1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

গ্রিক সংসদে দ্বিতীয় সংস্কার ভোট পাশ হলো

প্রধানমন্ত্রী আলেক্সিস সিপ্রাস আবার জিতলেন, না আরেকবার রেহাই পেলেন, তা বলা শক্ত৷ আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানগুলির সঙ্গে ৮৬ বিলিয়ন ইউরো ঋণ সংক্রান্ত আলাপ-আলোচনা এবার শুরু হতে পারবে৷

পাঁচ মাস ধরে গড়িমসি, এগোই-পিছোই ট্যাকটিক্সের পর ১৩ই জুলাই ব্রাসেলসে শেষমেষ যে আপোশটি গৃহীত হয়, তার একটি মূল শর্ত ছিল, উত্তরোত্তর ঋণের ব্যাপারে আলাপ-আলোচনা শুরু হওয়ার আগে গ্রিসকে দেখাতে হবে, সংস্কারের ক্ষেত্রে এথেন্স আন্তরিক: অর্থাৎ গ্রিক সরকার ও সংসদকে একাধিক সংস্কারমূলক পদক্ষেপ গ্রহণ করে নতুন আস্থা সৃষ্টি করতে হবে৷

তার পর পরই সিপ্রাসের পাশাপাশি যিনি সর্বাধিক মিডিয়ার মনোযোগ আকর্ষণ করছিলেন, বামপন্থি সিরিজা দলেরই সেই ফায়ারব্র্যান্ড রাজনীতিক তথা গ্রিক অর্থমন্ত্রী ইয়ানিস ভারুফাকিসকে বিদায় নিতে হয়৷ কাজেই গত সপ্তাহে তথাকথিত প্রথম সংস্কার প্যাকেজ নিয়ে ভোটে ভারুফাকিসকে সংস্কারবিরোধীদের দলেই দেখা গেছে৷ এবার কিন্তু তিনি সংস্কারের সপক্ষেই ভোট দিয়েছেন৷

শুধু ভারুফাকিস একাই নন, সব আশঙ্কা সত্ত্বেও বুধবার ভোররাতে সিরিজা দলের মোট ৩৬ জন সাংসদ দ্বিতীয় সংস্কার প্যাকেজের বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছেন – এর আগে যে সংখ্যা ছিল ৩৮৷ তবুও, সংসদে সিপ্রাস সরকারের সংখ্যাগরিষ্ঠতা এখন মাত্র পাঁচ আসনের৷ অর্থাৎ সিপ্রাসকে এখনই নতুন নির্বাচনের কথা ভাবতে হচ্ছে না৷ ওদিকে সরকারি মুখপাত্রী ওলগা গেরোভাসিলি মঙ্গলবারেই ঘোষণা করেছিলেন যে, বুধবারের ভোটের পর পরই ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ), ইউরোপীয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক (ইসিবি) ও আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ)-এর সঙ্গে আলাপ-আলোচনা শুরু হবে৷

প্রথম সংস্কার ভোটের পরই গ্রিস ইইউ-এর কাছ থেকে সাত বিলিয়ন ইউরোর কিছু বেশি জরুরি অর্থসংস্থান পায় এবং সোমবার ইসিবি ও আইএমএফ-এর বকেয়া ঋণের কিস্তি পরিশোধ করতে পারে৷ এথেন্স সরকার এবার চান, ২০শে আগস্টের মধ্যে চুক্তি, কেননা সেটা হলো ইসিবি-কে তিন বিলিয়ন ইউরোর কিছু বেশি পরিমাণ ঋণের কিস্তি পরিশোধ করার শেষ তারিখ৷

বুধবার রাতে ভোর চারটে অবধি চলা অধিবেশনে গ্রিক সাংসদরা ২৩০ বনাম ৬৩ ভোটে যে সংস্কার কর্মসূচিটি অনুমোদন করেন, তার উপজীব্য ছিল বিচারবিভাগীয় সংস্কার, সরকারি সম্পত্তির নিলেম এবং জাতীয় ব্যাংকগুলির লিকুইডিটি – অর্থাৎ নগদ পরিস্থিতি – জোরদার করার পন্থা৷ মনে রাখতে হবে, গ্রিসের ব্যাংকগুলি তিন সপ্তাহ ধরে বন্ধ থাকার পর গত সোমাবার প্রথমবার খুলেছে৷ এছাড়া কোনো ‘ব্যাংক রান' না হলেও, গ্রাহকরা গত ডিসেম্বর মাস যাবৎ ৪০ বিলিয়ন ইউরো পরিমাণ জামানত তুলে নিয়েছেন৷ কাজেই ইউরোপীয় কেন্দ্রীয় ব্যাংককে এই বুধবারেই গ্রিক ব্যাংকগুলির নগদ পরিস্থিতি সামাল দেবার জন্য আরো প্রায় এক বিলিয়ন ইউরো দিতে হয় – নয়ত এটিএম থেকে নগদ তোলাই ভার হতো৷

বুধবারের ভোটে সিপ্রাস জিতলেন – অথবা সাময়িকভাবে রেহাই পেলেন৷ কিন্তু ঐ বুধবারেই রাজধানী এথেন্সের কেন্দ্রে যে ন'হাজার বিক্ষোভকারী জমায়েত হয়েছিলেন, তাঁদের কথা ভুললেও চলবে না৷ শুধু অসন্তুষ্ট কমিউনিস্টরাই নন, নিশান হাতে তাঁদের সঙ্গে যোগ দিয়েছিলেন পাবলিক সেক্টরের নানা শ্রমিক সংগঠন৷

এসি/ডিজি (ডিপিএ, এপি, এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়