1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

চলো দল গড়ি

নদী সব সময়েই ভালো লাগে আমার৷ রাগ, হতাশা, বেদনা, একাকীত্ব... সব কিছুই নিমেষে উড়িয়ে দেয় নদীর হাওয়া ৷ প্রিয় সঙ্গী তাই নদী... রাইন৷ জার্মানির বিখ্যাত রাইন৷ একেক শহরে তার একেক রূপ৷ একেক রং৷

default

ফুটবল দর্শন

সেই রং দেখতে দেখতেই শুনতে পাচ্ছি টিমের কথা৷ কিভাবে গড়ে ওঠে টিম, কিভাবেই বা তার বেড়ে চলা৷ আর কিভাবেই বা সুখ-দুঃখের সাথি হয় টিমের সদস্যরা৷ আরে এতো সেই ছোটবেলার ছড়ার লাইন ... দশে মিলে করি কাজ, হারি-জিতি নাহি লাজ... কিংবা দশের লাঠি একের বোঝা ...৷ ছোটবেলাতেই শিখতে হয়েছিল এসব লাইনের ভাব সম্প্রসারণ!!!

Deutsche Welle South Asia Excursion

ডয়চে ভেলে দক্ষিণ এশিয়া টিমের একাংশ

কিন্তু এসেছি তো ভ্রমণে? তার মধ্যে টিম নিয়ে টানাটানি কেন? স্বভাবতই প্রশ্ন৷ তবে সেই প্যাঁচাল যখন ফুটবলের দিকে গেলো, তখনই কিঞ্চিৎ উত্তেজনা টের পেলাম৷ ফুটবল খেলা দেখতে যাবো না তো?

হ্যাঁ, মন ঠিকই ধরেছিল৷ গ্রেহেমের লক্ষ্য সেটাই৷ ডয়চে ভেলের পুরো দক্ষিণ এশিয়া টিমকে ফুটবল খেলা দেখানো ... টিমের মধ্যে সংহতি বাড়ানো৷

যাত্রা সেই মাঝ সকালে৷ গন্তব্য অজানা জেনেই বন থেকে ডাবল ডেকার ট্রেনে ডুসেলডর্ফ৷ খানিকটা হেঁটে রাইনের পাড়ে দুপুরের খাবার৷ তার মাঝেই তিনি জানালেন ফুটবল খেলা দেখতে যাচ্ছি৷

Deutsche Welle South Asia Excursion

ফেরার পথে গ্রেহেম লুকাস

খেলা তখনো শুরু হয়নি৷ গোলকিপারের প্রস্তুতি দেখতে দেখতেই ফিরে গেলাম ছোট বেলায়৷ দুরন্ত এক কিশোরের গোলকিপার হওয়ার স্বপ্ন, কান ... কিংবা আর্জেন্টিনার সেই গোলকিপার ... নাম মনে নেই৷ শুধু মনে আছে মাটি থেকে ফুট তিনেক উপরে সমান্তরালে শরীর ভাসাতে জানতো সে ... চিলের মতো ছোঁ মেরে বল বুকে নিতে জানতো৷ তাকে দেখে দেখে কতই না শূন্যে ভাসতে চেয়েছি আমি৷ ফলাফল ... এখন চোখে চশমা৷ আর কম্পিউটার নামক ডিজিটাল মাঠে বন্দি জীবন৷

জার্মানদের সবকিছুই মাপা৷ রাত দশটার পর কোন শব্দ নয় ... কিংবা তিন ধরনের ময়লা ফেলো তিন জায়গায়৷ জার্মান মানেই শান্ত এক জাতি৷ কিন্তু এলটিইউ এরেনা খেলার মাঠ দেখে কে বলবে সে কথা! ডানে লাল বামে সাদা৷ হাতে বিয়ার, ঠোঁটে সিগারেট নিয়ে সমানে চেঁচাচ্ছে তারা৷ ওলে ... ওলে ... ওলে ... ৷

Deutsche Welle South Asia Excursion

উৎসাহিত নতুন প্রজন্ম ট্রেনেই শুরু করেছে টিম গড়া

এরই মাঝে খেলাটা বেশ একপেশে হয়ে গেছে৷ শুরু থেকেই শক্তিমত্তায় নিজেদের অবস্থান পরিষ্কার করে দিয়েছে বায়ার লেভারকুজেন৷

আর অন্যদিকে একের পর এক গোল খেয়ে যাচ্ছে বোরুসিয়া মোয়েনশেনগ্লাডবাখ্৷ তবুও হতাশা যেনো পেয়ে বসেনি তাদের সমর্থকদের মধ্যে৷ নানাভাবে চেষ্টা করছে টিমকে খেলায় ফিরিয়ে আনতে, উৎফুল্ল রাখতে৷ এই বুঝি টিম স্পিরিট৷ সুখ-দুঃখের বন্টন৷ আর তাই, পাঁচ গোল হজমের পরও ফেরার চেষ্টা অব্যাহত ...৷

খেলা তখনো শেষ হয়নি৷ তার আগেই গ্রেহেমের আহ্বান, চলো সবাই আগে কেটে পড়ি৷ খেলার যে দশা ... তাতে কি জানি সমর্থকরা কি শুরু করে৷ পরে বুঝেছিলাম... টিম নেতা সযতনে তার সতীর্থদের নিরাপদ দূরত্বে নিয়ে যেতে চায়৷

যাবার সময় জার্মান ফুটবল সমর্থকদের চিৎকার চেঁচামেচিতে খানিকটা বিরক্তি তৈরি হয়েছিল বৈকি৷ তবে আসার পথে হলো উল্টোটা৷ গ্রেহেমের টিম গড়ার বক্তব্যে উৎসাহিত নতুন প্রজন্ম ট্রেনেই শুরু করেছে টিম গড়া৷ না ফুটবল টিম নয়, সংগীত টিম ... গলা ছেড়ে হিন্দি, বাংলা ... উর্দু গান৷ ট্রেনে থাকা জনাকয়েক জার্মান প্রথমে বিস্মিত... তারপর একরাশ বিরক্তি নিয়ে প্রস্থান৷ বাপরে ... একেই বলে টিম ওয়ার্ক, পুরো বগি ততক্ষণে দক্ষিণ এশিয়ার দখলে৷

লেখক: আরাফাতুল ইসলাম, সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

সংশ্লিষ্ট বিষয়