1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভাইরাল ভিডিও

চলুন ট্রাম্পের ব্যক্তিগত বিমানের ভেতরটা ঘুরে আসি

ডোনাল্ড ট্রাম্প মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর তাঁর নীতি কী হবে, মন্ত্রিসভায় কাঁরা থাকছেন – এ সব নিয়ে আলোচনা হচ্ছে৷ এসবের বাইরে তিনি কোথায় থাকবেন, কোন বিমান ব্যবহার করবেন তা নিয়েও চলছে আলোচনা৷

এর কারণ, নিউ ইয়র্কের ফিফথ অ্যাভিনিউতে অবস্থিত ট্রাম্প টাওয়ারের ৫৮ তলার যে অভিজাত অ্যাপার্টমেন্টে থাকেন ডোনাল্ড ট্রাম্প, সেটি তাঁর খুবই প্রিয়৷ এতটাই প্রিয় যে, নির্বাচনি প্রচারণা চালানোর সময় শুধুমাত্র নিজের বিছানায় ঘুমাবেন বলে কখনও কখনও অনেক দূর থেকে নিজের প্লেনে করে কয়েক ঘণ্টা উড়ে নিউ ইয়র্কে ফিরে যেতেন ট্রাম্প৷ তাই প্রেসিডেন্টের সরকারি বাসভবন হোয়াইট হাউসে তিনি উঠবেন কিনা, উঠলেও কয় রাত তিনি সেখানে কাটাবেন, তা নিয়ে গণমাধ্যমে  আলোচনা শুরু হয়েছে৷

এই আলোচনায় ট্রাম্পের ব্যক্তিগত বিমানের কথাও উঠে আসছে৷ ২০১১ সালে ১০০ মিলিয়ন ডলারেরও বেশি খরচ করে ‘বোয়িং ৭৫৭' বিমান কেনার পর নিজের ব্যবহারের জন্য অভিজাত করে সাজিয়েছেন৷ বিমানটিকে আদর করে তিনি ‘টি-বার্ড' নামে ডাকেন৷ তবে নির্বাচনে জেতার পর থেকে অনেকে একে ‘ট্রাম্প ফোর্স ওয়ান' নামে ডাকছেন৷ ট্রাম্পের বিমানে নিজস্ব অফিস রয়েছে, আছে দু'টি বেডরুম৷ ইঞ্জিন বানিয়ে দিয়েছে রোলস রয়েস কোম্পানি৷ আছে গোল্ড-প্লেটেড সিটবেল্ট৷ আরও আছে ৫৭ ইঞ্চি পর্দার হোম সিনেমা৷ বিমানের ভেতরটা দেখতে নীচের টুইটে থাকা লিংকে ক্লিক করুন৷

নির্বাচনি প্রচারণার সময় ট্রাম্প এয়ারফোর্স ওয়ান-এর সমালোচনা করেছিলেন৷ তিনি বলেছিলেন, ঐ বিমানে পুরনো ইঞ্জিন ব্যবহার করা হয়৷ ফলে সেটি বেশি পরিবেশ দূষণ করে৷ ওবামার জলবায়ু পরিবর্তনের পক্ষে দেয়া বক্তব্যের সমালোচনা করতে গিয়ে ট্রাম্প বলেছিলেন, ‘‘ওবামা কার্বন ফুটপ্রিন্ট নিয়ে কথা বলেন, তারপর পুরনো ৭৪৭ (এয়ারফোর্স ওয়ানের মডেল), যেটি পুরনো ইঞ্জিন দিয়ে চলে, বিমানে করে ছুটি কাটাতে হাওয়াই যান৷''

জেডএইচ/ডিজি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়