1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

চাঁদে বসতি স্থাপনের প্রস্তুতি চলবে

মহাকাশের গভীরে পাড়ি দিতে গেলে চাঁদ এক গুরুত্বপূর্ণ ঘাঁটি হয়ে উঠতে পারে৷ কিন্তু সেখানে মানুষের বসবাস সম্ভব করতে হলে চাই অক্সিজেন ও পানি৷ চাঁদেরই উপাদান থেকে সে সব সংগ্রহের লক্ষ্যে কাজ করছেন বিজ্ঞানীরা৷

চাঁদের মাটির উপর পরীক্ষা চালাতে রোবট কাজে লাগানো হবে৷ যেমন ‘স্পেস ক্লাইম্বার'৷ জার্মানির ‘আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স' গবেষণা কেন্দ্রের বিজ্ঞানীরা এই ‘মহাকাশ মাকড়সা' তৈরি করেছেন৷ উদ্দেশ্য, রোবট যাতে মোটামুটি স্বাধীনভাবে অসমান মাটির উপরও চলাফেরা করতে পারে৷ এমনকি চাঁদের গর্তে নেমে নমুনা সংগ্রহ করে শক্ত হাতের সাহায্যে আবার উঠে আসতে পারবে এই রোবট৷

এই গবেষণা কেন্দ্রের অধ্যাপক ফ্রাংক কিয়ার্শনর বলেন, ‘‘এতে ২৫টি মোটর রয়েছে৷ চাকাওলা যান হলে ৬টা থাকতো৷ অর্থাৎ কোনো কিছু খারাপ হওয়ার আশঙ্কাও প্রায় ৪ গুণ বেশি৷

অতএব কোথাও একটা আপোশ করতে হবে৷ একদিকে যানটি স্বচ্ছন্দে ঘোরাফেরা করতে পারবে, অন্যদিকে কোনো কিছু বিকল হবার আশঙ্কাও বেড়ে যায়৷ এমন ব্যবস্থার ক্ষেত্রে প্রশ্ন হলো, এটা কতটা নিরাপদ করে তোলা সম্ভব৷''

চাঁদের ভার্চুয়াল সারফেসের উপর গবেষকরা রোবটকে আরও প্রস্তুত করে তুলছেন৷ যেমন স্পেস ক্লাইম্বার-এর পা কতটা লম্বা হবে, শরীরের কোথায় তা লাগানো হবে – তা পরীক্ষা করা হচ্ছে৷ উদ্দেশ্য, সে যাতে পড়ে না গিয়ে বাধা অতিক্রম করতে পারে৷ এর জন্য এমন সফটওয়্যার তৈরি করা হচ্ছে, যা পরিস্থিতি বিচার করে তা থেকে নিজেই শিখে নিতে পারে৷ যা সত্যি কাজ করবে, শেষ পর্যন্ত সেটাই গড়ে তোলা হবে৷

তবে রোবট তো আর মানুষ নয়৷ তাই জল পান করার প্রয়োজন নেই৷ কিন্তু চাঁদে মানুষের ঘাঁটি তৈরি করতে হলে পানি ছাড়া চলবে না৷ জার্মান এয়ারোস্পেস সেন্টারের অধ্যাপক রাল্ফ ইয়াউমান বলেন, ‘‘চাঁদে পানির ব্যবস্থা করা সম্ভব৷ সৌর বাতাস থেকে হাইড্রোজেন পাওয়া যায়, যা ধুলিকণায় লেগে থাকে৷ পাথরের মধ্যে রয়েছে অক্সিজেন৷ হাইড্রোজেন আর অক্সিজেন দিয়েই পানি তৈরি হয়৷''

অ্যারিজোনার এক আগ্নেয়গিরির গহ্বর থেকে এসেছে এই ধূসর পাউডার৷ মিউনিখের গবেষকরা তা দিয়ে পরীক্ষা চালাচ্ছেন৷ তার রাসায়নিক গঠন ও কণার মাপ চাঁদের ধূলিকণার মতো৷ ‘অ্যাপোলো ১৪'-র নভোচারীরা সেই নমুনা পৃথিবীতে এনেছিলেন৷ বিজ্ঞানীদের স্বপ্ন হলো – হাইড্রোজেন, অক্সিজেন, নাইট্রোজেন – ধুলিকণার এ সব উপাদানগুলিকে আলাদা করা৷

তার মধ্যে ধাতুও রয়েছে৷ হাতেনাতে সেই প্রক্রিয়া দেখানোও হচ্ছে৷

পাথর গরম করলে তা থেকে হাইড্রোজেন ও অক্সিজেন বেরিয়ে আসে৷ অর্থাৎ তা দিয়ে পানি তৈরি করা যেতে পারে৷ তবে এমন যন্ত্র এখনো তৈরি হয় নি৷ মিউনিখের টেকনিকাল ইউনিভার্সিটির মাটিয়াস ফাইফার বলেন, ‘‘এক লিটার পানি বের করা সহজ নয়৷ যেমন বিষুবরেখার আশেপাশের অঞ্চলে প্রায় এক টন সূক্ষ্ম ছেঁকে নেয়া ধুলিকণা গরম করলে, তা থেকে মাত্র এক কিলো পানি পাওয়া যেতে পারে৷''

ব্যাপারটা এমন হবে৷ ঘাস কাটার যন্ত্রের মতো দেখতে বিশেষ ধরনের যান চাঁদের ধুলা জমা করবে৷ তারপর সেই ধুলা ছেঁকে নিয়ে চুল্লিতে ঢালা হবে৷ সেখানে ততক্ষণ ধরে ধুলা গরম করা হবে, যতক্ষণ না হাইড্রোজেন ও অক্সিজেন সহ অন্যান্য উপাদান বেরিয়ে না আসে৷ সেই গ্যাস সঙ্গে সঙ্গে চুল্লির মধ্যে পানি ও জ্বালানিতে রূপান্তরিত করে ঘাঁটিতে পাঠিয়ে দেওয়া হবে৷ অধ্যাপক ইয়াউমান বলেন, ‘‘চাঁদকে আসলে আলাদা এক মহাদেশ, পৃথিবীর এক সম্পূর্ণ অচেনা মহাদেশ হিসেবে দেখা চলে৷ দশ বা বিশ বছরে না হলেও ৫০ বছরের মধ্যে চাঁদে গবেষণাগার তৈরি হবে – আমি এ ব্যাপারে নিশ্চিত৷''

একশো বছর আগে কুমেরু অঞ্চল যেমন মানুষের কাছে রহস্যময় ছিল, আজ চাঁদের ক্ষেত্রে তা বলা চলে৷ এক সময় চাঁদও আর অচেনা থাকবে না৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক