1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

ঘূর্ণিঝড়ের তাণ্ডব সরে যাচ্ছে গ্রীষ্মমণ্ডলীয় এলাকা থেকে

আইলা, সিডর, রেশমা ও নার্গিসের মতো ঝড় বাংলাদেশ, ভারত বা বিষুবরেখার কাছাকাছি অবস্থিত দেশ বা অঞ্চলগুলিতেই তাণ্ডব দেখিয়ে থাকে৷ এমন ‘ট্রপিকাল' ঝড় নাকি এবার আরও দূর পর্যন্ত ধেয়ে যাবে৷ বাড়বে ঝড়ের দাপটও৷

মার্কিন গবেষকরা ঘূর্ণিঝড়ের বিবর্তন নিয়ে গবেষণা করতে গিয়ে লক্ষ্য করেছেন যে, গত ৩০ বছরে ‘ট্রপিকাল' বা গ্রীষ্মমণ্ডলীয় ঝড় তার থাবা দূর পর্যন্ত ছড়িয়ে দিচ্ছে৷ বিষুবরেখা ছেড়ে উত্তর ও দক্ষিণ মেরুর দিকে এগিয়ে চলেছে ঘূর্ণিঝড়৷ প্রতি দশকে ৫৬ কিলোমিটার করে ছড়িয়ে পড়ছে তার পরিধি৷ সবচেয়ে বেশি পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচ্ছে প্রশান্ত মহাসাগরের উত্তর ও দক্ষিণে এবং ভারত মহাসাগরের দক্ষিণ অংশে৷ অ্যাটলান্টিক মহাসাগরে কিন্তু এমন পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচ্ছে না৷

এই প্রবণতা যে জলবায়ু পরিবর্তনের সঙ্গে জড়িত, তা নিয়ে বিজ্ঞানীদের মনে তেমন সন্দেহ নেই, যদিও সরাসরি তা প্রমাণ করা কঠিন৷ অর্থাৎ মানুষের কার্যকলাপের কারণেই জলবায়ু পরিবর্তন ঘটছে, বদলে যাচ্ছে ঝড়ের চরিত্র৷

Fotoreportage zur Problematik des Klimawandels in Bangladesch

মানুষের কার্যকলাপের কারণেই জলবায়ু পরিবর্তন ঘটছে, বদলে যাচ্ছে ঝড়ের চরিত্র

মার্কিন প্রশাসনের ন্যাশানাল ওশিয়ানিক অ্যান্ড অ্যাটমোসফিয়ারিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশন বা এনওএএ-র বিজ্ঞানী জিম কসিন বলেন, গ্রীষ্মমণ্ডলীয় পরিবেশ আর ট্রপিকাল সাইক্লোনের পক্ষে উপযুক্ত থাকছে না৷ অন্যদিকে উত্তর ও দক্ষিণে আরও বেশি অঞ্চল ঘূর্ণিঝড়ের নতুন চারণভূমি হয়ে উঠছে৷

এই অবস্থায় ভবিষ্যৎ সম্পর্কে কিছু পূর্বাভাষও দিচ্ছে এনওএএ৷ যেমন জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়ায় ঘূর্ণিঝড়ের ঝুঁকি বাড়তে চলেছে৷ অন্যদিকে ফিলিপাইন্সের দক্ষিণে ঝুঁকির মাত্রা কমে যাবে৷ কিন্তু সেটা বিষুবরেখার আশেপাশের দেশগুলির জন্য মোটেই সুখবর নয়৷ কারণ তাণ্ডব সত্ত্বেও জলের একটা বড় উৎসব ছিল এই সব ঝড়৷ ঝড় না হলে এ সব এলাকায় জলের অভাব দেখা দিতে পারে৷

এসবি/ডিজি (এপি, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন