1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

গাদ্দাফির প্রেসিডেন্ট প্রাসাদ এলাকাতেই ন্যাটোর বিমান হামলা

লিবিয়ার শাসক গাদ্দাফির প্রেসিডেন্টের বসবাসের এলাকাতেই বিমান হামলা চালালো ন্যাটো৷ ত্রিপোলির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন সেই হামলার ছবি প্রচার করে বলেছে, আক্রমণের লক্ষ্য ছিলেন গাদ্দাফি স্বয়ং৷ ব্যাপক লড়াই অব্যাহত মিসরাটাতেও৷

default

কখন কীভাবে হামলা?

ত্রিপোলির স্থানীয় সময় ভোররাতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দেওয়া চালকবিহীন ড্রোন বিমান থেকে বোমা ফেলা হয় রাজধানীর প্রেসিডেন্ট কমপ্লেক্সে৷ বাব এল আজিজিয়া নামের ওই কমপ্লেক্সে বোমা হামলায় একটি ভবন পুরোপুরি মাটিতে মিশে যায়৷ গাদ্দাফির সরকার পরিচালিত টেলিভিশন চ্যানেলে এই হামলার ছবি দেখানো হয়েছে৷ বিকট শব্দ, বিস্ফোরণ এবং বাড়ি ভেঙে পড়ার দৃশ্য প্রচার করে রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের দাবি, এই হামলায় বহুসংখ্যক হতাহত হয়েছে৷ যাদের মধ্যে সেনা সদস্য ছাড়াও রয়েছে সাধারণ নাগরিকও৷

গাদ্দাফি কোথায় আছেন এই মুহূর্তে?

সেটাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন৷ লিবিয়ার টেলিভিশন হামলার লক্ষ্য হিসেবে তাদের প্রেসিডেন্টের নাম উল্লেখ করলেও, হামলার সময়ে বা পরে গাদ্দাফি কোথায় রয়েছেন, সে বিষয়ে কোন মন্তব্যই করেনি৷ তবে গাদ্দাফি এই হামলার লক্ষ্য হলেও তিনি যে নিরাপদে আছেন তার ইঙ্গিত দিয়ে অপর একটি সূত্র জানিয়েছে, ‘বাব এল আজিজিয়াতে শত্রুদের হামলার উদ্দেশ্য সিদ্ধ হয়নি৷'

NO FLASH Libyen Adschdabiya zerstörtes Haus

বিদ্রোহীদের মধ্যে ঢুকে পড়ছে গাদ্দাফির সেনারা!

সেরকমই অভিযোগ করেছেন মিসরাটায় বিদ্রোহীদের কর্নেল আহমদ বানি৷ মিসরাটার দখলদারি নিয়ে গাদ্দাফি বাহিনীর সঙ্গে বিদ্রোহীদের তুমুল লড়াই চলছে গত কয়েকদিন ধরেই৷ এরই মধ্যে গতকাল রবিবার, লড়াইরত বিদ্রোহীদের মধ্যে ছদ্মবেশে এক গাদ্দাফি সেনা ঢুকে পড়েছিল বলে জানিয়েছেন কর্নেল বানি৷ তারপর সে বিদ্রোহীদের পতাকা উঁচু করে তুলে ধরে৷ পতাকার সম্মানে অন্য সকলে যখন বন্দুক ফেলে হাততালি দিচ্ছিলেন, তখনই সেই গাদ্দাফি সেনা তার হাতের স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র থেকে উপর্যুপরি গুলি চালিয়ে কমপক্ষে ৩৬ জন বিদ্রোহীকে হত্যা করে৷ বিদ্রোহীদের এরপর সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে যাতে এ ধরণের ছলনার শিকার তারা বারবার না হয়৷ প্রসঙ্গত, মিসরাটার দখল ফিরে পেতে গাদ্দাফি বাহিনী শহরের বাইরে থেকে দূরপাল্লার মিসাইল এবং বোমা হামলা চালিয়ে যাচ্ছে ক্রমাগত৷ সোমবার সকালেও ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে মিসারাটায়৷

প্রতিবেদন : সুপ্রিয় বন্দ্যোপাধ্যায়

সম্পাদনা : সাগর সরওয়ার

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়