1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

গ্যামির ঘটনায় নতুন মোড়

ডাউন সিনড্রোমে আক্রান্ত গ্যামিকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম যখন তোলপাড়, তখন শিশুটির বায়োলজিকাল বাবা-মা ও সারোগেট মা এর মধ্যে তথ্যের বিভ্রান্তি দেখা দিয়েছে৷ কার কাছে থাকবে গ্যামি – এটাই এখন প্রশ্ন!

অস্ট্রেলিয়ার সংবাদ মাধ্যমগুলো জানিয়েছে দেশটির পশ্চিমাঞ্চলে গ্যামির বাবা-মা থাকেন৷ ঐ দম্পতিদের নাম প্রকাশ করেছে অস্ট্রেলিয়ার গণমাধ্যম৷ তারা বলছে, শিশুটির বাবার নাম ডেভিড ফার্নেল এবং মায়ের নাম ওয়েনডি ফার্নেল৷ স্থানীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে যে, ডেভিড নাকি শাস্তি পাওয়া শিশু যৌন হয়রানির অপরাধী৷

মঙ্গলবার অস্ট্রেলিয়ার একটি স্থানীয় পত্রিকায় দেয়া সাক্ষাৎকারে ডেভিড ও ওয়েনডি সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘গ্যামি জন্মানোর সময় যে চিকিৎসক সেখানে উপস্থিত ছিলেন তিনি দ্বিতীয় সন্তানের কথা তাঁদের জানাননি৷ তবে যাঁর গর্ভে গ্যামি জন্মেছেন, সেই মা পাত্তারামোন চানবুয়া বলছেন, ‘‘গ্যামি ডাউন সিনড্রোমে আক্রান্ত বলে তার বাবা-মা ছেলেকে ফেলে সুস্থ মেয়েকে নিয়ে অস্ট্রেলিয়া চলে যান৷''

আদালতের নথিপত্র থেকে সাংবাদিকরা জেনেছেন যে, ডেভিড পার্নেল ১০ বছরের কম বয়সি একটি মেয়ে এবং ১৩ বছরের একটি শিশুকে যৌন নির্যাতনের অভিযোগে দু'বার জেল খেটেছেন৷ আদালতে ঐ মামলা দুটি চলার সময় ডেভিড তাঁর অপরাধ স্বীকার করে বলেছিল, সে একজন ভালো মানুষ এবং মানুষ মাত্রই ভুল হতে পারে৷

Screenshot www.gofundme.com

গ্যামির বাবা-মায়ের নাম প্রকাশ করেছে অস্ট্রেলিয়ার গণমাধ্যম

পাত্তারামোনের কাছে সাংবাদিকরা ঘটনার সত্যতা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘আমি ভীষণ মর্মাহত৷ গ্যামির বাবার অস্বাভাবিক আচরণে আমি ভীত এবং যে কোনো অবস্থায় আমার কন্যা সন্তানকে ফেরত চাই৷'' তাঁর আশঙ্কা শিশু কন্যাটিও ঐ ব্যক্তির লালসার শিকার হতে পারে৷ এদিকে, থাই সরকার ঘটনাটি তদন্ত করে দেখার নির্দেশ দিয়েছে৷

অস্ট্রেলিয়ার ফার্নেল দম্পতি থাইল্যান্ডের নারী পাত্তারামোনের গর্ভ ভাড়া নিয়েছিলেন৷ ‘সারোগেট এজেন্সির' মাধ্যমে ১৪, ৯০০ মার্কিন ডলারের বিনিময়ে ঐ গর্ভ ভাড়া নিয়েছিলেন তাঁরা৷ গর্ভধারণের পর পরীক্ষা করে বাবা-মা জানতে পেরেছিলেন যে, গর্ভে জমজ সন্তান বেড়ে উঠছে এবং দুই বাচ্চার একটির ‘ডাউন সিনড্রম' রয়েছে৷ যে দম্পতির সন্তান তিনি গর্ভে ধারন করেছেন, তাঁদের কখনো দেখেননি পাত্তারামোন৷

‘ডাউন সিনড্রম' হলে শিশুদের মস্তিষ্কের বৃদ্ধি ঠিকভাবে হয় না৷ ফলে তারা বড় হলেও তাদের বুদ্ধির বৃদ্ধি হয় শিশুদের সমপরিমাণ৷ এছাড়া আরো অনেক শারীরিক সমস্যা থাকে৷

গত বছরের ডিসেম্বরে জমজ সন্তানের জন্ম দেন পাত্তারামোন৷ এরপর শিশুদের ‘বায়োলজিকাল' বাবা-মা থাইল্যান্ডে গিয়ে গ্যামিকে ফেলে সুস্থ মেয়ে শিশুটিকে নিয়ে দেশে ফিরে যান৷ থাইল্যান্ডে পাত্তারামোনের কাছে থেকে যায় গ্যামি৷ তার চিকিৎসার জন্য অনেক টাকা প্রয়োজন৷ তাই তার চিকিৎসার জন্য সাহায্যের আবেদন জানানো হয় ইন্টারনেটে৷ ‘হোপ ফর গ্যামি' ক্যাম্পেইনের আওতায় দুই লাখ ৩৪ হাজার মার্কিন ডলারের বেশি অর্থ সংগ্রহ হয়ে গেছে ইতিমধ্যেই৷ বায়োলজিকাল বাবা-মা দায়িত্ব না নিলেও গোটা বিশ্বের অসংখ্য মানুষ এখন গ্যামির পাশে রয়েছেন৷

বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে গ্যামি৷ পাত্তারামোন চানবুয়া জানিয়েছেন গ্যামিকে নিজের সন্তানের মতোই বড় করবেন তিনি৷

এপিবি/ডিজি (এএফপি, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়