1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

গাড়ি চালকের ঘুম ঠেকাতে স্বয়ংক্রিয় যন্ত্র

নগরীর যানজটের মধ্যে নিশ্চিন্তে আরাম করে মোটামুটি একই গতিতে গাড়ি চালানোর কোন সুযোগ হয় না কখনো৷ ফলে হয়তো ঘুম আসে না৷ কিন্তু যখন দূরের পথ৷ সোজা মহাসড়ক৷ বেশ ফাঁকা রাস্তা৷ এমন সময়ই ঘুম এসে ভিড় করে গাড়ি চালকের চোখের পাতায়৷

গাড়ি, চালক, চোখ, ঘুম, Asleep, Machine, camera, lens, car

সোজা মহাসড়ক৷ বেশ ফাঁকা রাস্তা৷ এমন সময়ই ঘুম এসে ভিড় করে গাড়ি চালকের চোখের পাতায়৷

তবে বিজ্ঞানীরা এবার এমন ব্যবস্থা করতে যাচ্ছেন যে, চালকের চোখের পাতা মুদে আসলে সাথে সাথেই জোরেশোরে সংকেত দিয়ে উঠবে গাড়িতে থাকা যন্ত্র৷ জার্মানির ফ্রাউনহফার ইন্সটিটিউটের ডিজিটাল মিডিয়া প্রযুক্তি শাখার গবেষকরা জানালেন এমন খবর৷ মানুষের চোখের পাতার নড়াচড়ার প্রতি তীক্ষ্ণ দৃষ্টি রাখবে এমন একটি যন্ত্র তাঁরা উদ্ভাবন করেছেন৷ ফলে গাড়ি চালকের চোখের পাতা ঘুমে আচ্ছন্ন হতে গেলেই এটি সতর্ক সংকেত বেজে উঠবে৷

এই যন্ত্রটি উদ্ভাবনের পরই নিয়ে আসা হয়েছে স্টুটগার্টের এক মেলায়৷ চোখের সাথে সংশ্লিষ্ট যন্ত্রপাতি প্রদর্শন করা হচ্ছে সেই মেলায়৷ তবে ঠিক এখনই গাড়ির চালকরা ব্যবহার করতে পারছেন না দুর্ঘটনা রোধে সহায়ক এই যন্ত্র৷ বরং প্রতীক্ষা করতে হবে আরো তিন মাস৷ আপাতত পরীক্ষামূলকভাবে একটি গাড়িতে চালু করে এর কর্মদক্ষতা যাচাই করবেন গবেষকরা৷ পরীক্ষামূলক ব্যবহার সফল হলে আগামী বছরের শুরুতেই গাড়ি নির্মাতাদের কাছে এটি বিক্রির জন্য বাজারে নামানো হতে পারে, এমন প্রত্যাশা ব্যক্ত করলেন ইন্সটিটিউটের মুখপাত্র পেটার হুজার৷

তিনি বলেন, এতদিন পর্যন্ত এমন কাজের জন্য যেসব যন্ত্র ব্যবহার করা হতো তার দশ ভাগের একভাগ খরচ হবে এই নতুন আইট্র্যাকারে৷ এছাড়া এটি যেকোন মডেলের গাড়িতেই স্থাপন করা যাবে৷ শুধু তাই নয়, আগের প্রচলিত ব্যবস্থায় প্রত্যেক চালকের জন্য আলাদাভাবে অনেক সময় ব্যয় করে প্রস্তুতি নিতে হতো নির্দিষ্ট ক্যামেরা সদৃশ যন্ত্র সঠিকভাবে স্থাপন ও চালু করতে৷ কিন্তু এটির জন্য চালকভেদে ভিন্ন ভিন্ন আঙ্গিকে স্থাপনের প্রয়োজন পড়ছে না৷ প্রয়োজন হচ্ছে না কোন ল্যাপটপ কিংবা কম্পিউটারের৷ তিনি জানান, চালকের সহায়ক ব্যবস্থা হিসেবে এতে থাকছে চার থেকে ছয়টি ক্যামেরা যেগুলো চালকের চোখের পাতার অবস্থান এবং দৃষ্টি রেখার উপর নজর রাখবে৷ এমনকি চালক ডান কিংবা বাম দিকে দৃষ্টিপাত করলেও এটি সমানভাবে কাজ করতে পারে৷

যন্ত্রটি সেকেন্ডে ২০০টি পর্যন্ত ছবি ধারণ এবং বিশ্লেষণ করে এমন কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারে৷ তবে এতোটা ভালোভাবে কাজ করলেও যন্ত্রটির আকার কিন্তু বড় নয়৷ এটির আকার একটি দেয়াশলাই এর বাক্সের অর্ধেক৷ গবেষকরা আরো জানালেন, এটি যে শুধু গাড়ি চালকের কাজে লাগবে তা নয়, বরং চিকিৎসা বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে চোখে অস্ত্রোপচারের সময়ও এটি ব্যবহার করা যাবে, চোখের পাতার প্রতিটি নড়াচড়ার দিকে নজর রাখার জন্য৷ এমনকি বিভিন্ন পণ্যের বিজ্ঞাপনের ঠিক কোন অংশের দিকে একজন ভোক্তা বেশি সময় ধরে দৃষ্টি ফেলছে সেটিও নির্ণয় করা সম্ভব হবে এই যন্ত্র দিয়ে৷ ফলে ভোক্তার দৃষ্টি বিবেচনা করে বিজ্ঞাপনের মান এবং পণ্যের চাহিদার বিষয়গুলো পরিষ্কারভাবে নির্ণয় করা সম্ভব হবে বলে মনে করছেন গবেষকরা৷

প্রতিবেদন: হোসাইন আব্দুল হাই

সম্পাদনা: রিয়াজুল ইসলাম

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়