1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

গুরুর দেহ ডিপ ফ্রিজে, অপেক্ষায় ভক্তরা

ভারতের পাঞ্জাব রাজ্যে ভক্তরা তাঁদের গুরুর মৃতদেহ ডিপ ফ্রিজে রেখে দিয়েছেন৷ তাঁদের আশা, সমাধি বা ধ্যান শেষ হবার পর তিনি নাকি আবারো জেগে উঠবেন৷ আদালত ও পুলিশও তাঁদের ধর্মীয় বিশ্বাসে হস্তক্ষেপ করতে নারাজ৷

অলৌকিক ঘটনা কাহিনিতে পাওয়া যায়৷ কিন্তু বাস্তবেও কি তা ঘটে? একদল মানুষ তারই আশায় রয়েছেন৷ গুরু ‘দেহ রেখেছেন', মানে মারা গেছেন৷ জীবদ্দশায় ধ্যান, তপস্যার অনেক কথা বলেছেন৷ তাই শিষ্যদের ধারণা, তিনি আসলে গভীর ধ্যানে তলিয়ে গেছেন৷ একদিন আবারো জেগে উঠবেন৷ ততদিনে তাঁর পার্থিব শরীরের যাতে কোনো ক্ষতি না হয়, তার জন্য মরদেহ আশ্রমের ‘ডিপ ফ্রিজার'-এ রেখে দেওয়া হয়েছে৷

ভারতের চণ্ডীগড় শহরের কাছে নূরমহলে আশুতোষ মহারাজ হার্ট অ্যাটাকে মারা গেছেন গত ২৯শে জানুয়ারি৷ বয়স হয়েছিল সত্তরের বেশি৷ তাঁর ‘দিব্যজ্যোতি জাগৃতি সংস্থান' গোটা বিশ্বে ছড়িয়ে রয়েছে৷ ১৯৮৩ সালে মিশনের যাত্রা শুরু হয়েছিল৷

Indien Goldener Tempel Amritsar Sikhismus Sikhs

রায়ে বলা হয়েছে, আশুতোষ মহারাজের সত্যি মৃত্যু হয়েছে৷ তবে তাঁর দেহ নিয়ে কী করা হবে, ভক্তরাই তার সিদ্ধান্ত নেবেন

মিশনের মুখপাত্র স্বামী বিশলানন্দ বলেন, মহারাজজির আসলে সমাধি হয়েছে৷ ধ্যানের সবচেয়ে উচ্চ মার্গে রয়েছেন তিনি৷ ধ্যান শেষ হলেই আবার জেগে উঠবেন৷ শিষ্যরা তারই অপেক্ষায় রয়েছেন৷ সংগঠনের ওয়েবসাইটে তাঁদের প্রতি এ জন্য ধন্যবাদ জানানো হয়েছে৷ বিশলানন্দ আরও বলেন, অতীতেও অনেক সাধু-সন্নাসী হিমালয়ে গিয়ে মাসের পর মাস ধরে সমাধিতে চলে যেতেন৷

গুরুর দেহ এমন করে ফ্রিজে রেখে দেওয়ার বিষয়টি অবশ্য সব ভক্তের পছন্দ হচ্ছে না৷ এক ব্যক্তি নিজেকে তাঁর প্রাক্তন ড্রাইভার হিসেবে দাবি করে এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন৷ তাঁর মতে, গুরুজির দেহ আটকে রাখার পেছনে রয়েছে আশ্রমের বিশাল সম্পত্তি৷ অনেকেই তার অংশ পেতে আগ্রহী৷ আদালত অবশ্য এই আবেদন অস্বীকার করেছে৷ রায়ে বলা হয়েছে, আশুতোষ মহারাজের সত্যি মৃত্যু হয়েছে৷ তবে তাঁর দেহ নিয়ে কী করা হবে, ভক্তরাই তার সিদ্ধান্ত নেবেন৷ আদালতের রায়ের পর স্থানীয় পুলিশও হস্তক্ষেপ করতে নারাজ৷

এসবি/ডিজি (এএফপি, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন