1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

গভীর সমুদ্রে জার্মান সাবমেরিন

জার্মানির এক আশ্চর্য ডুবোজাহাজ সমুদ্রের নীচে অজানা প্রাণিজগতের খোঁজে বেশ সাফল্য পাচ্ছে৷ সমুদ্রগর্ভে প্রাণী ও উদ্ভিদের উপর জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব সম্পর্কে জানা যাচ্ছে নতুন তথ্য৷

ভূপৃষ্ঠের একটা বড় অংশই পানিতে ঢাকা৷ কিন্তু আজ পর্যন্ত সমুদ্রগর্ভ সম্পর্কে আমাদের জ্ঞান সীমিত৷ সাগরের পানিতে যে সব জীব ও প্রাণী থাকে, তাদের প্রায় ৯৫ ভাগই আমাদের অজানা৷ একটি গবেষণা প্রকল্প সেই রহস্য সমাধানের চেষ্টা করছে৷

জার্মানির কিল শহরের সামুদ্রিক গবেষণা কেন্দ্র জিওমার-এর বিজ্ঞানীরা ইয়াগো নামের একটি সাবমার্সিবল যান তৈরি করেছেন৷ ইয়াগো নামের এই ছোট্ট ডুবোজাহাজটিতে মানুষেরও বসার জায়গা আছে৷ সিনিয়র পাইলট ইয়ুর্গেন শাউয়ার ও তাঁর সঙ্গীরা পরবর্তী অভিযানের প্রস্তুতি নিচ্ছেন৷

ইয়াগো-কে সমুদ্রগর্ভে উদ্ভিদ ও প্রাণিজগত সম্পর্কে গবেষণার কাজে লাগানো হয়৷ ইয়াগো-র সবচেয়ে বড় সুবিধা হল, তা সমুদ্রপৃষ্ঠের সঙ্গে তারের মাধ্যমে সংযুক্ত নয়৷ কাজেই ডুবোজাহাজটি নিজের মর্জিমতো ঘোরাফেরা করতে পারে৷ শাউয়ার বলেন, ‘‘ইয়াগো ডুবোজাহাজটি ছোট ও হালকা৷ এটি একটি দুই আরোহীর সাবমার্সিবল, যা ৪০০ মিটার গভীরে নামতে পারে৷ সাগরের আলোকিত অংশই আমরা ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করতে পারি৷ আসলে ৪০০ থেকে ৫০০ মিটার গভীরেই সবচেয়ে আশ্চর্য সব জিনিস দেখতে পাওয়া যায়৷''

Futurando 45 Jago

‘ইয়াগো’র চোখে সমুদ্রের প্রাণিজগত

ডুবোজাহাজে পাইলট ছাড়া আরও একজনের বসার জায়গা আছে৷ অ্যাক্রিলিক কাচের তৈরি দুটো জানলা দিয়ে চতুর্দিক পর্যবেক্ষণ করা যায়৷ শাউয়ার বলেন, ‘‘ইয়াগো-র প্রযুক্তিটা খুব কঠিন নয়৷ ডুব দেওয়া কিংবা ভেসে ওঠা, সেটা করা হয় বাতাসের মাধ্যমে – পানির চৌবাচ্চাতে প্লাস্টিকের বোতল দিয়ে যা নিজেরাই করে দেখা যেতে পারে৷ একটি সহজ ও নির্ভরযোগ্য প্রযুক্তি৷''

সাগর থাকার ফলে পৃথিবীর তাপমাত্রা বৃদ্ধি অত তাড়াতাড়ি ঘটছে না, কেননা সাগরের পানি কার্বন ডাইঅক্সাইড শুষে নেয়৷ তবুও সমুদ্রগর্ভে প্রাণী ও উদ্ভিদের উপর প্রভাব পড়ছে৷ ইয়াগো-র রোবোট হাত দিয়ে স্যাম্পল নিয়ে পরে জিওমার-এর গবেষণাগারে তা অনুসন্ধান করা সম্ভব৷

ইয়ানিনা ব্যুশার তাঁর স্নাতকোত্তর গবেষণায় প্রবাল নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছেন৷ কার্বন ডাইঅক্সাইডের পরিমাণ, তাপমাত্রা, প্রবালদের খাদ্য বাড়লে কিংবা কমলে কী ধরনের প্রভাব পড়ে, এই হল তাঁর বিষয়৷ ইয়ানিনা বলেন, ‘‘আমরা মূলত জানতে চাইছি, সিওটু-র নির্গমন বাড়ার ফলে প্রবালদের উপর কী ধরনের প্রভাব পড়ে৷ কার্বন নির্গমন বাড়লে সাগরের পানির অ্যাসিডিটি বাড়ে, তাপমাত্রাও বাড়ে৷''

ইয়ানিনা ব্যুশার নিজে ইয়াগো'তে চড়ে সাগরের গভীরে নামার ও স্যাম্পল সংগ্রহ করার সুযোগ পেয়েছিলেন৷ সে এক আশ্চর্য অভিজ্ঞতা৷ তিনি বলেন, ‘‘ডুবোজাহাজের শব্দ সত্ত্বেও পানির নীচে সব কিছু ঠান্ডা, নিরিবিলি ছিল৷ বিশেষ কিছু চলাফেরা করে না৷ হয়তো একটা মাছ জানলার বাইরে দিয়ে সাঁতরে গেল৷ নয়তো খুবই শান্ত পরিবেশ৷''

কিল-এর সামুদ্রিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান ইউরোপে অগ্রণী৷ সারা বিশ্বে মাত্র স্বল্প কয়েকটি সাবমার্সিবল আছে৷ ইয়াগো ইতিমধ্যেই বিশ্বের প্রায় সব সাগরে ডুব দিয়ে এসেছে৷ ইয়ুর্গেন শাউয়ার বলেন, ‘‘আমি যেমন গ্রীষ্মমণ্ডলীয় এলাকা কিংবা লোহিত সাগরকে খুব ভালোভাবে চিনি৷ ওখানে অগভীর অংশে বহু প্রবাল গজায়, রিফ তৈরি হয়৷ সেখানে প্রচুর পরিমাণ আলো, পানিও বেশ গরম৷ উত্তর অ্যাটলান্টিকে শীতল, অন্ধকার পানিতে জাহাজ নিয়ে ডুব দিতে হয়৷ আর কয়েক মিটার নামলেই ঘুটঘুটে অন্ধকার, কোনো আলো নেই৷ কিন্তু আড়াইশো, তিনশো মিটার গভীরে রিফগুলো আছে, আছে নানাধরনের প্রবাল৷ মুগ্ধ হয়ে যেতে হয়৷ আমাদের এ ভাবে সাগরে নামার সুযোগ আছে৷''

এসি / এসবি

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়