1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

খাবার মাছ না ধরে অ্যাকোয়ারিয়ামের মাছ?

সাগরের মাছ ধরে ধরে যখন সমুদ্র শূন্য হতে চলেছে, তখন মেক্সিকো উপসাগরের উপকূলের একটি গ্রামের মহিলাদের মাথায় আইডিয়া এলো: খাবার জন্য মাছ না ধরে অ্যাকোয়ারিয়ামের রঙিন মাছ ধরলে কেমন হয়?

গাল্ফ অফ ক্যালিফোর্নিয়ার উপকূল বরাবর ১৮টি সামুদ্রিক ন্যাশনাল পার্ক আছে৷ তবে অরক্ষিত এলাকাগুলিতে অবাধে মাছ ধরা চলেছে, যার ফলে সাগরে মাছ প্রায় ফুরোতে বসেছে৷ জার্মান আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সংস্থা জিআইজেড-এর মেরিন বায়োলজিস্ট ফল্কার কখ ন্যাশনাল পার্ক কর্তৃপক্ষকে নতুন সংরক্ষিত এলাকা নির্ধারণ ও কার্যকরী করার কাজে সাহায্য করে থাকেন৷ ফল্কার বললেন: ‘‘কাজটা প্রায়শই কঠিন, কেননা জনসাধারণের ধারণা, তাহলে তারা কিছুই করতে পারবে না৷ মানুষজনকে বোঝাতে সময় লাগে যে, তাদের প্রথাগত কর্মপন্থা খুব বেশিদিন ধরে চালানো যাবে না৷ অপরদিকে এমন অনেক কাজকর্ম রয়েছে, যা কাবো পুলমো-র মানুষেরা করে থাকেন; যেমন শুধু মাছ ধরে শেষ করার তুলনায় ইকোটুরিজমের মাধ্যমে অনেক বেশি মাছ পাওয়া যায়৷''

ক্যালিফোর্নিয়া উপসাগরে বহু প্রজাতির মাছ ও প্রাণী ডিম পাড়ে ও বাচ্চা মানুষ করে৷ আরো উত্তরের লোরেটো উপসাগরে নীলতিমিরা বাচ্চা পাড়তে আসে৷ মেক্সিকো উপসাগরের নাতিশীতোষ্ণ এলাকাগুলিতে বিশ্বের বৃহত্তম প্রাণীরা শীতকালটা কাটায়, তারপর আবার উত্তরমেরু অভিমুখে যাত্রা করে৷ এই এলাকাটিও একটি ন্যাশনাল পার্ক৷ এখানে বিশেষ বিশেষ এলাকায় সীমিত পরিমাণে মাছ ধরার অনুমতি আছে৷

পার্ক ও পর্যটন

মার্টিন কাস্ত্রো পেশায় মাছ-ধরিয়ে, তবে শীতকালে তিনি পর্যটকদের শুশুক দেখান৷ যিনি একেবারেই রিল্যাক্স করতে চান, তিনি সি লায়ন বা হাতিসিলদের পর্যবেক্ষণ করতে পারেন৷

বহু বছর ধরে টুরিজম এই এলাকার মানুষদের পক্ষে একটা সুযোগ – সেই সঙ্গে একটা বিপদও বটে, বিশেষ করে যদি পর্যটকদের সংখ্যা বাড়ে৷ সৈকত জুড়ে একের পর এক বহুতল হোটেল পরিবেশের বারোটা বাজাতে পারে৷ ন্যাশনাল পার্কের পরিচালক আলেহান্দ্রো গঞ্জালেস লেইয়া বললেন: ‘‘পার্কের মধ্যে পড়ে সাগর ও আরো পাঁচটি দ্বীপ, যেখানে আমরা পর্যটন নিয়ন্ত্রণ করি৷ কিন্তু হোটেলগুলো পার্কের পরিধির বাইরে৷ কাজেই পর্যটন শিল্পের বড় বড় প্রকল্পগুলো রোখার জন্য আমাদের অন্যভাবে সক্রিয় হতে হয়, নয়তো পার্কের উপর তার নেতিবাচক প্রভাব পড়ে৷''

