1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

ঘুমের জন্য ওষুধ নয়, দুধ

রাতে ঘুমানোর জন্য বিভিন্ন ধরণের ঘুমের ওষুধের কথা আমরা শুনেছি৷ বাজারে এবার এসেছে ঘুম পাড়ানি দুধ৷ এই দুধ মেলাটোনিন সমৃদ্ধ৷ রাতে শোওয়ার আগে খেলে নাকি খুব ভাল ঘুম হবে৷

Glass, Milk, Germany, Munich, Sleep, ঘুম, ওষুধ, দুধ, জার্মানি

ফাইল ছবি

জার্মানির দক্ষিণে মিউনিখ শহরের একটি কোম্পানি বাজারে এনেছে মেলাটোনিন সমৃদ্ধ দুধ৷ বলা হচ্ছে রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে হালকা গরম এক গ্লাস দুধ খেলে রাতে খুব ভাল ঘুম হবে৷ আর মনে হয় ঠিক এর জন্যই অপেক্ষা করে ছিল জার্মানির হাজার হাজার মানুষ৷ কারণ, ‘রাতে ঘুম হয়নি বা খাটা-খাটনি বেশি যাচ্ছে৷ রেস্ট নেওয়ার সময় পাচ্ছি না' - এ ধরণের অভিযোগ সারাক্ষণই শোনা যাচ্ছে৷ সেই সমস্যা সামাধানে এগিয়ে এসেছে মিউনিখের একটি কোম্পানি৷

বাভারিয়া অঞ্চলের সবুজ মাঠ, উঁচু-নিচু পাহাড় আর ফাঁকে-ফাঁকে অসংখ্য খামার – এ দৃশ্য কমবেশি সবার কাছেই পরিচিত৷ গরু চড়ে বেড়াচ্ছে, হাঁস-মুরগি ছোটাছুটি করছে – খামার বাড়িগুলোতে এ দৃশ্য দেখা স্বাভাবিক৷ অনেকেই ছুটি কাটাতে চলে যান গ্রামের এই স্নিগ্ধ-কোমল পরিবেশে৷ আর ইদানিং এখানেই হানা দিচ্ছে নানা ধরণের খাবার প্রস্তুতকারী কোম্পানি৷ এর মধ্যে একটি কোম্পানি গবেষণা করে জানিয়েছে, দুধে মেলাটোনিনের পরিমাণ বেশি থাকলে সেই দুধ পান করার পর খুব ভাল ঘুম হবে৷ প্রায় ছয় মাস ধরে চলে এই গবেষণা৷ এরপর বাজারে আসে ‘নাখট মিলশ ক্রিস্টালে' অর্থাৎ নাইট মিল্ক ক্রিস্টাল কোম্পানির মেলাটোনিন সমৃদ্ধ দুধ৷ ইউরোপের অন্যান্য দেশেও এই দুধ রপ্তানি শুরু করে দিয়েছে জার্মানি৷ অস্ট্রিয়ার বাজারে এই দুধ পাওয়া যাচ্ছে৷ কাই ওপেল ‘নাখট মিল্শ ক্রিস্টাল' কোম্পানির মুখপাত্র৷ তিনি জানান, ‘‘প্রতিটি প্রাণী এমনকি মানুষের মধ্যেও মেলাটোনিনের উপাদান রয়েছে৷ এই মেলাটোনিনই দিন এবং রাতের সাইকেলকে নিয়ন্ত্রণ করে৷ প্রাকৃতিক ছন্দটাকে ধরে রাখে৷''

মেলাটোনিন সমৃদ্ধ ট্যাবলেট অনেক আগে থেকেই অ্যামেরিকায় বিক্রি হচ্ছে৷ বিভিন্ন ওষুধের দোকান থেকে যে কেউই তা কিনতে পারে৷ এছাড়া মেলাটোনিন সমৃদ্ধ বিভিন্ন ধরণের সফ্ট ড্রিঙ্কও সেখানে পাওয়া যায়৷ তবে ইউরোপে মেলাটোনিন এত সহজলভ্য নয়৷ এখানে যত্রতত্র তা বিক্রি করা বৈধ নয়৷ অ্যামেরিকার ফেডারেল ড্রাগ অ্যাডমিনস্ট্রেশন নতুন করে বিষয়টি বিবেচনা করে দেখছে৷

বাস্তব সত্য হল যে সব দুধ আমরা বাজার থেকে কিনি সেগুলোতে মেলাটোনিনের পরিমাণ একেবারেই নেই৷ যদি তাই হত তাহলে দেখা যেত সকালের নাস্তার টেবিলেই মেলাটোনিন সমৃদ্ধ দুধ খেয়ে টেবিলেই ঘুমিয়ে পড়েছে সবাই৷ তাই এসব দুধ থেকে মেলাটোনিন একেবারে সরিয়ে ফেলা হয়েছে৷ রাতে পান করার জন্য দুধে মেলাটোনিনের উপাদান যোগের প্রশ্ন এখানেই এসেছে৷ আলোর সংস্পর্শে মেলাটোনিন নষ্ট হয়ে যায়৷ আলো থেকে তাই দুধ দূরে রাখতে হবে৷ কাই ওপেল আরো জানান, ‘‘গরুর দিনের বেলা প্রচুর আলো বাতাসের প্রয়োজন হয়৷ কিন্তু রাতে একেবারেই না৷ সাধারণত দেখা যায় গরুর গোয়াল ঘরেও সারারাত হালকা বাতি জ্বলছে৷ এ কারণেই দুধে মেলাটোনিনের পরিমাণ কম, মেলোটোনিনের পরিমাণ গরুর রক্তেও কম৷ আমরা যা করেছি তা হল, গোয়াল ঘর থেকে আলো একেবারে সরিয়ে নিয়েছি৷ এক ধরণের অত্যন্ত হালকা লাল আলো শুধু জ্বলছে৷ এই আলো কোনো ক্ষতি করবে না৷ মেলাটোনিন উৎপাদনে কোনো সমস্যা হবে না৷''

তবে সবাই ‘মেলাটোনিন'-এর যুক্তি গ্রহণ করতে নারাজ৷ ইংল্যান্ডের লফবোরো বিশ্ববিদ্যালয়ের স্লিপ রিসার্চ সেন্টারের প্রধান জিম লোর্ন মেলাটোনিনের এই চমকপ্রদ তথ্য মেনে নিতে পারছেন না৷ তাঁর প্রশ্ন একটি গরু যদি সারারাত আলোর দিকে তাকিয়ে থাকার সিদ্ধান্ত নেয় তাহলে মেলাটোনিন কীভাবে উৎপন্ন হবে? জিম সন্দেহ প্রকাশ করে বলেন, ‘‘মেলাটোনিন ঘুমে সহায়তা করে না৷ এটা শুধু শরীরকে মনে করিয়ে দিতে পারে এখন রাত বা এখন দিন৷ এখন জেগে থাকা যায় বা এখন ঘুমাবার সময়৷ শরীরের প্রাকৃতিক ঘড়িকে সময়মত চলতে মেলাটোনিন সাহায্য করে৷ কিন্তু কোনো নিশাচর প্রাণীকে কোনো অবস্থাতেই রাতে ঘুম পাড়ানো যাবে না৷ এসব প্রাণীর মেলাটোনিন কাজ করে অন্যভাবে৷ মেলাটোনিন কীভাবে ঘুমাতে সাহায্য করবে তা আমি এখনো বুঝতে পারছি না৷''

তবে একটি কথা সত্যি তা হল অন্য সাধারণ দুধের চেয়ে মেলাটোনিন সমৃদ্ধ দুধের দাম অনেক বেশি৷ অনেকেই বলছে, ঘুমের জন্য কোনো ওষুধ বা দুধ চাই না, চাই মানসিক প্রশান্তি৷

প্রতিবেদন: মারিনা জোয়ারদার

সম্পাদনা: আবদুল্লাহ আল-ফারূক

নির্বাচিত প্রতিবেদন