্ভব ব্যাপার৷

প্রতিবেদন: ফাহমিদা সুলতানা
সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

সংশ্লিষ্ট বিষয়