1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

ঘুরে আসুন দ্বীপ দেশ মালদ্বীপ থেকে

হাজারের বেশি দ্বীপের দেশ মালদ্বীপ৷ তাই পর্যটকদের কাছে ভীষণ প্রিয়৷ কিন্তু এতদিন শুধু টাকা-পয়সাওয়ালা পর্যটকরাই সেখানে যেতে পারতেন৷ বছর কয়েক আগে আইনে সংস্কার আনায় এখন কম খরচে সেখানে যাওয়া যাচ্ছে৷

সার্কের অন্তর্ভুক্ত দেশ মালদ্বীপের আয়ের একটা বড় অংশ আসে পর্যটন খাত থেকে৷ দ্বীপ রাষ্ট্র হওয়ার কারণে পশ্চিমা পর্যটকদের কাছে মালদ্বীপ খুবই আকর্ষণীয়৷ বিশেষ করে পশ্চিমা নবদম্পতিরা সেখানে যেতে খুব পছন্দ করেন৷

কিন্তু পশ্চিমা পর্যটক মানেই তাদের বিশেষ কিছু সুবিধা দিতে হয়৷ যেমন অবাধে পানীয় পানের সুযোগ, ইচ্ছামতো পোশাক আশাক পরা, নারী-পুরুষের বিয়ে বহির্ভূত যৌনমিলনের সুযোগ ইত্যাদি৷ কিন্তু এর কোনোটাই মুসলিম দেশ মালদ্বীপের সংস্কৃতির সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়৷

তাই আগে পর্যটকদের মনুষ্য বসতি আছে এমন কোনো জায়গায় যেতে দেয়া হতো না৷ রাজধানী মালের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নামার পর পর্যটকদের স্পিডবোটে বা এয়ার ট্যাক্সিতে করে বিভিন্ন দ্বীপে নিয়ে যাওয়া হতো৷ সেসব দ্বীপে কোনো বসতি থাকত না৷ ফলে পর্যটকরা যা ইচ্ছা তাই করতে পারতেন৷

REFILE - CLARIFYING TAGS Maldivian presidential candidate Mohamed Nasheed attends a news conference at his residence in Male September 8, 2013 . Nasheed will face a run-off election on Sept. 28 after his win in the presidential poll ended without a majority, provisional results showed on Sunday, nearly 20 months after his removal ignited months of unrest. Nasheed, the Maldives' first democratically elected president, was forced from office in February 2012 in what his supporters call a coup. The turmoil tarnished the Indian Ocean archipelago's image as a tropical holiday paradise. REUTERS/Dinuka Liyanawatte (MALDIVES - Tags: POLITICS ELECTIONS)

মোহাম্মদ নাশিদ

তবে ২০০৯ সালে দেশটিতে অনুষ্ঠিত প্রথম গণতান্ত্রিক নির্বাচনে জয়ী হয়ে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর মোহাম্মদ নাশিদ একটি সংস্কার আনেন৷ এর ফলে মালেতে বসবাসকারীরা তাদের ‘গেস্টহাউস' বিদেশি পর্যটকদের কাছে ভাড়া দেয়ার সুযোগ পান৷

এতে করে যেটা হয়েছে তা হলো পর্যটকদের আর স্পিডবোট বা এয়ার ট্যাক্সির মতো ব্যয়বহুল যানে চড়তে হচ্ছে না৷ আর রাজধানীতে থাকতে পারার কারণে কম খরচে খাওয়া দাওয়ার সুযোগ পাওয়া যাচ্ছে৷ অথচ আগে এয়ার ট্যাক্সিতে করে যে দ্বীপে নিয়ে যাওয়া হতো সেখানে মানুষজন না থাকায় খাবারের দাম হতো অনেক বেশি৷

একটা উদাহরণ দিলে বিষয়টা আরও পরিষ্কার হবে৷ বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদক জানিয়েছেন, ২৫ বছর বয়সি মালের এক যুবক কদিন আগে একটি গেস্টহাউস চালু করেছেন৷ সেখানে প্রতি রাতের ভাড়া ৩০ ডলার৷ অথচ দ্বীপগুলোতে যে রিসোর্ট রয়েছে সেখানে ভাড়াটা এর চেয়ে প্রায় ১০ গুন বেশি!

সুতরাং ভ্রমণপ্রিয় পাঠকরা সময় ও সুযোগ পেলে চলে যেতে পারেন মালদ্বীপে৷ মালদ্বীপের এয়ারলাইন্স ‘মালদিভিয়ান' সপ্তাহে দু'দিন ঢাকা থেকে মালেতে চলাচল করে৷

জেডএইচ/ডিজি (এএফপি, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন