1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

গুলজারের বিয়ের স্বপ্ন কি স্বপ্নই থেকে যাবে?

পাকিস্তানের উত্তর ওয়াজিরিস্তানে জঙ্গি দমন অভিযানে অনেকটাই সাফল্য পেয়েছে সেনাবাহিনী৷ কিন্তু এর ফলে এক বৃদ্ধের স্বপ্ন চুরচুর হয়ে গেছে৷ কী ছিল তাঁর স্বপ্ন? ৩৬ সন্তানের জনক ঐ বৃদ্ধের স্বপ্ন চতুর্থ বিয়ের৷

তালেবান ও অন্যান্য জঙ্গি ঘাঁটি উচ্ছেদে সেনাবাহিনীর অভিযানের কারণে উত্তর ওয়াজিরিস্তানের লাখো মানুষ ঘর ছাড়া৷ গুলজার খান তাদেরই একজন৷ শাওয়া গ্রামে নিজের বিশাল বাড়ি, যেখানে ৩৫টি ঘর ছিল৷ সে সব ছেড়ে আজ বানুতে ছোট্ট একটি জায়গায় পরিবারের শতাধিক সদস্য নিয়ে থাকছেন তিনি৷ ৫৪ বছর বয়সি গুলজারের ৩৬ সন্তান এবং অর্ধশতাধিক নাতি-নাতনি৷ পরিবার আরো বাড়ানোর স্বপ্ন দেখেন তিনি৷ তাই চতুর্থ বিয়ের স্বপ্ন ছিল তাঁর৷ এ জন্য বেশ কিছু অর্থও জমিয়েছিলেন৷ কিন্তু সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান সেই স্বপ্নে বাধা হয়ে দাঁড়ায়৷

সংবাদ সংস্থা এএফপিকে গুলজার বলেন, ‘‘বানুতে এই বিশাল পরিবার নিয়ে থাকতে আমার অনেক খরচ হচ্ছে৷ ফলে আমার জমানো অর্থে হাত দিতে হয়েছে৷ তবে আবারো আমি অর্থ জমাবো এবং স্বপ্ন পূরণ করবোই৷''

ইসলামি আইন অনুযায়ী একজন পুরুষ চারটি বিয়ে করতে পারেন৷ আর রক্ষণশীল উত্তর ওয়াজিরিস্তানে বড় পরিবার মানেই মর্যাদাও অনেক৷ গুলজারের প্রত্যেক স্ত্রীর ১২টির বেশি সন্তান রয়েছে এবং তারা আর সন্তান জন্ম দিতে নারাজ৷ গুলজার এএফপিকে জানান, তিনি আরো সন্তান চান, তাই চতুর্থ বিয়ে করা ছাড়া আর কোনো উপায় নেই৷

Schuhputzer Abdul Wali

য়াজিরিস্তানের লাখো মানুষ ঘর ছাড়া, গুলজার খান তাদের একজন

গুলজারের প্রথম বিয়ে হয় ১৭ বছর বয়সে৷ প্রথম স্ত্রীর গর্ভে আট মেয়ে এবং চার ছেলের জন্ম হয়৷ ২৫ বছর বয়সে দ্বিতীয় বিয়ে করেন তিনি৷ গুলজার বলেন, ‘‘আমি এক নারীতে সন্তুষ্ট ছিলাম না, কারণ সে আমাকে সহবাসে তৃপ্ত করতে পারত না৷ তাই দ্বিতীয় বিয়ে করতে বাধ্য হই আমি৷ আমি কোনো পাপ করতে চাই না৷ তাই বৈধ উপায়েই আমি আকাঙ্ক্ষা মেটানোর জন্য বিয়ে করেছি৷''

গুলজার খান পেশায় একজন ট্যাক্সি ড্রাইভার৷ ১৯৭৬ সাল থেকে ১৯৯২ সাল পর্যন্ত তিনি দুবাইতে ট্যাক্সি চালিয়েছেন৷ তাঁর তৃতীয় স্ত্রী নিজের ভাবি৷ গুলজারের বড় ভাই দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত হওয়ার পর তাঁর বিধবা স্ত্রীকে বিয়ে করেন তিনি৷ গুলজারের দুই ছেলে এখন দুবাইতে ট্যাক্সি চালায় এবং প্রতি মাসে ৫০ হাজার পাকিস্তানি টাকা পাঠায়৷ সেই অর্থ দিয়েই এখন সংসার চালান তিনি৷

সাংবাদিক প্রশ্ন করেছিলেন এত বড় পরিবার নিয়ে কোন সমস্যা হয় না? জবাবে তিনি বলেন, এত বড় পরিবার হওয়ায় কোনো না কোনো সন্তান বা নাতি-পুতি তার ঘরে ঘুমায়৷ ফলে স্ত্রীদের সাথে একান্ত সময় কাটাতে পারেন না৷ আর কোন স্ত্রীর সন্তান যে কে, সেটা প্রায়ই ভুলে যান তিনি!

এপিবি/এসবি (এএফপি, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন