1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

খাবার যখন ছবির মডেল

শুধু স্বাদে নয়, দেখতেও ভালো না হলে খাবারের আকর্ষণ থাকে কি? প্যারিসের এক ফটোগ্রাফার দম্পতি শুধু খাবারের ছবি তুলেই সন্তুষ্ট নন, খাবারের আদলে তৈরি করেছেন আস্ত একটি মিনি-শহর৷

খাবার-দাবার নিয়ে খেলা করতে নেই – আকিকো ইডা ও পিয়ের জাভেল কিন্তু এমন ফরমান মানেন না৷ বছর দশেক ধরে প্যারিসের এই শিল্পী দম্পতি খাবার আর পুতুল নিয়ে কাজ করছেন৷ তাঁরা নিজেদের নাম রেখেছেন ‘মিনিমিয়াম' – অর্থাৎ মিনিমাম ও ইয়াম, মানে সুস্বাদু৷ তাঁরা বলেন, ‘‘ছবি তোলার সময় তাতে প্রায়ই নিজেদের দেখতে ইচ্ছে করে, বিশেষ করে সে ছবি চকোলেটের হলে৷ ছবি তোলা হলেই সব খেয়ে নিই৷ ''

প্যারিসে আন্তর্জাতিক কৃষি প্রদর্শনীর জন্য তাঁরা দুধ উৎপাদন প্রক্রিয়ার এক ক্ষুদ্র সংস্করণ তৈরি করছিলেন৷

প্রায় ৫ লাখেরও দর্শকের সামনে নিজেদের সৃষ্টিকর্ম তুলে ধরার রোমাঞ্চই আলাদা৷ তবে শিল্পী দম্পতি ও তাঁদের কর্মচারীদের কাছে তার প্রস্তুতির কাজ ছিল বিশাল এক চ্যালেঞ্জ৷ পিয়ের বলেন, ‘‘এখানে দুধ উৎপাদন শিল্পের কাজ দেখাতে গিয়ে দুধের শহর তৈরি করছি আমরা৷ একদিকে দই, একদিকে চিজ, আরেক দিকে ক্রিম, এখানে মাখনের আলাদা জগত তৈরি হচ্ছে৷''

এই জগতের মধ্যে সৃষ্টি করা হয়েছে নানা ছোট কাহিনি৷ প্রেক্ষাপট যেমন ফ্রান্সের এক পাহাড়ি গ্রামের কেন্দ্রস্থল অথবা আধুনিক কোনো শহরের দৃশ্য৷ পিয়ের বলেন, ‘‘এই ক্ষুদ্র শহর দুধ শিল্প ও ইউরোপ সহ গোটা বিশ্বে দুধের বেড়ে চলা চাহিদার প্রতীক৷ কী ভাবে তা তৈরি হয়, কীভাবে তা ভোগ করা হয়৷''

তবে আসল দুধ দিয়ে এই শহর তৈরি হয়নি৷

তার বদলে ব্যবহার করা হয়েছে স্টাইরোফোম-এর মতো কৃত্রিম পদার্থ৷ আকিকো ও পিয়ের বললেন, ‘‘খাবার বদলে যায়, শুকিয়ে যায়, পচে যায়৷ আসল খাবার নিয়ে দ্রুত কাজ সারতে হয়৷ এটা একটা বড় চ্যালেঞ্জ৷''

পেশাদার ফটোগ্রাফার হিসেবে আকিকো ইটা ও পিয়ের জাভেল খাবারকে দেখতে আকর্ষণীয় করে তুলতে পারেন৷ রান্নার বই ও বিজ্ঞাপনের জন্য ছবি তুলেই সবচেয়ে বেশি আয় হয়৷ খাবারের প্রতি ভালবাসাই এই ফরাসি ও জাপানি বংশোদ্ভূত শিল্পীকে পরস্পরের কাছে এনেছে৷ দু'জনেই প্যারিসের আর্ট কলেজে ফটোগ্রাফি নিয়ে পড়াশোনা করেছেন৷

প্যারিসের অনেক বেকারি, রেস্তোরাঁ ও দোকান ঘুরে তাঁরা নতুন ছবির প্রেরণা পান৷ আকিকো বলেন, ‘‘একদিন আমরা এক বেকারিতে দারুণ চকোলেট ভরা এক টফি খেয়েছিলাম৷ কামড় দিতেই চকোলেট দারুণভাবে ভেঙে গেল৷ দেখে মনে হলো, ঠিক যেন ভূমিকম্প হয়েছে৷ এমন দৈনন্দিন জিনিস থেকেই অনেক আইডিয়া পাওয়া যায়৷''

প্যারিসের মঁমাত্র এলাকায় তাঁদের স্টুডিওতে আকিকো ও পিয়ের ধৈর্য ধরে তিলে তিলে দুধের শহর গড়ে তুলেছেন৷ এখানে চিজ দিয়ে নাগরদোলা তৈরি হচ্ছে৷ এখনো পর্যন্ত খাবার-দাবার নিয়ে ১০০টি ছোট দৃশ্য তৈরি হয়েছে৷ যোগ হচ্ছে আরও নতুন দৃশ্য৷ নিউ ইয়র্কে ‘মিনিমিয়াম' ছবির প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হচ্ছে৷ প্রকাশিত হচ্ছে ছবি নিয়ে বইও৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক