1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

গ্রেপ্তারের বিষয়ে আপিল বিভাগের ঐতিহাসিক রায়

ইসরাইলি রাজনীতিবিদের সঙ্গে বৈঠক করায় কয়েক দিন আগেই বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আসলাম চৌধুরীকে গ্রেপ্তার করে সাদা পোশাকের পুলিশ৷ এক ঐতিহাসিক রায়ে বলা হয়েছে, কাউকে গ্রেপ্তারের সময় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে পরিচয়-পত্র দেখাতে হবে৷

ইসরাইলি রাজনীতিবিদের সঙ্গে বৈঠক করায় কয়েক দিন আগেই বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আসলাম চৌধুরীকে গ্রেপ্তার করে সাদা পোশাকের পুলিশ৷ এক ঐতিহাসিক রায়ে বলা হয়েছে, কাউকে গ্রেপ্তারের সময় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে পরিচয়-পত্র দেখাতে হবে৷

ভারতে গিয়ে ইসলাইলের ক্ষমতাসীন লিকুদ পার্টির নেতার সঙ্গে বৈঠক ও সরকার উত্‍খাতের ষড়যন্ত্র করার অভিযোগে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আসলাম চৌধুরীকে গ্রেপ্তার করা হয়৷ পুলিশ তাকে ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে সাতদিনের রিমান্ডে নেয়৷ তখন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলেছিলেন, ‘‘আসলাম চৌধুরী যদি সরকার উত্‍খাতের ষড়যন্ত্র করেন তাহলে তার বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট মামলা দিয়ে রিমান্ডে নেয়া হোক৷ এখানে কেন ৫৪ ধারায় তাকে গ্রেপ্তার দেখাতে হবে?'' পরে অবশ্য পুলিশ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলার অনুমতি নিয়েছে৷

শুধু ৫৪ ধারায় নয়, রাতের অন্ধকারে সাদা পোশাকে গিয়ে কাউকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে আসছে পুলিশ বা ব়্যাল৷ আটক হওয়া ব্যক্তির পরিবার জানছেন না যারা ধরে নিয়ে যাচ্ছে তারা পুলিশের লোক না কোনো সন্ত্রাসী বাহিনীর সদস্য৷ কিছুদিন পর হয় ওই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার দেখানো হচ্ছে বা আর খুঁজেই পাওয়া যাচ্ছে না৷ দীর্ঘদিনই ধরে বাংলাদেশে এই পরিস্থিতি চলছে৷ ক্ষমতাসীন দল বিরোধীদের দমন করতে এই পন্থা বেছে নিয়েছে৷

অডিও শুনুন 02:36

‘এই ঐতিহাসিক রায়ের ফলে জনগনের অধিকার নিশ্চিত হবে’

বাংলাদেশের সর্বোচ্চ আদালত আপিল বিভাগ মঙ্গলবার এক ঐতিহাসিক রায় দিয়েছেন৷ পরোয়ানা ছাড়া গ্রেপ্তার ও রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ সংক্রান্ত ফৌজদারি কার্যবিধির ৫৪ ও ১৬৭ ধারা সংশোধনের নির্দেশনা দিয়ে হাইকোর্ট যে রায় দিয়েছিল, তা বহাল রেখেছে আপিল বিভাগ৷

তবে হাইকোর্টের রায়ের নির্দেশনাগুলোতে কিছু পরিবর্তন আসতে পারে৷ মঙ্গলবার প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বাধীন চার সদস্যের বেঞ্চ এ রায় দেন৷ রায়ে বলা হয়েছে, রাষ্ট্রপক্ষের আপিল খারিজ করা হলো, তবে হাইকোর্টের রায়ের নির্দেশনাগুলোতে কিছু পরিবর্তন আসতে পারে৷ পূর্ণাঙ্গ রায়ে বিষয়গুলো পরিষ্কারভাবে জানা যাবে৷

এই মামলায় বাদিপক্ষ বাংলাদেশ লিগ্যাল এইড অ্যান্ড সার্ভিসেস ট্রাস্ট (ব্লাস্ট)- এর আইনজীবী ছিলেন ব্যারিস্টার সারা হোসেন৷ ডয়চে ভেলেকে তিনি বলেন, ‘‘এই রায়টি ঐতিহাসিক৷ এই রায়ের ফলে জনগণের অধিকার নিশ্চিত হবে৷ পুলিশও তো সংবিধান মেনেই দায়িত্ব পালন করে৷ আমরাও চাই সবাই সংবিধান মেনে দায়িত্ব পালন করুক৷ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নিজেও তো এই রায়কে স্বাগত জানিয়েছেন৷ এই রায়ের ফলে ন্যায়বিচার নিশ্চিত হবে বলে আমি মনে করি৷''

এই মামলায় রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন, অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম ও অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল মুরাদ রেজা৷ রিট আবেদনকারীর পক্ষে ছিলেন সিনিয়র আইনজীবী ড. কামাল হোসেন ও এম আমীর-উল ইসলাম৷ তাঁদের সঙ্গে ছিলেন ব্যারিস্টার সারা হোসেন৷

হাইকোর্টের রায়ে বলা হয়েছিল, ডিটেনশন (আটকাদেশ) দেয়ার জন্য পুলিশ কাউকে ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার করতে পারবে না৷ কাউকে গ্রেপ্তার করার সময় পুলিশ পরিচয়-পত্র দেখাতে বাধ্য থাকবে৷ গ্রেপ্তারের তিন ঘণ্টার মধ্যে গ্রেপ্তার হওয়া ব্যক্তিকে কারণ জানাতে হবে৷ ওই ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদের (রিমান্ড) প্রয়োজন হলে ম্যাজিস্ট্রেটের আদেশক্রমে কারাগারের ভেতরে কাঁচঘেরা বিশেষ কক্ষে জিজ্ঞাসাবাদ করতে হবে৷ কক্ষের বাইরে তাঁর আইনজীবী বা নিকটাত্মীয় থাকতে পারবেন৷ জিজ্ঞাসাবাদের আগে ও পরে ওই ব্যক্তির ডাক্তারি পরীক্ষা করাতে হবে৷

রায়ের প্রতিক্রিয়ায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল সাংবাদিকদের বলেছেন, ফৌজদারি কার্যবিধির ৫৪ ধারা ও ১৬৭ ধারা প্রয়োগের বিষয়ে সর্বোচ্চ আদালতের পূর্ণাঙ্গ রায়ে নীতিমালা প্রকাশের পর সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে৷ তিনি বলেন, ‘‘মহামান্য সুপ্রিম কোর্ট যে রায় দিয়েছেন, সেখানে আমাদের আর বলার কিছু নেই৷ সুপ্রিম কোর্টের রায় অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবো৷ আদালতের নির্দেশনা এলে আমরা দেখব কোথায় আমাদের ঘাটতি হচ্ছে৷ সেটা দেখে আমরা ব্যবস্থা নেব৷''

আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক রায়ের প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন, ‘‘৫৪ ধারার অপব্যবহারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে৷'' তিনি আরো বলেন, ‘‘আইনে কিছু কিছু ইমার্জেন্সি প্রভিশন থাকে৷ ফৌজদারি কার্যবিধিতে যখন ৫৪ ধারা রাখা হয়েছে, তখন সেটা ইমার্জেন্সি প্রভিশন হিসাবেই রাখা হয়েছে৷ এটা ভালো নাকি মন্দ, সেটা ব্যবহারের ওপর নির্ভর করে৷ এখন বাস্তবায়নের দিক থেকে অতিরিক্ত মাত্রায় যদি ব্যবহার করা হয়ে থাকে, সেই জায়গায় যদি কোনো প্রভিশন (নির্দেশনা) হয়ে থাকে, সেটা ন্যায্য৷ কিন্তু সেকশন ৫৪ ধারাকে খারাপ বলা আমার পক্ষে কঠিন৷'' অপব্যবহার হয়েছে কিনা – এ প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘‘অতীতে 'সময়ে সময়ে' হয়ত এটা হয়েছে৷''

প্রসঙ্গত, ১৯৯৮ সালে রাজধানীর সিদ্ধেশ্বরী এলাকা থেকে বেসরকারি ইনডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটির ছাত্র শামীম রেজা রুবেলকে ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার করার পর ওই বছরেরই ২৩ জুলাই মিন্টো রোডে গোয়েন্দা পুলিশ-কার্যালয়ে তার মৃত্যু হয়৷ ওই ঘটনার পর বিচারপতি হাবিবুর রহমান খানের নেতৃত্বে একটি বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করে সরকার৷ তদন্ত শেষে কমিটি ৫৪ ও ১৬৭ ধারা সংশোধনের পক্ষে কয়েকটি সুপারিশ করে৷ সেসব সুপারিশ বাস্তবায়ন না হওয়ায় বাংলাদেশ লিগ্যাল এইড অ্যান্ড সার্ভিসেস ট্রাস্ট (ব্লাস্ট) হাইকোর্টে একটি রিট আবেদন করে৷ মঙ্গলবার সেটার চূড়ান্ত রায় হলো৷


আপনার মতে এই রায়ের ভালো দিক কোনগুলি? লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও