1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

গণতন্ত্রকে সুসংহত করার অঙ্গীকার

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে গণতন্ত্রকে সুসংহত করার কথা বলেছেন সাধারণ মানুষ, বুদ্ধিজীবী আর রাজনৈতিক নেতারা৷ তাঁরা বলেছেন, ভাষার দাবি আদায়ের পথ ধরেই বাংলাদেশ স্বাধীন হয়৷ সেই বাংলাদেশে এখনো গণতন্ত্র সুসংহত নয়৷

১৯৫২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারির ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানানো শুরু হয় রাত ১২টার পর থেকেই৷ রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাত ১২টা ১ মিনিটে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ করেন৷ তার পর থেকেই সব শ্রেণির মানুষের ঢল নামে শহিদ মিনারে৷ আর লোকে লোকারণ্য হয়ে যায় শহীদ মিনার থেকে দোয়েল চত্বর৷ দোয়েল চত্বর থেকে বইমেলা হয়ে শাহবাগ পর্যন্ত৷ পুরো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা যেন পরিণত হয় জনস্রোতে৷ সব পথ গিয়ে মেশে এক পথে – কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে৷ ফুলে ফুলে ছেয়ে যায় মিনারের বেদি৷

সাধারণ মানুষ থেকে বুদ্ধিজীবী, রাজনীতিবিদ, নারী-পুরুষ-শিশু সবাই আসেন শহীদ মিনারে৷ আর বিদেশিদের উপস্থিতিও চোখে পড়ার মত৷ তারা বাংলাদেশের মানুষের ভাষার জন্য চরম আত্মত্যাগ আর তাদের জন্য পুরো জাতির এই বিনম্র শ্রদ্ধায় অভিভূত৷

কিন্তু বাংলাদেশের সাধারণ মানুষ মনে করেন, শহীদদের আত্মত্যাগের লক্ষ্য আজও পূরণ হয়নি৷ শহীদ মিনারে ফুল দিতে আসা আজিমপুরের অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা শরিফুল ইসলাম বলেন, ‘‘৫২'র ভাষা আন্দোলন থেকেই একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ৷ কিন্তু বাংলাদেশ স্বাধীন হলেও এ দেশে গণতন্ত্র এখনো সুসংহত হয়নি৷ ফলে সাধারণ মানুষ তার অধিকার পায়নি৷ এমনকি বাংলা ভাষাকেও তার মর্যাদার আসনে প্রতিষ্ঠিত করা হয়নি৷'' জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মিজানুর রহমান বলেন, ‘‘বাংলাকে সর্বস্তরে চালু করা এখনো সম্ভব হয়নি৷ উচ্চ শিক্ষার মাধ্যম হিসেবে বাংলাকে প্রতিষ্ঠিত করতে হলে এ জন্য অনেক কাজ করতে হবে৷ সেই কাজ হয়নি৷ এখনো একটি শ্রেণি আছে যারা বাংলাকে গুরুত্ব দিতে চান না৷ বরং বাংলাকে বিকৃত করতে তাদের উত্‍সাহের কমতি নেই৷''

সুশাসনের জন্য নাগরিক – সুজন-এর সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, ৫২'র ভাষা আন্দোলন আমাদের লড়াই করতে শিখিয়েছে৷ শিখিয়েছে দাবি আদায় করতে৷ কিন্তু সাধারণ মানুষের অধিকার এখনো প্রতিষ্ঠিত হয়নি৷ গণতন্ত্রের লড়াই এখনো শেষ হয়নি৷ দেশে গণতন্ত্র সুপ্রতিষ্ঠিত না হলে মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠা হবেনা৷ ভাষার মর্যাদা পুরোপুরি প্রতিষ্ঠিত করা যাবেনা৷

আর বিএনপি-র ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, বাংলাদেশে এখন গণতন্ত্র অবরুদ্ধ, মানুষের ভোটের অধিকার নেই৷ নেই বাক স্বাধীনতা৷ তাই লড়াই চালিয়ে যেতে হবে গণতন্ত্রকে উদ্ধার করতে৷ গণতন্ত্রকে সংহত করতে৷ বিএনপি সেই লড়াইয়ে পিছপা হবেনা বলে জানান তিনি৷

এদিকে শহিদ দিবসে মৌলবাদ, জঙ্গিবাদ ও সহিংসতার বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাওয়ার কথা বলেছেন যোগাযোগমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ নেতা ওবায়দুল কাদের৷ তিনি বলেছেন, গণতন্ত্রকে সংহত করতে হলে অপশক্তির বিরুদ্ধে লড়াই করতে হবে৷ নিশ্চিত করতে হবে যুদ্ধাপরাধের বিচার৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়