1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

খালেদার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানার নেপথ্যে কী?

বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে এক সপ্তাহের মধ্যে তিনটি মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে৷ তবে তিনি লন্ডন থেকে দেশে ফিরলে এই পরোয়ানার ব্যবহার কেমন হবে তা এখনো স্পষ্ট নয়৷

সর্বশেষ বৃহস্পতিবার ঢাকায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দু'টি মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়৷ প্রথম গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন ঢাকা মহানগর হাকিম নুর নবী৷ মহান মুক্তিযুদ্ধকে কলঙ্কিত ও বালাদেশের মানচিত্র ও জাতীয় পতাকাকে অবমাননা করার অভিযোগে গত বছরের ৩ নভেম্বর ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান ও খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে এ বি সিদ্দিকী নামের একজন মানহানির মামলা দায়ের করেছিলেন৷ ওই দিনই আদালত ঘটনা তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে তেজগাঁও থানার ওসিকে নির্দেশ দেন৷ পরবর্তীতে তেজগাঁও থানার ওসি মশিউর রহমান মামলার অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে বলে আদালতে প্রতিবেদন দেন৷ বিচারক আগামী ১২ নভেম্বর এই মামলার পরবর্তী তারিখ নির্ধারণ করেছেন৷ এই মামলায় খালেদা জিয়াকে পলাতক দেখানো হয়েছে৷

অডিও শুনুন 00:40

‘‘খালেদা জিয়াকে আটকাতে চায় সরকার’’

অপরদিকে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার শুনানিতে হাজির না হওয়ায় বৃহস্পতিবার ঢাকার পঞ্চম বিশেষ জজ মো: আখতারুজ্জামান খালেদা জিয়ার জামিন বাতিল করে তাঁর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন

এর আগে ৯ অক্টোবর কুমিল্লা জেলা ও দায়রা জজ বেগম জেসমিন আরা খালেদা জিয়াসহ ৪৬ জনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন৷ ২০১৫ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি ভোরে ২০ দলীয় জোটের অবরোধের সময় চৌদ্দগ্রামের জগমোহনপুরে একটি বাসে দুর্বৃত্তরা পেট্রোল বোমা ছুড়লে আট যাত্রী দগ্ধ হয়ে মারা যান৷ আহত হন ২০ জন৷ এই মামলায় তখন খালেদা জিয়াকে হকুমের আসামি করা হয়৷ এই মামলায়ও খালেদাকে পলাতক দেখানো হয়৷

খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দুর্নীতি, নাশকতা, রাষ্ট্রদ্রোহ ও মানহানিসহ মোট ৩৫টি মামলা রয়েছে৷ এরমধ্যে দুর্নীতির মামলা পাঁচটি৷ এই মামলাগুলো দায়ের করা হয়েছিল ২০০৭ সালে ওয়ান-ইলেভেন সরকারের সময়ে৷ বাকি মামলা দায়ের হয়েছে আওয়ামী লীগ সরকারের সময়ে৷ দুদকের করা মামলাগুলো হচ্ছে- জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা, গ্যাটকো দুর্নীতি মামলা, বড়পুকুরিয়া দুর্নীতি মামলা ও নাইকো দুর্নীতি মামলা৷

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলাটি ঢাকার বিশেষ জজ-৩ আদালতে বিচারাধীন৷ নাইকো দুর্নীতি মামলাটি ঢাকার বিশেষ জজ-৯ আদালতে বিচার শুরুর অপেক্ষায়৷ এ ছাড়া গ্যাটকো ও বড়পুকুরিয়া দুর্নীতির মামলার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে করা খালেদার আবেদন উচ্চ আদালতে বিচারাধীন৷

যাত্রাবাড়ীতে বাসে আগুন দিয়ে মানুষ হত্যার ঘটনায় পৃথক তিনটি মামলায় খালেদা জিয়াকে পলাতক দেখিয়ে অভিযুক্ত করা হয়েছে৷ এছাড়া নাশকতার পরিকল্পনা করার অভিযোগ এনে বিস্ফোরক আইনে রাজধানীর গুলশান থানায় একটি, কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম থানায় দুটি, খুলনায় একটি মামলা করা হয়েছে৷

খালেদা জিয়ার আইনজীবী অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এক সপ্তাহের মধ্যে তিনটি মামলায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হল৷ এর মধ্যে আজ (বৃহস্পতিবার) একই দিনে দু'টি মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়৷ এটা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যমূলক৷ খালেদা জিয়াকে আটকাতে চায় সরকার৷''

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘লন্ডন থেকে দেশে ফেরার সময় এয়ারপোর্টে খালেদা জিয়াকে আটক করা হবে কি, হবেনা তা আমরা জানিনা৷ এটা সরকারের বিষয়৷ তবে তিনি দেশে ফিরবেন৷ গ্রেপ্তারের ভয়ে তিনি ভীত নন৷''

অডিও শুনুন 02:43

‘‘আদালত বার বার সমন দেয়ার পরও খালেদা জিয়া হাজির হননি’’

খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে অন্যান্য মামলার ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘‘এই মামলাগুলো দেয়া হয়েছে তাঁকে হয়রানি করার জন্য৷ নির্বাচন থেকে দূরে রাখার জন্য তাঁর বিরুদ্ধে মোট ৩৫টি মামলা দেয়া হয়েছে, যার বেশিরভাগই হয়েছে বর্তমান সরকারের আমলে৷'' 

অন্যদিকে ঢাকা মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুল্লাহ আবু ডয়চে ভেলের কাছে দাবি করেন, ‘‘খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে কোনো মামলাই রাজনৈতিক কারণে দেয়া হয়নি৷ সর্বশেষ যে মামহানির মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে সেই মামলার বাদি এ বি সিদ্দিক নামে একজন৷ তাঁর অভিযোগ বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালে যুদ্ধাপরাধী নিজামী ও মুজাহিদকে মন্ত্রী বানিয়েছে৷ তাদের গাড়িতে জাতীয় পতাকা দেয়া হয়েছে৷ এটা মুক্তিযুদ্ধ এবং জাতীয় পতাকার অবমাননা৷ এই মামলা গত বছরের৷ আদালত বার বার সমন দেয়ার পরও খালেদা জিয়া হাজির হননি৷ তাই গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে৷''

খালেদা জিয়া দেশে ফিরলে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘আইন অনুযায়ী তাঁকে গ্রেপ্তারে বাধা নাই৷ গ্রেপ্তার করার জন্যই গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়৷''

অন্যান্য মামলা সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘‘খালেদা জিয়ার নির্দেশে যে সারাদেশে নাশকতা হয়েছে এটাতো সবার জানা৷ এছাড়া সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে তাঁর বিরুদ্ধে দুর্নীতির মামলা হয়েছে৷ তাঁর বিরুদ্ধে উদ্দেশ্যমূলকভাবে কোনো মামলা হয়নি৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়