1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

গুলশান হামলার ঘটনায় ব্রিটিশ নাগরিক গ্রেপ্তার

বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার গুলশানে একটি রেস্তোরাঁয় হামলায় জড়িত সন্দেহে এক ব্রিটিশ নাগরিক এবং ক্যানাডার একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷ ঢাকা পুলিশ বৃহস্পতিবার জানিয়েছে এই তথ্য৷

গত পহেলা জুলাই গুলশানে এক স্প্যানিশ রেস্তোরাঁয় জঙ্গি হামলায় কমপক্ষে বিশ ব্যক্তি নিহত হন, যাঁদের মধ্যে সতেরজন ছিলেন বিদেশি নাগরিক৷ আন্তর্জাতিক জঙ্গি গোষ্ঠী ‘ইসলামিক স্টেট' সেই হামলার দায় স্বীকার করলেও বাংলাদেশ সরকার দাবি করেছে স্থানীয় জঙ্গি গোষ্ঠী হামলাটি পরিচালনা করেছিল৷

বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় এই জঙ্গি হামলার সময় হামলাকারীরা কয়েকজনকে জিম্মি করলেও পরবর্তীতে তাঁদের ছেড়ে দেয়৷ তবে ছেড়ে দেয়াদের মধ্যে দু'জনকে সেসময় পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করলেও পরবর্তীতে ছেড়ে দেয়া হয়েছে বলে দাবি করা হয়৷ কিন্তু তাসত্ত্বেও তাঁদের পরিবার তাঁদের কোনো খোঁজ পাচ্ছিল না৷ গণমাধ্যমের পক্ষ থেকেও তাঁদের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি৷ ফলে পুরো বিষয়টি নিয়ে ধোঁয়াশা সৃষ্টি হয়৷

ঢাকা পুলিশ বৃহস্পতিবার জানিয়েছে, বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক হাসনাত করিম এবং টরেন্টো বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী তাহমিদ খানকে বুধবার রাতে আটক করা হয়েছে৷ পুলিশের মুখপাত্র একেএম শহিদুর রহমান এই বিষয়ে বলেন, ‘‘আমরা নিশ্চিত করছি যে ৫৪ ধারায় তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷'' আইনের এই ধারায় অপরাধের সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকার সন্দেহে পুলিশ যে কাউকে আটক করতে পারে৷

এদিকে, বাংলাদেশে ডয়চে ভেলের পার্টনার বাংলাট্রিবিউন জানিয়েছে, ‘‘হলি আর্টিজানে হামলার পর একজন কোরিয়ান নাগরিকের গোপনে ধারণ করা ভিডিও প্রকাশিত হওয়ার পর হাসনাত করিম ও তাহমিদের ভূমিকা নিয়ে নানা প্রশ্ন ওঠে৷ হলি আর্টিজানের জিম্মি ঘটনায় তাকে (করিম) জঙ্গিদের কয়েকজনের সঙ্গে স্বাভাবিক ভঙ্গিতে হাঁটতে ও কথা বলতে দেখা গেছে৷''

উল্লেখ্য, চলতি সপ্তাহের শুরুতে পুলিশ ক্যানাডার নাগরিক তামিম চৌধুরীকে গুলশান হামলার ‘মূল পরিকল্পনাকারী' হিসেবে চিহ্নিত করে তাঁকে গ্রেপ্তারে কেউ কোনো তথ্য দিতে পারলে পঁচিশ হাজার মার্কিন ডলার পুরস্কার ঘোষণা করেছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়