1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

পাঠক ভাবনা

‘গুলি করে মারলেও দেশে ফিরে যাবো না'

‘আমাদের গুলি করে মারো, আমরা কখনো বাংলাদেশে ফিরে যাব না৷' সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়ার ওপারে দাঁড়িয়ে জার্মানিতে আসতে চাওয়া বাংলাদেশি এক তরুণের এই প্রতিবাদে আমাদের ফেসবুকে পাঠকরা কী লিখেছেন, পড়ুন৷

গ্রিক-ম্যাসিডোনীয় সীমান্তে শত শত উদ্বাস্তু আটকা পড়েছেন৷ ম্যাসিডোনিয়া শুধুমাত্র সিরিয়া, ইরাক ও আফগানিস্তান থেকে আসা উদ্বাস্তুদের ভেতরে ঢুকতে দিচ্ছে, অন্য দেশ থেকে আসা উদ্বাস্তুদের নয়৷ উদ্বাস্তুদের বিশাল লাইনে দাঁড়িয়ে বাংলাদেশের তরুণটি প্রচণ্ড শীতে তার গায়ের জামা খুলে তাতে লাল কলমে লিখেছে, তাকে গুলি করে মারলেও সে নিজের দেশে ফিরবেনা৷

ডয়চে ভেলের ফেসবুকে এই ছবিটি দেখে আমাদের পাঠক শহীদুল ইসলাম এর কারণ হিসেবে বাংলাদেশের বর্তমান পরিস্থিতিকেই দায়ী করছেন৷ তিনি লিখেছেন, ‘‘দেশের এই পরিস্থিতিতে আমরাও দেশ ছাড়তে চাই৷ এখানে আর বসবাসের কোনো পরিবেশ নাই৷''

‘‘যতই আমরা দেশ প্রেম দেখাই না কেন, ভেতরে ভেতরে সবাই বিদেশপ্রেমী৷ আর যারা দেশের কথা বলে ওরা আরো বেশি৷'' এই মন্তব্যটি করেছেন বন্ধু রনি গুপ্ত৷

তবে আফরোজা বুঝতে পারছেন না যে তরুণরা কেন এমন করে৷ আফরোজার কথা, যদিও তরুণরা জানে ভালো চাকরি পাবে না, এই হাল হবে তাহলে তাদের এভাবে বিদেশে যাওয়ার কী দরকার৷ আফরোজার প্রশ্ন, ‘‘দেশে কি এই তরুণটির কিছুই করার ছিলোনা ?''

তরুণটির এই ছবিটি আমাদের ফেসবুকে দেখে রাগ হয়ে আহমেদ কিরণ লিখেছেন, ওদের দেশে যাওয়ার দরকারও নেই...৷

বাঙালির নাকি এককথা আর দুই দাবি এমনটাই লিখেছেন আমাদের ফেসবুকে কৃষ্ণ শর্মা৷ তাঁর ভাষায়, ‘‘বাঙালির এক কথা, দুই দাবি৷ দেশে যাবো না, কর্ম দিবি৷''

‘আমাকে গুলি করলেও দেশে ফিরবো না' সীমান্তে দাঁড়িয়ে বাংলাদেশি এক তরুণের একথা বলার কারণ হিসেবে বিমলাও বাংলাদেশের অস্থির পরিস্থিতিকেই দায়ী করেছেন৷ এই কথাটিই বিমলা কাব্য করে লিখেছেন, ‘‘বাংলার ধন, বুকে লেখা লাল রং, যদিও দেশ থেকে পৃথক হয় অশান্তির কারণ৷'

বাংলাদেশে আওয়ামী লীগের রাজত্ব নাকি তাদের জন্য নিরাপদ নয়, তাই তরুণরা বিদেশে চলে যায়, একথাই বলছেন ডয়চে ভেলের ফেসবুক বন্ধু মির্জা হোসেন৷

সেলিম রেজাও পাঠক মির্জা এবং বিমলার সাথে একমত৷ এ বিষয়ে সেলিম মাঝির মন্তব্য, ‘‘রাজনৈতিক অস্থিরতা, জীবনের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ একটি দেশ এর নাগরিক, আর কী বলতে পারে? আমরা সত্যি লজ্জিত.. সভ্যতার কাছে...৷''

‘‘দেশে যা চলতেছে ... ভাই, তোরা আসিস না..৷'' সীমান্তে দাঁড়িয়ে থাকা যে তরুণটি বিদেশে থাকতে চায়, কোনোভাবেই সে দেশে ফিরতে চায়না , তাকে লক্ষ্য করে এই মন্তব্যটি করেছেন নাজমুল রাব্বী৷

সংকলন: নুরুননাহার সাত্তার

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

নির্বাচিত প্রতিবেদন