1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

গ্রিস সংকট সম্পর্কে জার্মানির অবস্থান

ইচ্ছা থাকলে উপায় হয় – ডাগমার এঙেল মনে করেন, জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল গ্রিস সংকটের ক্ষেত্রে এর বদলে আরও পুরানো একটি উক্তি ব্যবহার করছেন – ‘ইউরো বিফল হলে ইউরোপও বিফল হয়ে পড়বে'৷

এমন এক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তের সপ্তাহে ইউরোপের সবচেয়ে শক্তিশালী নারী কোথায়? কমপক্ষে গ্রিসের সংবাদপত্রের শিরোনামে তো তাঁকে দেখা যাচ্ছে না৷ তবে তাঁর ঘাড়ে দায় চাপানো বন্ধ করতে পেরেছেন আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷ কয়েক বছর আগেও মাথায় ছুঁচলো হেলমেট বা নাৎসি ইউনিফর্ম সহ তাঁর ব্যাঙ্গচিত্র প্রকাশিত হতো৷ জার্মান চ্যান্সেলর যে সব বার্তা পাঠাচ্ছেন, সেগুলি অত্যন্ত স্পষ্ট – আমরা, জার্মানরা বা আমি জার্মান সরকারের প্রধান হিসেবে ভালমন্দের সিদ্ধান্ত নিচ্ছি না৷ জার্মানি ইউরোপীয় ইউনিয়নের ২৮টি সদস্য দেশ এবং ইউরোজোনের ১৯টি সদস্য দেশের অন্যতম৷ ইউরোপীয় ইউনিয়নে কোনো দেশ একা সিদ্ধান্ত নেয় না, সবাই মিলে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়৷

গুরুত্বপূর্ণ এই সপ্তাহের শুরুতে তিনি তাঁর সিডিইউ দলের ৭০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন করছেন৷ এই উপলক্ষ্যে তাঁর ভাষণে চ্যান্সেলর বলেছেন, ‘‘আপোশ-মীমাংসার ক্ষমতার ভিত্তিতেই ইউরোপ টিকে রয়েছে৷'' সেইসঙ্গে নিয়ম পালন করাও টিকে থাকার আরেকটি কারণ৷ যেমন সংহতি ও নিজস্ব দায়িত্ববোধের মতো নিয়ম৷ নিয়ম ভাঙলে নিজস্ব মূল্যবোধও ভাঙা হয় – এটা ম্যার্কেলের মৌলিক বিশ্বাসের মধ্যে পড়ে

Engel Dagmar Kommentarbild App

ডাগমার এঙেল

আঙ্গেলা ম্যার্কেল যে সতর্কতার সঙ্গে গ্রিস সংকটের সময়ে নেতৃত্বের ভূমিকা পালন করেছেন, তার জন্য তিনি অপ্রত্যাশিতভাবে একজনের বাহবা কুড়িয়েছেন৷ প্রাক্তন চ্যান্সেলর ও সামাজিক গণতন্ত্রী দলের হেলমুট স্মিট গত সপ্তাহে বলেছেন, তিনি তাঁর এই উত্তরসূরির আচরণে যথেষ্ট ‘ইমপ্রেসড'৷

হেলমুট স্মিটের বয়স এখন ৯৭৷ বৃদ্ধ এই মানুষটি তাঁর বিচক্ষণতা ও অভিজ্ঞতার জন্য শ্রদ্ধার পাত্র৷ তবে কিছু বিষয় বদলে গেছে৷ জার্মানির প্রতি প্রত্যাশা আজ আর আগের মতো নেই৷ আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম ঘাঁটলে বার বার এই প্রশ্নটি উঠে আসছে – আঙ্গেলা ম্যার্কেল কোথায়? জার্মান প্রেসিডেন্ট, প্রতিরক্ষামন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী গত প্রায় দেড় বছর ধরে বলে চলেছেন যে, জার্মানিকে আরও দায়িত্ব নিতে হবে৷ এমন আহ্বান মোটেই জনপ্রিয় নয়৷ গোটা বিশ্বে জার্মানির ভূমিকার প্রশ্ন ও তার উত্তরের ক্ষেত্রে আঙ্গেলা ম্যার্কেলকে দেখা যাচ্ছে না৷

গুরুত্বপূর্ণ এই সপ্তাহের শুরুতে আঙ্গেলা ম্যার্কেল আবার এমন একটি বাক্য বলেছেন, যেটি তিনি নিজেই বহুকাল শুনতে চাননি – ইউরো বিফল হলে ইউরোপও বিফল হবে৷ তবে তিনি এটা বলছেন না, কোন পর্যায়ে মুদ্রা হিসেবে ইউরো-কে বিফল বলা যেতে পারে অথবা তার উপর গ্রিসের আদৌ কোনো প্রভাব থাকবে কিনা৷ তবে এই বাক্যের বিশাল গুরুত্ব রয়েছে৷ তাই আর রাখঢাক না করে প্রকাশ্যে আসা উচিত৷ বলা উচিত – এখানে আঙ্গেলা ম্যার্কেল দাঁড়িয়ে রয়েছেন, ইউরোপীয় ইউনিয়নের সবচেয়ে শক্তিশালী অর্থনীতি ও সবচেয়ে জনবহুল দেশের সরকার-প্রধান দাঁড়িয়ে রয়েছেন – ইউরোপ যাতে বিফল না হয়, তা নিশ্চিত করতে তিনি সর্বশক্তি প্রয়োগ করবেন৷ সহযোগীদের সঙ্গে নিয়েই তিনি সেটা করবেন, তবে প্রয়োজনে নেতৃত্বের ভূমিকাও মেনে নেবেন, যদিও সেই ভূমিকা সব সময় জনপ্রিয় হবে না৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়