1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

গুগল সম্পর্কে ইইউ সাংসদের ধারণা ভুল

অনলাইনে প্রতিযোগিতা বাড়াতে গুগল ভেঙে দেয়ার যে প্রস্তাব দিয়েছে, ইউরোপীয় পার্লামেন্ট সেটা একটা ভুল পদক্ষেপ বলে মনে করেন ডয়চে ভেলের ইয়র্গ ব্রুন্সমান৷ ইন্টারনেট জায়ান্টকে ছোট করার মানেই প্রতিযোগিতা বড় করা নয়৷

যাঁরা একটি নতুন সার্চ ইঞ্জিন চালু করতে চান, কিংবা ম্যাপিং, ভিডিও সার্ভিস দেয়ার মতো সেবা শুরু করতে চান, তাঁরা সেটা না করে বিনিয়োগের জন্য জমিয়ে রাখা অর্থটা জানালা দিয়ে ছুঁড়ে ফেলতে পারেন – কারণ গুগলের আধিপত্যের কাছে তাঁরা টিকতে পারবেন না৷ ইউরোপীয় পার্লামেন্টের সাংসদরা যে এমনটা মনে করেন, সেক্ষেত্রে তাঁরা ঠিকই ভাবেন৷

কিন্তু তার মানে এই নয় যে আপনি এর জন্য গুগলকে দায়ী করবেন এবং সেটা ভেঙে ফেলার কথা বলবেন৷ অন্য প্রতিযোগীদের পেছনে ফেলতে গুগল কোনো অবৈধ উপায় অনুসরণ করেনি, বরং নিজেদের উদ্ভাবন দিয়েই তারা শীর্ষে উঠেছে৷

এটা ঠিক, এই ইন্টারনেট জায়ান্ট একেবারে নিষ্পাপ মেষশাবক নয়৷ এবং সম্ভবত গুগলের পুরনো মূলমন্ত্র ‘শয়তান হয়ো না' এখন আর প্রযোজ্য নয়৷ কোম্পানিটি সবসময় তার সুযোগের সর্বোচ্চ সদ্ব্যবহার করেছে৷ দিনে দিনে তারা পিসি, স্মার্টফোন ব্যবসায় গিয়েছে৷ এমনকি গুগল গ্লাসের মতো পণ্য বানিয়ে তারা ভবিষ্যতের ধারা সৃষ্টি করতে চায়৷ স্পষ্ট করে বললে এটা বলা যায় যে, গুগল সবসময় ব্যবহারকারীদের আগ্রহের প্রতি নজর দিয়েছে৷ অন্য প্রতিযোগী কোম্পানিগুলো যেটা পারেনি৷ এ কারণেই ইউরোপের অনেক দেশের বাজারের ৯০ শতাংশ তাদের নিয়ন্ত্রণে৷

অন্যের জন্য ঈর্ষার

নিজেদের কাছে থাকা তথ্যকে কাজে লাগিয়ে গুগল এখন অনেক অর্থ আয় করছে৷ অন্য প্রতিযোগীরা সেটা না পেরে এখন রাজনীতিবিদদের শরণাপন্ন হয়েছে৷ শুরুতে গুগল ছিল শিক্ষার্থীদের একটা কোম্পানি যারা ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের সাহায্য করতে চেয়েছিল৷

গুগল সবসময় ঠিক সময়ে ঠিক জায়গায় ঠিক পরিকল্পনা নিয়ে এগিয়েছে৷ সে কারণে কোম্পানিটি এখন সামনে এগিয়ে যাচ্ছে৷ সেইসঙ্গে ব্যবহারকারী হিসেবে আমিও৷ আমি যখন সার্চ ইঞ্জিনে কোনো রাস্তার নাম টাইপ করি তখন আমি ঐ রাস্তার আশেপাশের পরিবেশ সম্পর্কেও একটা ধারণা পেতে চাই৷ একটিমাত্র ক্লিক করে গুগলের মাধ্যমে কোনো স্থানের মানচিত্র সহ উপগ্রহ থেকে পাঠানো সেই এলাকার ছবি পেয়ে থাকি, তাহলে কি আমি সন্তুষ্ট থাকব, নাকি গুগলের আধিপত্য নিয়ে দুঃখ প্রকাশ করব?

ব্যবহারকারীরা কি অজ্ঞ?

ইউরোপীয় পার্লামেন্টের সাংসদরা যে বলছেন সার্চ ইঞ্জিনের বাজারে গুগল আধিপত্য বিস্তার করে আছে সেটা সত্যি৷ কিন্তু এই তথ্য থেকে তাঁদের যে উপলব্ধি সেটা ভুল৷ সাংসদরা এমন আচরণ করলেন যেন তাঁরা কোনোদিন ইয়াহু, বিং কিংবা ডাক ডাক গো-র কথা শোনেননি৷ তাঁরা কি আসলেই এটা মনে করেন যে, আমরা ব্যবহারকারীরা অন্য সার্চ ইঞ্জিন সম্পর্কে জানি না কিংবা আলাদা সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহারের যোগ্য নই?

আমি অন্য সার্চ ইঞ্জিন ও তাদের সেবা সম্পর্কে জ্ঞাত এবং সে কারণেই আমি বলতে পারি গুগল আমাকে যে সেবা দেয়া অন্যরা সেটা পারে না৷ সে কারণেই আমি ক্যালিফোর্নিয়ার মাউন্টেন ভিউ-এ অবস্থিত এই কোম্পানিটির একজন সমর্থক৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়