কোর্ট-কাছারি এবং বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে বিরোধেও পরামর্শ দিয়ে থাকেন জার্মানি থেকে আসা উন্নয়ন বিশেষজ্ঞরা৷ জিআইজেড-এর ফল্কার কখ বলেন: ‘‘প্রত্যেকটি ন্যাশনাল পার্ক একটি নিজস্ব জগত এবং তার পরিচালকও শুধু নিজের এলাকার জন্য দায়ী – অন্যান্য ন্যাশনাল পার্কে কী ঘটছে বা না ঘটছে, তার জন্য দায়ী নন৷ জিআইজেড-এর সঙ্গে উদ্যোগের একটা অংশ হল, এই পরিস্থিতির পরিবর্তন খতিয়ে দেখা, একাধিক ন্যাশনাল পার্কের একই সমস্যা আছে কিনা৷ শুধু নিজের কথা ভাবলেই চলবে না৷''

অ্যাকোয়ারিয়ামের মাছ

অনেক সময় নানা নতুন আইডিয়া পাওয়া যায়৷ কয়েক বছর হল লোরেটো-র কাছে একটি জেলেদের গ্রামে লোকজন অ্যাকোয়ারিয়ামের মাছ ধরা শুরু করেছেন – মার্কিন মুলুকের বড় বড় অ্যাকোয়ারিয়ামের ফরমায়েশে৷ এই ধরনের একটি কাউফিশ বিক্রি হয় প্রায় সাড়ে পাঁচ ডলারে৷ একটি পর্কুপাইন ফিশ-এর জন্য তার তিনগুণ পাওয়া যায়৷ হাজার হোক, তার কেরামতি অনেক বেশি!

পুরুষেরা মাছ ধরার জন্য জলে নামলেও, এই ব্যবসায় তারা নেহাত কর্মচারী৷ আইডিয়াটা এসেছিল তাদের স্ত্রীদের মাথায়৷ তারাই একটি মহিলা সমবায় গঠন করেন৷ সমবায়ের প্রধান ক্লাউডিয়া তালামান্তেস রোমেরো জানালেন: ‘‘আমরা এ ভাবে নতুন সম্মান পেয়েছি৷ আমাদের স্বামীরা সাধারণ জেলে৷ কিন্তু আমরা হিসেব করে দেখেছি যে, একটি অর্নামেন্টাল ফিশ থেকে যা পাওয়া যায়, তা দামে পাঁচ কিলো খাবারের মাছের সমান৷''

ব্যবসায়িক ভিত্তিতে বড় বড় ট্রলারে করে মাছ ধরার বিরুদ্ধে সুরক্ষা হিসেবে এলাকার বাসিন্দারা লোরেটো-র ন্যাশনাল পার্ক সৃষ্টির দাবি তোলেন আজ থেকে বহু বছর আগে৷ তবে রঙিন মাছের ব্যবসা থেকে যে এতো লাভ হবে এবং তাঁদের জীবন এ ভাবে বদলে যাবে, জেলেরা নিজেরাও তা ভাবতে পারেননি৷ ধীবর ও টুরিস্ট গাইড মার্টিন কাস্ত্রো রোমেরো জানালেন: ‘‘জেলে হিসেবে কী মাছ জালে উঠল, শুধু সেটাই মাথায় থাকে৷ বাকি কোনো কিছুর কোনো মূল্য থাকে না৷ কিন্তু এখন আমি জানি, এখানে কতো কিছু পাওয়া যায় - আমরা কী পরিমাণ বড়লোক! আমাদের কোনো কিছু ধরা-মারার দরকার নেই৷ মানুষজনকে শুধু দেখালেই হল, এখানে কতো কিছু আছে৷... সেটাই আমাদের ভবিষ্যৎ বলে আমার ধারণা৷''

রোমেরো-র কথা যদি সত্যি হয়, তাহলে এখানকার মানুষের ভবিষ্যৎ আছে বৈকি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক