1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

গ্রাফিটি আসলে তা নয়, যা তুমি ভেবেই চলেছ...

জার্মানির শহর কোলন৷ যে শহরটি গ্রাফিটির সুনাম বা দুর্নাম যাই হোকনা কেন বিশেষভাবে পরিচিত এর জন্য৷ কিন্তু কী এই গ্রাফিটি? আর এ নিয়ে মতবিরোধই বা কী?

default

বাড়ি মালিকদের সংগঠন কেএইচজি গ্রাফিটির বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান নিয়েছে (ফাইল ফটো)

পশ্চিম কোলনের একটি শিল্প এলাকার ঠিক বাইরের এক ডাস্টবিনের সামনে দাঁড়িয়ে ছিলেন হেলমুট৷ হাতে যথারীতি প্লাস্টিকের গ্লাভস৷ বার্গান্ডি দেয়ালে তিনি কালো স্প্রে দিয়ে কিছু একটা লিখে যাচ্ছিলেন৷ অবশ্য এর আগেই তিনি সেখানে বিভিন্ন রং ব্যবহার করে ফুটিয়ে তুলেছেন কয়েকটি শব্দ৷ এখন কেবল কালো রঙের আঁচড়ে সেটার সমাপ্তি টানছেন৷

মাত্র তিনটি শব্দ ব্যবহার করে দেয়ালে যা লিখেছিলেন তা হলো ‘হোয়াট আই অ্যাম'৷ লেখাটি দেখে হঠাৎ মনে হতে পারে এরমধ্য দিয়ে তিনি নিজের অস্তিত্ব খুঁজছেন৷ কিন্তু তিনি কথাটির ব্যাখা দিলেন অন্যভাবে৷ এখানে গ্রাফিটি নিজেই নিজেকে এই প্রশ্ন করছে৷ কিন্তু, বিচিত্র এই গ্রাফিটি আসলে কী?

হেলমুটের মতো অনেকেই আছেন যাঁরা শহরের বিভিন্ন দেয়ালে নানা রকম আঁকিবুঁকি কেটে যান৷ যার মাধ্যমে ফুটিয়ে তোলেন বিভিন্ন বিষয়৷ তবে তাঁরা নিজেদের শিল্পী বলে দাবি করলেও শহর কর্তৃপক্ষ কিন্তু তা মানতে নারাজ৷ তাই তাঁরা যাকে শিল্পকর্ম বলছেন শহর কর্তৃপক্ষ সেটাকেই আবার দেখছে শহরের দেওয়ালকে নোংরা করে ফেলা একটা অপ্রয়োজনীয় কাজ হিসেবে৷

গ্রাফিটি যে বৈধ নয় একথা খুব ভালো করেই জানেন হেলমুটের মতো গ্রাফিটি শিল্পীরা৷ কিন্তু রঙ তুলির মাধ্যমে দেওয়ালের এই ক্যানভাস তাঁদেরকে যে আত্মতৃপ্তি এনে দেয়, তার কাছে এই নিয়মকানুনের বেড়াজাল যেন কিছুই নয়৷ তাঁরা মনে করেন এটা তাঁদের নিজেদের স্বাধীনতার ব্যাপার, স্বাধীনভাবে শিল্পচর্চা করার ব্যাপার৷ অন্যদিকে, কোলন শহরের বাড়ি মালিকদের সংগঠন কেএইচজি গ্রাফিটির বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান নিয়েছে৷ তাঁরা মনে করছেন বাড়ির দেওয়ালে এই ধরণের আকিঁবুঁকি করে নাগরিক স্বাধীনতা নষ্ট করা হচ্ছে৷

প্রতিবেদন: জান্নাতুল ফেরদৌস

সম্পাদনা: সুপ্রিয় বন্দোপাধ্যায়