1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

গাছের পাতা থেকে নিকেল?

নিউ ক্যালিডোনিয়া দ্বীপপুঞ্জে এমন সব গাছপালা আছে, যারা মাটি থেকে নিকেল শুষে পাতায় জমা করতে পারে৷ এখন নিকেলের খনির ‘ক্ষত’ বা কলঙ্ক সারানোর চেষ্টা চলেছে ‘হাইপার-অ্যাকিউমুলেটর’ গাছের চাষ করে৷

default

নিউ ক্যালিডোনিয়ার সাদা বালুর সৈকত

সুদূর নিউ ক্যালিডোনিয়া দ্বীপপুঞ্জে সম্পূর্ণ অন্য ধরনের এক উদ্ভিদ জগৎ গড়ে উঠেছে৷ এখানে যা কিছু জন্মায়, তার সব কিছু এখানকার, বিশ্বের অন্যত্র তা পাওয়া যাবে না৷

মুখ্য দ্বীপটির নাম ‘গ্রঁদ ত্যার’৷ পরিবেশবিজ্ঞানী অ্যান্টনি ফ্যান ডের এন্ট এখানকার কিছু উদ্ভিদ নিয়ে গবেষণা করছেন, যাদের আশ্চর্য সব বৈশিষ্ট্য আছে৷ অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যান্টনি ফ্যান ডের এন্ট বলেন, ‘‘এটা হলো একটা বড় ‘পিকেনান্দ্রা আকুমিনাতে’, এর নীল-সবুজ কষের ২৫ শতাংশই হল নিকেল৷ কষে যে সবুজ রংটা দেখা যায়, সেটাই হলো নিকেল৷ এটা হল মানুষের চেনা সবচেয়ে আশ্চর্য জৈবিক তরল পদার্থ৷ সত্যিই অসাধারণ যে, একটি জীবন্ত, সজীব গাছের কষে এই পরিমাণ ধাতু থাকতে পারে৷’’

নিকেল সাধারণত উদ্ভিদ ও জীবজন্তুর পক্ষে অত্যন্ত বিষাক্ত, এমনকি মানুষের পক্ষেও৷ কাজেই এ ধরনের কোনো গাছের বেঁচে থাকারই কথা নয়৷ অথচ পিকেনান্দ্রা ছাড়া এখানকার অন্যান্য গাছেও নিকেল আছে৷ এই গাছগুলো মাটি থেকে সরাসরি নিকেল শুষে নেয় ও তাদের কোষে তা জমা করে৷ ফ্যান ডের এন্ট এই সব গাছেদের ‘হাইপার-অ্যাকিউমুলেটর’ বলেন ও তাদের নমুনা তরল নাইট্রোজেনে ধরে রেখে পরে পরীক্ষাগারে বিশ্লেষণ করেন৷

ভিডিও দেখুন 05:39

যে গাছ মাটি থেকে নিকেল শোষে

‘পাতায় কতটা নিকেল আছে’

ফ্যান ডের এন্ট জানালেন, ‘‘আমরা পর্যায়ক্রমে নিউ ক্যালেডোনিয়ার সর্বত্র সংগৃহীত বিভিন্ন প্রজাতির গাছপালা পরীক্ষা করে দেখি, তাদের পাতায় কতটা নিকেল আছে৷ এভাবে আমরা তাদের শনাক্ত ও সংগ্রহ করে, পরে ঐ ‘হাইপার-অ্যাকিউমুলেটর’ গাছের চাষ করে ফসল ঘরে তুলতে পারি৷ ‘হাইপার-অ্যাকিউমুলেটর’ গাছপালা নিয়ে গবেষণা করার জন্য নিউ ক্যালিডোনিয়াই সম্ভবত বিশ্বের সেরা জায়গা, কেননা এখানে ৬৫টির বেশি প্রজাতির ‘হাইপার-অ্যাকিউমুলেটর’ উদ্ভিদ পাওয়া যায়৷’’

এই গাছগুলো এখানে গজাতে পেরেছে দ্বীপটির ভূতাত্ত্বিক উপাদানের কারণে৷ এখানকার মাটিতে এত নিকেল ও অন্যান্য ধাতু আছে যে, অধিকাংশ গাছপালা এখানে বাড়তে পারে না৷ কিন্তু ‘হাইপার-অ্যাকিউমুলেটর’-রা ভালোই থাকে৷

নিকেলের রীতিনীতি

নিউ ক্যালিডোনিয়ার মাটি এমনই নিকেল-সমৃদ্ধ যে, নিকেলের খনি হলো নিউ ক্যালিডোনিয়ার অর্থনীতির একটা বড় অংশ৷ এর ফলে দ্বীপপুঞ্জটির নৈসর্গিক দৃশ্য যেন নানা প্রকাশ্য ক্ষতে ভরা৷

