1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ঘুস আদায়ের সংঘবদ্ধ চক্র, মাঠে নেমেছে পুলিশ

ঢাকায় একটি ঘুস লেনদেন চক্রের সন্ধান পাওয়া গেছে৷ তারা ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে কাজ পাইয়ে দেয়ার কথা বলে প্রশাসকসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নামে ঘুস আদায় করেন৷

আবার কর্পোরেশনের সাসপেন্ড বা চাকরিচ্যুত কর্মকর্তাদের চাকরি ফিরে পাওয়ার তদবিরে বাণিজ্যও করেন তারা৷

গোপন ক্যামেরায় ধারণ করা ভিডিও ফুটেজের মাধ্যমে জানা যায় এই চক্রের কথা৷ এই ভিডিও ফুটেজ প্রকাশ হওয়ার পর, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে থানায় জিডি করা হয়েছে৷ চিহ্নিত করা গেছে চক্রের অন্তত সাত জনকে৷ চক্রের সদস্যরা হলেন ঠিকাদার বিল্লাল হোসেন, মো. মিলন, আসাদুজ্জামান আসাদ, ফারুখ হোসেন ওরফে ভাগ্নে ফারুক, সালাউদ্দিন পাপ্পু এবং সিটি কর্পোরেশনের কম্পিউটার অপারেটর মো. শহীদ৷

তারা সিটি কর্পোরেশনে নানা ধরণের কাজ পাইয়ে দেয়া এবং পুরনো বিল তোলার জন্য টাকার লেনদেন করে থাকেন৷ শুধু তাই নয়, ঐ লেনদেনের সময় কর্পোরেশনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নিজ বন্ধু বা আত্মীয় বলে পরিচয় দেন তারা৷ তাদের মধ্যে বিল্লালের স্ত্রী আবার সিটি কর্পোরেশনের কর্মচারী৷

Symbolbild Bangladesch Korruption Banknoten Geld Bestechung

কাজ পাইয়ে দেয়ার কথা বলে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসকসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নামে ঘুস আদায় করে এই চক্রটি

তিনি একটি পক্ষের কাছ থেকে পুরনো বিল পাইয়ে দেয়ার জন্য মোট ১ লাখ টাকা নেন৷ তবে তার দাবি, কাজ শেষে ৫ লাখ টাকা দিতে হবে৷ ভিডিও ফুটেজ ধরে তাকে এই অভিযোগের ব্যাপারে প্রশ্ন করলে তিনি অবশ্য দাবি করেন যে, তিনি ব্যবসার জন্য টাকা নিয়েছেন৷

ওদিকে, আসাদুজ্জামান এবং ফারুক সিটি কর্পোরেশনের সাসপেন্ড হওয়া কানুনগো মোহাম্মদ আলির সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দেন ঠিকাদার সালাউদ্দিন এবং পাপ্পুকে৷ এ জন্য তারা ২ কোটি টাকার প্রস্তাব দেন৷ আসাদুজ্জামান এবং ফারুখ এরপর বিষয়টি নিয়ে কাজ করার আশ্বাস দেন৷ তাদের মূল শক্তি হলো, তারা সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসক নজরুল ইসলামের বন্ধু৷ এ ব্যাপারে আসাদুজ্জামনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, নজরুল ইসলাম তার বাল্যবন্ধু৷ আর ফারুক জানান, আপন ভাগ্নে না হলেও তিনি প্রশাসককে মামা বলে ডাকেন৷ তবে তারা দু'জনই দাবি করেন যে, তাদের ঘুসের প্রস্তাব দেয়া হলেও তাতে তারা সম্মত হননি৷

এ নিয়ে প্রশাসক নজরুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আসাদুজ্জামান এবং ফারুককে তিনি চেনেন৷ আসাদুজ্জামান এবং তার গ্রামের বাড়ি একই এলাকায়৷ তবে তারা তার কাছে কোনো তদবির নিয়ে যান না এবং তাদের তদবিরে তিনি কাজও করেন না৷ তিনি দাবি করেন, কিছু দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা কর্মচারীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ায় তারাই এখন তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে৷

এদিকে সিটি কর্পোরেশনের কানুনগো মোহাম্মদ আলির চাকরি রক্ষায় ঘুসের প্রস্তাব দেন দু'জন ঠিকাদার সালাউদ্দিন এবং পাপ্পু৷ মোহাম্মদ আলি অবশ্য দাবি করেন যে, তিনি ঐ দু'জনকে চেনেন না৷ তিনি আদালতের মাধ্যমেই চাকরি ফিরে পেয়েছেন৷

এই পুরো চক্রের অফিশিয়াল কাজ করেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের কম্পিউটার অপারেটর শহীদ৷ তবে তার দাবি যে, তাকে বিল্লাল বিভিন্ন কাজে নিয়ে যায়৷ অবশ্য তারা টাকা লেনদেন করেন কিনা, তিনি তা জানেনা৷

ঢাকা মাহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার মাসুদুর রহমান ডয়চে ভেলেকে জানান, তারাও বিষয়টি জেনেছেন এবং ভিডিও ফুটেজ তারাও পেয়েছেন৷ তারা তদন্ত শুরু করেছেন৷ পুলিশের দাবি, অচিরেই প্রতারক চক্রটিকে গ্রেপ্তার করা হবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন