1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

গাড়ি মানেই শব্দ, স্থির করেন ডিজাইনার

মোটরসাইকেলের ইঞ্জিনের বিকট শব্দ প্রায়ই কাঁচা ঘুম ভাঙিয়ে দেয়৷ গাড়ির শব্দও কম নয়৷ তা বলে শব্দ ছাড়া গাড়ি ভাবা যায়! মানুষের কাছে শব্দের আকর্ষণও কিন্তু কম নয়৷ গাড়ির শব্দ নির্ধারণ করেন – এমন ডিজাইনারদের কদর কম নয়৷

default

‘পর্শে ৯১১'

মাত্র সাড়ে চার সেকেন্ডে শূন্য থেকে একশো! সর্বোচ্চ স্পিড ঘণ্টায় ৩০০ কিলোমিটার৷ স্পোর্টস কার ভক্তদের কাছে ‘পর্শে ৯১১' মডেল এক স্বপ্নের মতো৷ কোম্পানির দুই কর্মী মূল বিষয়টি বুঝিয়ে বললেন৷ পর্শে কোম্পানির ব্যার্নহার্ড ফেফলিন বলেন, ‘‘এই সাউন্ড আসলে আবেগ আর গাড়ি চালানোর অভিজ্ঞতাকেই আরও জোরদার করে৷ তাই আমার কাছে সাউন্ড এক মৌলিক বিষয়৷''

দুই অ্যাকুস্টিক ডিজাইনার কোম্পানির গবেষণা কেন্দ্রে প্রত্যেকটি মডেলের শব্দ নিয়ে কাজ করেন৷ তাঁদেরই ইচ্ছা অনুযায়ী ইঞ্জিনিয়াররা কখনো ভেন্টিলেশন, কখনো বা ধোঁয়ার পাইপে রদবদল করেন৷ এর মাধ্যমে ইঞ্জিনের শব্দে রকমফের ঘটে৷

পরীক্ষার সময় ইঞ্জিনিয়াররা অবশ্য শুধু নিজেদের কানের উপর ভরসা করেন না৷ এক কৃত্রিম মাথা মানুষের শ্রবণশক্তির অনুকরণ করে৷ এ ছাড়া একঝাঁক মাইক্রোফোনের মাধ্যমেও ইঞ্জিনের শব্দ রেকর্ড করে বিশ্লেষণ করা হয়৷

প্রয়োজনে ইঞ্জিনের মধ্যে রদবদল করা হয়৷ যে কোনো নতুন মডেল নিয়ে ভাবনা-চিন্তার স্তরেই অ্যাকুস্টিক ডিজাইনারদের ডাক পড়ে৷ ব্যার্নহার্ড ফেফলিন বলেন, ‘‘কনসেপ্ট পর্যায়ে ইঞ্জিন বা গাড়ি – কিছুই থাকে না৷ অর্থাৎ কম্পিউটার সিমুলেশনের মাধ্যমেই সবকিছু করা হয়৷ আমরা বাতাস ঢোকা, ইঞ্জিন আর বাতাস বার হওয়ার প্রক্রিয়া সিমুলেট করে সাউন্ড তৈরি করি৷ অনেক রকম কম্বিনেশন পরীক্ষা করি৷ প্রায় ২৪০ রকম সম্ভাবনা রয়েছে৷''

বার্লিনের প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকুস্টিক্স বিভাগের ক্লাউস গেনুইট প্রায় ৩০ বছর ধরে গাড়ির শব্দ নিয়ে গবেষণা করছেন৷

নিজের কোম্পানির মাধ্যমে গোটা বিশ্বের গাড়ি নির্মাতাদের সঙ্গেও কাজ করেছেন তিনি৷ তিনি বলেন, ‘‘জার্মানি বা ইংল্যান্ডের গাড়ির তুলনায় ইটালির গাড়ির শব্দ কিন্তু আলাদা৷ আবার ইউরোপের তুলনায় এশিয়ার গাড়ির চরিত্রে তফাত রয়েছে৷ এশিয়ার গাড়ির ফ্রিকুয়েন্সি তেমন গভীর নয়, শব্দ কম, বেশ আরামদায়ক৷ ইউরোপে, বিশেষ করে ইটালিতে উচ্চ ফ্রিকুয়েন্সির শব্দ হয়, আরপিএম-ও বেশি৷ ইংল্যান্ডে ফ্রিকুয়েন্সি অনেক গভীর৷''

হালের ইলেকট্রিক গাড়ি অ্যাকুস্টিক ডিজাইনারদের নতুন চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলেছে৷ বিশেষ করে ধীরে চললে খুবই কম শব্দ হয়৷ এমন গাড়ির স্বয়ংক্রিয় ‘ওয়ার্নিং সাউন্ড' থাকা উচিত কিনা, তা নিয়ে ইউরোপীয় ইউনিয়নের বিশেষজ্ঞরা এই মুহূর্তে আলোচনা করছেন৷ তবে প্রশ্নটা শুধু নিরাপত্তার নয়৷ অ্যাকুস্টিক মনোবিদ ক্লাউস গেনুইট বলেন, ‘‘প্রায় ১২৫ বছর ধরে আমরা সাধারণ কম্বাসচান ইঞ্জিনের উন্নতি করে চলার পর জানতে পেরেছি, এমন ইঞ্জিনে কী ভাবে রদবদল করলে বিশেষ এক সাউন্ড তৈরি হয়৷ ফলে এবার ইলেকট্রিক ইঞ্জিনের ক্ষেত্রে চ্যালেঞ্জ কোনো বিবর্তন নয়, বরং বিপ্লব বলা চলে৷ ক্রেতা ঠিক কী চায়, আমরা তা জানি না৷ ক্রেতা কি আদৌ কিছু শুনতে চায়? নাকি শব্দহীন গাড়ি পেয়েই সে খুশি?''

‘পর্শে ৯১১'-এর ফ্যানরা সাউন্ড ছাড়া মডেল পছন্দ করবেন, এমনটা ভাবাই যায় না৷ তবে এই গাড়িটি তো ঠিক দৈনন্দিন ব্যবহারের জন্য নয়৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়