মাইনিং কোম্পানিগুলি বিভিন্ন পরিবেশ সংরক্ষণ কর্মসূচিতে বিনিয়োগ করতে শুরু করেছে৷ এই সব কর্মসূচির উদ্দেশ্য বিশেষ বিশেষ ‘হাইপার-অ্যাকিউমুলেটর’-এর সাহায্যে খনির চারপাশের জমির নবায়ন করা৷

কিন্তু এই বিধ্বস্ত এলাকায় এই জাদুকরি গাছপালাগুলোও দাঁত ফোটাতে কষ্ট পায়৷ মাটিতে এত লোহা আর নিকেল আছে যে, এই মাটি পাথরের মতো শক্ত৷ গাছ পোঁতার জন্য কর্মীরা স্পেশাল ড্রিল দিয়ে মাটিতে গর্ত করেন৷

নিউ ক্যালিডোনিয়ার বৃহত্তম খনিতে ওপেনকাস্ট বা খোলা খনি পদ্ধতিতে আকর সংগ্রহ করা হয়, যার অর্থ, ক্ষেত্রবিশেষে গোটা পাহাড় কেটে খনির কাজ চলে৷ পড়ে থাকে বিষাক্ত হেভি মেটালের ভাঙাচোরা স্তূপ৷ গবেষকরা এই খনিতে একটি চমকপ্রদ পরীক্ষা চালাচ্ছেন: তারা এখানে ‘হাইপার-অ্যাকিউমুলেটর’ গাছপালা পোঁতার পরিকল্পনা করছেন – শুধু মাটিকে বিষমুক্ত করার জন্যই নয়, বরং তাদের পাতা সংগ্রহ করে তা থেকে নিকেল বার করার জন্যে৷

খনি বর্জ্যের উপর ‘হাইপার-অ্যাকিউমুলেটর’ গাছের চাষ

ফ্যান ডের এন্ট বললেন, ‘‘আমি এখানে নিউ ক্যালিডোনিয়ান অ্যাগ্রোনমিক ইনস্টিটিউটের ব্রুনো ফোলিয়ানির সঙ্গে কাজ করছি, যিনি খনি বর্জ্যের উপর নিকেল ‘হাইপার-অ্যাকিউমুলেটর’ বসানোর এই পরীক্ষার আয়োজন করেছেন৷ আমরা খনি বর্জ্য ফেলার একটা জায়গার উপর দাঁড়িয়ে রয়েছি – দেখছেনই তো, গাছপালাগুলো ভালোই বাড়ছে৷’’

ফোলিয়ানি জানালেন, ‘‘এই গাছটি নিকেল সংগ্রহ করে৷ এর পাতায় যে নিকেল আছে, আমরা সে বিষয়ে আগ্রহী৷ অর্থনৈতিক বিচারে পোষাতে গেলে, আমাদের সর্বোচ্চ পরিমাণ ‘বায়োমাস’ সংগ্রহের পন্থা বার করতে হবে৷ আমরা একাধিক ধরনের সার ব্যবহার করছি, অন্যান্য গাছপালার সঙ্গে ‘হাইপার-অ্যাকিউমুলেটর’ গাছের চাষ করার চেষ্টা করছি৷ শুধু এই একটি প্রজাতি নয়, বরং সব ধরনের গাছ লাগালে প্রকৃতি বাকিটা করে দেয়, প্রাকৃতিকভাবেই সারিয়ে দেয়৷’’

এই প্রযুক্তিকে বলে ‘ফাইটোমাইনিং’, অর্থাৎ গাছপালা ব্যবহার করে খনির কাজ৷ এটা যদি কার্যকরি হয়, তাহলে মাইনিং কোম্পানিগুলি সম্ভবত এই ‘হাইপার-অ্যাকিউমুলেটর’ গাছপালায় বিনিয়োগ করতে রাজি হবে – লাভের জন্যও বটে আবার তারা পরিবেশের যে ক্ষতি করেছে, তার কিছুটা পূরণ করার জন্যও বটে৷ কিন্তু ফাইটোমাইনিং প্রথাগত মাইনিং-এর বিকল্প হয়ে দাঁড়াতে পারবে না, কারণ ‘হাইপার-অ্যাকিউমুলেটর’ গাছগুলি থেকে পর্যাপ্ত পরিমাণ নিকেল পাওয়া যায় না৷

যার অর্থ যে, নিকেল মাইনিং-এর ধ্বংসলীলা আরো কিছুদিন ধরে চলবে৷ মাইনিং কোম্পানিগুলি মাটি খুঁড়ে ও পাথরের স্তর সরিয়ে আকরিক নিকেল বার করার চেষ্টা চালিয়ে যাবে৷ কিন্তু নিকেল শুষে নেওয়া ‘হাইপার-অ্যাকিউমুলেটর’ গাছগুলির কল্যাণে পরিবেশের ক্ষতি অন্তত কিছুটা লাঘব হবে৷৷

ক্লাউস উয়রিশ/এসি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও