1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

খাবারের দাম বাড়ায় উদ্বেগ

কয়েক বছর খাদ্যমূল্য স্বাভাবিক থাকার পরে এপ্রিলে খাবারের দাম প্রায় রেকর্ড পর্যায়ের কাছাকাছি পৌঁছে যায়৷ আর এর পরেই খাবার আবার আন্তর্জাতিক এজেন্ডায় জায়গা করে নিয়েছে৷

default

খাদ্য সংকট বড় আকার ধারণ করছে

একজন বিশেষজ্ঞ বলেছেন, বিশ্বের জনসংখ্যা বিস্ফোরণ্মুখ৷ আর সে কারণেই খাদ্য বন্টনের দিকে জরুরিভাবে নজর দেওয়ার সময় এখনই৷ ড. প্যাট্রিক ওয়েব, খাদ্য বিশেষজ্ঞ হিসেবে কুড়ি বছরেরও বেশি সময় উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করেছেন ইউ এস এইড, বিশ্ব ব্যাংক, এফএও এবং ডব্লিউএইচও-তে৷ ড.ওয়েব টাফ্টস ইউনিভার্সিটির ডিন এবং ফ্রিডম্যান স্কুল অফ নিউট্রিশন সায়েন্স অ্যান্ড পলিসি-র অধ্যাপক৷ ভবিষ্যতে খাবার এবং পানির বরাদ্দ নিয়ে যে চ্যালেঞ্জের সৃষ্টি হয়েছে সেই সম্পর্কে তিনি কথা বলেছেন ডয়চে ভেলের সঙ্গে৷

Patrick Webb

খাদ্য বিশেষজ্ঞ ড. প্যাট্রিক ওয়েব

২০১১ সালের অক্টোবরে বিশ্বের জনসংখ্যা দাঁড়াবে ৭শ কোটিতে৷ তাদের সবার জন্যে খাবার নিশ্চিত করা সম্ভব হবে কিনা এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বললেন, ‘‘হ্যাঁ সম্ভব হবে৷ এর সব কিছুই সম্পদের বন্টনের ওপরে নির্ভর করবে৷ অতীতে অনেকেই বলেছেন, প্রত্যেককে খাওয়াবার জন্যে পৃথিবীতে যথেষ্ট খাবার আছে, যদি আমরা সেটা সমান ভাগে ভাগ করি৷ কিন্তু এটি আমার উত্তর নয়৷'' তিনি বলেন, ‘‘সম্পদ শুধু ৬.৫ বিলিয়ন মানুষের কাছ থেকেই আসছে না, আরো ৫'শ মিলিয়ন মানুষ রয়েছে যারা অত্যন্ত সম্পদশালী, রয়েছে শিল্পোন্নত দেশসমূহ, যারা বিশ্বের বেশিরভাগ সম্পদ ব্যবহার করছে৷ অবশ্যই আমাদেরকে উৎপাদনশীল হতে হবে৷ খাবার উৎপন্ন করতে হবে৷ কিন্তু পাশাপাশি আমাদেরকে একটা প্রশ্নের দিকে নজর দিতে হবে৷ সেটি হচ্ছে কীভাবে আমরা কম খাবার অপচয় করে চলতে পারি৷ খাবারের অপচয় রোধ করা গেলে ৭'শ কোটি মানুষকে খাওয়ানো কোন সমস্যাই হবে না৷''

লেসটার ব্রাউন, একজন মার্কিন পরিবেশবিদ৷ তাকে জিজ্ঞেস করা হয়েছিল, ফসল তোলার ক্ষেত্রে আমরা পুরোনো বিশৃঙ্খল পদ্ধতিতেই আটকে রয়েছি কিনা৷ এর উত্তরে ব্রাউন বললেন, আগে আমরা বিশৃঙ্খল পদ্ধতির অনেকটা কাছাকাছি ছিলাম৷ ২০০৭ এবং ২০০৮ সালে ইউক্রেন, অস্ট্রেলিয়া এবং আর্জেন্টিনাতে ফসল উৎপাদন খুব খারাপ হয়েছিল আর তার সঙ্গে যুক্ত হয়েছিল তেলের উচ্চ মূল্য৷ তেলের দাম সবসময়ে নির্ভর করে সারের দাম, খাবার বহনের ব্যয় এবং মার্কিন ডলারের মূল্যমানের ওপরে৷ তাই আমাদের যদি উৎপাদন খারাপ হয় তাহলে বিশ্বে দুর্ভিক্ষ ছড়িয়ে পড়বে৷

প্রতিবেদন: ফাহমিদা সুলতানা

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়