1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

ঘুমের জন্য আদর্শ সময় হচ্ছে সাত ঘন্টা

অনেক মানুষকে দেখা যায় ছয় ঘন্টা ঘুমিয়েই বলেন ভালো ঘুম হয়েছে৷ আবার অনেকে আট ঘন্টা ঘুমিয়েও বলেন ভালো ঘুম হয়নি৷ আসলে একজন মানুষের প্রতিদিন কয় ঘন্টা ঘুমানো উচিত?

default

একজন মানুষের ঘুমের জন্য আদর্শ সময় হচ্ছে সাত ঘন্টা৷ যেসব মানুষ প্রতিদিন সাত ঘন্টার কম বা বেশি ঘুমিয়ে থাকেন, তাঁদের মধ্যে হৃদরোগের ঝুঁকি বেড়ে যায়৷ আর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এটা মৃত্যুর একটি বড় কারণ৷ সম্প্রতি একটি সমীক্ষায় এমন একটা তথ্যই উঠে এসেছে৷

দিন ও রাত মিলিয়ে পাঁচ ঘন্টার কম ঘুমালে বুকে ব্যাথা, হৃদপিন্ডের ধমনীতে রক্ত জমাট বেঁধে যাওয়া, হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের ঝুঁকি নাকি দ্বিগুন বেড়ে যায়৷ যুক্তরাষ্ট্রের ওয়েস্ট ভার্জিনিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন অনুষদে পরিচালিত এ গবেষণাটির কথা বলা হয়েছে ‘স্লিপ' পত্রিকাতে৷ সমীক্ষাটিতে বলা হয়েছে, সাত ঘন্টার বেশি ঘুমালেও কিন্তু আবার হৃদরোগের ঝুঁকি বেড়ে যেতে পারে৷ সমীক্ষায় যারা অংশ নিয়েছিলেন, তাঁদের মধ্যে নয় ঘন্টা বা

Schläfer im Park

তারও বেশি যাঁরা ঘুমিয়েছিলেন - তাঁদের হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি, যাঁরা সাত ঘন্টা ঘুমিয়েছিলেন - তাঁদের চেয়ে এক থেকে দেড় গুন বেশি৷ অবাক হলেন ?

জানা গেছে, ৬০ বছরের কম পূর্ণ বয়স্ক যেসব মানুষ পাঁচ ঘন্টা বা তার চেয়ে কম ঘুমান, তাঁরা আছেন সবচেয়ে বেশি ঝুঁকির মধ্যে৷ যারা সাত ঘন্টা ঘুমান, তাঁদের চেয়ে এইসব মানুষদের হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি প্রায় তিন গুন বেশি৷ আর যেসব নারী ঘুমের ক্ষেত্রে কৃপণ, অর্থাৎ যাঁরা প্রতিদিন পাঁচ ঘন্টা বা তারও কম ঘুমান - তাঁদের হৃদরোগের সম্ভাবনা দুই থেকে আড়াইগুন বেশি৷ গবেষণাটিতে দেখা যাচ্ছে, অল্প ঘুমের কারণে বুকে ব্যাথা হয়৷ অন্যদিকে, বেশি বা কম ঘুম হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয়৷

‘স্লিপ' পত্রিকার আরেকটি সমীক্ষাতে বলা হয়েছে, যাঁরা চাইলেও পর্যাপ্ত ঘুমানোর সময় পাননা - মাঝে মধ্যে লম্বা ঘুম কিন্তু তাঁদের জন্য কাজে আসতে পারে৷ যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভেনিয়া স্কুল অব মেডিসিন বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘দ্য স্লিপ অ্যান্ড ক্রোনোবায়োলজি ইউনিট'এর প্রধান ডেভিড ডিংগস তাঁর গবেষণায় দেখতে পান, প্রাপ্ত বয়স্কদের অনেকেই কাজের কারণে পাঁচ রাত ঠিকমতো ঘুমোতে পারেননা৷ যা তাঁদের শরীরে অত্যন্ত নেতিবাচক প্রভাব ফেলে৷ তবে কেউ যদি পুরো এক সপ্তাহ ধরে রাতে মাত্র চার ঘন্টা করে ঘুমানোর পর ছুটির দিন টানা ১০ ঘন্টা ঘুমাতে পারেন, তাহলে তা কাজে দেয় অনেকটাই৷

প্রতিবেদন: জান্নাতুল ফেরদৌস

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

সংশ্লিষ্ট বিষয়