1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

গরুর স্বাস্থ্য ও ক্ষমতা বাড়াতে নতুন প্রচেষ্টা

আজকের যুগে মাছ-মাংস-দুধ-ডিমও কারখানার পণ্যের মতো উৎপাদন করা হচ্ছে৷ আরও দুধের লোভে গরুকে বেশি খাওয়ানো হচ্ছে৷ জার্মানির একদল পশু চিকিৎসক গরুদের স্বাস্থ্যের প্রতি নজর দিয়েও তাদের ক্ষমতা বাড়ানোর উদ্যোগ নিচ্ছেন৷

একটি গরুর খাবারে ‘পারফর্মান্যাট' নামের ‘অ্যাডিটিভ' যোগ করা হয়েঠে৷ এটা খেলে যে গরু বেশি দুধ দেয়, তার ক্ষমতা আরও বেড়ে যাবে৷ তাদের স্বাস্থ্যেরও উন্নতি হবে৷ দুই পশু চিকিৎসক তথা শিল্পপতি এটি তৈরি করেছেন৷ জার্মানির উত্তরে এই গোয়ালে তাঁরা গরুর রক্ত ও মূত্র নিয়ে এই পদার্থের প্রভাব পরীক্ষা করছেন৷ তাঁদেরই একজন হানা সোফি ব্লাউন৷ তিনি বলেন, ‘‘যে গরু থেকে এখনো নমুনা নেওয়া হয়নি, আমরা সবসময়ে তাদের চিহ্নিত করি৷ তাদের গায়ে গোলাপি চিহ্ন এঁকে দেওয়া হয়৷ যাদের মূত্র পরীক্ষা হয়েছে, তাদের গায়ে সবুজ চিহ্ন আঁকা হয়৷''

গবেষণার জন্য দুই পশু চিকিৎসকদের নিজেদেরই গোয়ালঘরে যেতে হয়, যদিও সেটা কম বিপজ্জনক নয়৷ হানা বলেন, ‘‘আমি আর কোনো রক্তের নমুনা নিতে চাই না৷ তাই আমরা এটা থামিয়ে দিয়েছি৷ গরুর কাছে এগোলে সে গোয়ালের মধ্যে দাপিয়ে বেড়াবে, বাকি গরুদেরও মাথা খারাপ করে দেবে৷ তাদের তখন খাঁচায় বন্ধ করে রাখতে হবে৷''

Kühe und Milchproduktion in Indien

উন্নয়নশীল দেশের দুধ শিল্প

ল্যাবের প্রাথমিক ফলাফল অনুযায়ী খাবারের ‘অ্যাডিটিভ' গরুদের স্বাস্থ্যের উন্নতি করতে পারে৷ কোম্পানির দুই প্রতিষ্ঠাতার আশা, রক্ত ও মূত্র পরীক্ষায়ও একই ফল পাওয়া যাবে৷ ‘পারফর্মান্যাট' কোম্পানির সহ-প্রতিষ্ঠাতা ইয়ুলিয়া রোসেনডাল বলেন, ‘‘বেশি দুধ উৎপাদনের লক্ষ্যে গরুকে এমনিতেই বেশি খাদ্য খাওয়ানো হয়৷ আমরা এই ‘অ্যাডিটিভ' ব্যবহার করে খাদ্যের আরও ভালো ব্যবহার নিশ্চিত করতে চাই৷''

অতিরিক্ত শক্তিবর্ধক খাদ্যের কারণে জার্মানিতে প্রায় অর্ধেক গরু অসুস্থ হয়ে পড়ে৷ ১০ থেকে ১৫ বছরের বদলে তাদের আয়ু কমে দাঁড়ায় গড়ে পাঁচ বছর৷ এই ‘অ্যাডিটিভ' কি বড় আকারে পশুপালনে সাহায্য করে? পশু চিকিৎসক হানা সোফি ব্লাউন মনে করেন, ‘‘না, একেবারেই না৷ ব্যাপারটা এভাবে দেখা চলে না৷ কারণ বড় আকারে পশুপালনের ক্ষেত্রে দিনে কত দুধ পাওয়া গেল, সেটাই গুরুত্বপূর্ণ৷ দিনে চল্লিশের বদলে ৫০ লিটার দুধের প্রত্যাশা করা হয়৷ আমরা কিন্তু মোটেই সেটা করছি না৷''

‘পারফর্মান্যাট' কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতাদের তৃতীয় সদস্য কাটারিনা হিলে ল্যাবে এই ‘অ্যাডিটিভ'-এর আরও একটি সুবিধা প্রমাণ করতে চান৷ তিনি বলেন, ‘‘আমাদের ‘অ্যাডিটিভ' দিয়ে মূত্রে অ্যামোনিয়ার মাত্রা কমানো যায়৷ এই প্রতিবেদনে তার প্রমাণ রয়েছে৷ শুধু গরু নয়, পরিবেশের উপরও এর ইতিবাচক প্রভাব পড়ে৷ মাঠের উপর গোবর ফেলে দিলে তার মধ্যে থাকা অ্যামোনিয়াও ছড়িয়ে পড়ে জলবায়ুর ক্ষতি করে৷''

‘পারফর্মান্যাট'-এর মার্কেটিং-এর জন্য এই তিন গবেষক একটি কোম্পানি খুলেছেন৷ জার্মান অর্থনীতি মন্ত্রণালয় সহ একাধিক সূত্র থেকে তাঁরা ৪ লাখ ৪০ হাজার ইউরো আর্থিক সহায়তা পেয়েছেন৷

এর ফলে কি দীর্ঘমেয়াদি ভিত্তিতে এমন হতে পারে যে, প্রচলিত দুধ শিল্পকেই আরও অগ্রাধিকার দেওয়া হবে? ইয়ুলিয়া রোসেনডাল বলেন, ‘‘আমার বিশ্বাস, অরগ্যানিক খামারের কোনো ক্ষতি হবে না৷ মানুষের মধ্যে অরগ্যানিক পণ্যের প্রতি যথেষ্ট আগ্রহ রয়েছে বলে আমি মনে করি৷ আমাদের লক্ষ্য হলো, পশুর স্বাস্থ্যের ক্ষতি না করেও বড় আকারে পশুজাত পণ্যের উৎপাদন সম্ভব করা৷''

বড় আকারের খামারে প্রতিটি গরু বছরে ১০,০০০ লিটারেরও বেশি দুধ দেয়৷ একশো বছর আগের তুলনায় এই পরিমাণ প্রায় চার গুণ বেশি৷ ‘পারফর্মান্যাট' পশুদের স্বাস্থ্যের উন্নতি করতে পারে, পশুপালকদের আর্থিক সুবিধা দিতে পারে৷ আগামী বছরের শুরুতেই এই ‘অ্যাডিটিভ' প্রথম খামারগুলিতে বিক্রি করার কথা৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন