1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

গ্লুকোমা, রোগটি হলে ঝুঁকি থাকে দৃষ্টি হারানোর

এই রোগটি হলে দৃষ্টির সীমা কমতে থাকে৷ চোখের চাপ বাড়তে থাকে৷ কিন্তু ভুক্তভোগীরা তা বুঝতে পারেন না৷ এটা হলো গ্লুকোমার অত্যন্ত বিপজ্জনক দিক৷

গ্লুকোমা কোনো যন্ত্রণার সৃষ্টি করে না৷ তাহলে রোগীরা অন্তত সতর্ক সংকেত পেতেন যে, শরীরের কোথাও কোনো গোলমাল হয়েছে৷

চোখের ভেতরের ‘অ্যাকুয়াস হিউমার' নামে তরল পদার্থ প্রবাহিত হতে না পারলে এই রোগ দেখা দেয়৷ এই তরল পদার্থ চোখের লেন্স ও কাঠামোকে সতেজ রাখে৷ সুস্থ চোখে অ্যাকুয়াস হিউমার তৈরি ও নির্গমনের মধ্যে একটা ভারসাম্য থাকে৷ গ্লুকোমা হলে এই প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত হয়৷ চোখের অভ্যন্তরে অপটিক স্নায়ুতে চাপ পড়ে৷ দৃষ্টির সংকেত মস্তিষ্কে পৌঁছাতে পারে না৷ পরিণতিতে অন্ধত্ব বরণ করতে হয় আক্রান্ত ব্যক্তিকে৷

Gesichtsfelddefekt beim Glaukom

চোখের অভ্যন্তরে অপটিক স্নায়ুতে চাপ পড়ে

রোগীরা বুঝতে পারেন না

সাধারণত চোখ না ঘুরিয়ে সোজা তাকালেও আশেপাশের বস্তু দেখা যায়৷ ‘‘গ্লুকোমা রোগীরা প্রথমে বুঝতে পারেন না যে, দৃষ্টির পরিধি ক্রমেই কমে যাচ্ছে৷'' বলেন ডর্টমুন্ডের চক্ষু চিকিত্সক মার্কুস কোলহাস৷ রোগী এতে অভ্যস্ত হয়ে যান৷ গ্লুকোমা কয়েক মাস এমনকি কয়েক বছর ধরে চলতে পারে৷ প্রথম দিকে মস্তিষ্ক তথ্য ঘাটতির ভারসাম্যটা রক্ষা করে৷

গ্লুকোমার চিকিত্সায় প্রথমে চোখের অভ্যন্তরের চাপ মাপেন চক্ষু চিকিত্সক৷ অপটিক নার্ভ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কিনা তা পরীক্ষা করে দেখেন৷ সে অনুযায়ী চিকিত্সা করেন৷ তা না হলে দৃষ্টিশক্তি হারানোর ঝুঁকি থাকে৷ ইউরোপে অন্ধত্ব বরণের দ্বিতীয় প্রধান কারণ গ্লুকোমা৷

প্রথমে ড্রপ দিয়ে ভারসাম্যহীন চাপকে নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করা হয়৷ এতে কাজ না হলে অপারেশন করতে হয়৷ লেসারের সাহায্যে চোখের জলপ্রবাহকে ঠিক করার চেষ্টা করা হয়৷ আরেক ধরনের অপারেশনে নতুন করে প্রবাহনালী তৈরি করা হয়৷ ‘‘আরেকটি পদ্ধতি হলো চোখের ভেতরে ছোট ছিদ্র করা৷ এর ফলে অতিরিক্ত তরল পদার্থ বের হয়ে যায়৷'' বলেন কোলহাস৷

বয়স্কদের ঝুঁকি বেশি

বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই বয়স্ক মানুষরাই এই রোগের শিকার হন৷ ৪০-এর পর থেকে এই সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়৷ বাচ্চাদের এই রোগ খুব কমই হয়৷ জার্মানির ৩০০ ছোটো ছেলেমেয়ের মধ্যে ১১ বছরের নেলেও গ্লুকোমার শিকার৷ চার মাস বয়সে তার অসুখটি শনাক্ত করা হয়৷ এক চোখ ঘোলাটে দেখে তাকে ডাক্তার কাছে নিয়ে যাওয়া হলে তিনি সাথে সাথে রোগটি নির্ণয় করেন: জন্মগত গ্লুকোমা৷

তারপর থেকে চলে নেলে ও তার পরিবারের জন্য এক ওডিসি৷ নানা ধরনের চিকিত্সা চলে৷ ৫৩টি অপারেশনের ধকলও সহ্য করতে হয় ছোট্ট মেয়েটিকে৷ কিন্তু কোনো কিছুই দীর্ঘস্থায়ী সাহায্য করতে পারেনি৷
বিশ্বব্যাপী প্রায় ছয় কোটি (৬০ মিলিয়ন) মানুষ গ্লুকোমার শিকার৷ জার্মানিতে এই সংখ্যাটা ১০ লক্ষের মতো৷ অনুমান করা হয় আরো ২০ লক্ষ মানুষ জানেনই না, যে তাদের গ্লুকোমা হয়েছে৷ জার্মানিতে ডায়বেটিস ও উচ্চরক্তচাপের পর সংখ্যার দিক দিয়ে দ্বিতীয় প্রধান অসুখ গ্লুকোমা৷
দুইভাগে ভাগ করা হয়

এই অসুখটিকে দুইভাগে ভাগ করা হয়৷ প্রাইমারি ও সেকেন্ডারি গ্লুকোমা৷ প্রাইমারি গ্লুকোমা অন্য কোনো অসুখের কারণে হয় না৷ যেটি হয়েছে নেলের ক্ষেত্রে৷ অন্যদিকে সেকেন্ডারি গ্লুকোমা কোন সংক্রমণ, আঘাত বা টিউমার থেকে হতে পারে৷ গ্লুকোমার রোগীরা প্রায়ই রক্তনালী ও হার্টের সমস্যায় ভোগেন৷ হ্যারপেস থেকেও চোখের চাপ বৃদ্ধি পেতে পারে৷ হারিয়ে যেতে পারে দৃষ্টিশক্তি৷ ধূমপান থেকেও রক্তনালী বিশেষ করে চোখের সূক্ষ্ম রক্তনালী ও অপটিক নার্ভ ক্ষতিগ্রস্ত হয়৷

Augentropfen

চোখের ভেতরের ‘অ্যাকুয়াস হিউমার' নামে তরল পদার্থ প্রবাহিত হতে না পারলে এই রোগ দেখা দেয়

নেলে দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের বিশেষ লাঠি দিয়ে চলাফেরা করে৷ পড়াশোনা করে সাধারণ স্কুলে৷ অন্যান্য বাচ্চাদের মতো অনেক কিছুই করতে পারে সে৷ যেমন নির্দিষ্ট গণ্ডির মধ্যে সাইকেল চালাতে পারে৷ এক সহকারীর সাহায্যে পাঁচ কিলোমিটার দৌড়ের ট্রেনিংও শেষ করেছে মেয়েটি৷

জীবনযোদ্ধা নেলে

ইতোমধ্যে দৃষ্টির পরিধি অত্যন্ত সীমিত হয়ে পড়েছে তার৷ তাই স্বরলিপি না দেখেই বেহালা বাজানো শিখেছে নেলে৷ সে বেহালা বাজানো শিখেছে, সমাজকে দেখানোর জন্যও৷ যেন সে বলতে চায়, ‘‘হ্যালো এখানে আমি৷ অন্যান্যরা যা পারে আমিও তা পারি৷ তাই আমাকে তোমরা সেভাবেই নাও৷'' তবে নেলের আশঙ্কা, একদিন হয়তো আলো ছায়ার পার্থক্যটাও আর চোখে পড়বে না তার৷ হয়তো একেবারেই অন্ধ হয়ে যাবে সে৷ কিন্তু পরিস্থিতির কাছে হার মানতে রাজি নয় নেলে৷ এ ব্যাপারে বদ্ধপরিকর জীবন সংগ্রামী মেয়েটি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন