1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

গুটেনব্যার্গের পর ম্যার্কেল আর কোনো ঝুঁকি নিলেন না

পূর্বপরিচিত এবং আস্থাভাজন সহযোগী থমাস ডেমেইজিয়ারকে নতুন প্রতিরক্ষামন্ত্রী করলেন৷ ডেমেইজিয়ারের খালি করা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পদে আনা হল সিএসইউ দলের হান্স-পেটার ফ্রিডরিশ’কে৷

default

থমাস ডেমেইজিয়ার (ফাইল ফটো)

ম্যার্কেল যে গুটেনব্যার্গের পদত্যাগের একদিনের মধ্যেই তার উত্তরসূরি ঘোষণা করে বসলেন৷ ম্যার্কেল যে গোড়ায় যে কোনো মূল্যে গুটেনব্যার্গকে রাখার চেষ্টা করেছিলেন, এখন যেন সেটাই শুধরে নেবার চেষ্টা করেছেন৷ থমাস ডেমেইজিয়ারের সুনাম বিরোধীদের মধ্যেও৷ তিনি অতি ঠাণ্ডা মেজাজের, নির্ভরযোগ্য মানুষ৷ প্রাক্তন পূর্ব জার্মানির মানুষ হিসেবেও ম্যার্কেল চেনেন তাঁকে৷ কাজেই এই মুহূর্তে, যখন গুটেনব্যার্গ কেলেঙ্কারির ঢেউ'য়ে গোটা জার্মান সমাজ দ্বিধাবিভক্ত, টালমাটাল, তখন ডেমেইজিয়ারকে এনে রাজনৈতিক বিচারে অতি সুচতুর কাজ করেছেন ম্যার্কেল৷

ডেমেইজিয়ার এককালে চ্যান্সেলরের দপ্তরের প্রধান ছিলেন৷ এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী থাকাকালীন তিনি আফগানিস্তানে গেছেন পুলিশ প্রশিক্ষণ পরিদর্শন করতে৷ কাজেই জার্মান সৈন্যরাও তাঁকে ভালোভাবেই চেনে - যার আরো একটা কারণ হল, ডেমেইজিয়ারের বাবা ছিলেন জার্মান সেনাবাহিনীর এক সাবেক চিফ অফ স্টাফ৷

কিন্তু এবার প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিসেবে তাঁর প্রথম কাজ হবে, জার্মান সেনাবাহিনীর সংস্কারের কাজটা শেষ করা, গুটেনব্যার্গ যা সবে শুরু করেছিলেন৷ তার মধ্যে সর্বাগ্রে পড়বে, জার্মানির অভ্যন্তরে, বিশেষ করে বাভারিয়ায়, জার্মান সেনাবাহিনীর একাধিক ঘাঁটি তুলে দেওয়া৷ শোনা যাচ্ছে, সেই জন্যেই নাকি বাভারিয়ার সিএসইউ দল তাদের প্রাপ্য প্রতিরক্ষামন্ত্রীর পদটা ছাড়তে বিশেষ আপত্তি করেনি৷ কেননা এবার ছাউনি বন্ধ করার জন্য গালমন্দ যা খাবার, তা সিডিইউ দলই খাবে৷

Deutschland Parteien CSU Hans-Peter Friedrich wird neuer Innenminister

হান্স-পেটার ফ্রিডরিশ (ফাইল ফটো)

নাকের বদলে নরুণ পাওয়ার মতো! তায় সিএসইউ সদ্য তাদের ‘স্টার'-কে হারিয়েছে৷ এখন তাদের একজন উঠতি তারকা দরকার, বিশেষ করে বার্লিনে৷ সিএসইউ দলের সংসদীয় গোষ্ঠীর প্রধান হান্স-পেটার ফ্রিডরিশের বয়স গুটেনব্যার্গের মতো চল্লিশের নীচে না হতে পারে, কিন্তু তাঁর বয়সও সবে ৫৩৷ তিনিও সিএসইউ সভাপতি হর্স্ট সেহোফারের সঙ্গে প্রয়োজনে লড়ে যেতে দ্বিধা করেন না৷ সবচেয়ে বড় কথা, তিনি একজন আইনজ্ঞ, ম্যার্কেল স্বয়ং ইতিপূর্বে ফ্রিডরিশের কাছ থেকে পরামর্শ নিয়েছেন৷

সব মিলিয়ে ম্যার্কেল আবার দেখালেন যে, গুটেনব্যার্গ কি অন্য তারকাদের উত্থান-পতনে শুধু একজনের কিছু আসে যায় না: তিনি হলেন আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷

প্রতিবেদন. অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সম্পাদনা: জাহিদুল হক

নির্বাচিত প্রতিবেদন