1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

খাদ্য সুরক্ষা বিল অর্ডিন্যান্সে নয়, সংসদেই পাস হবে

খাদ্য সুরক্ষা বিল অর্ডিন্যান্সের মাধ্যমে কার্যকর না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারতের কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা৷ সংসদে আলোচনা করেই তা পাস করা হবে৷ এজন্য ডাকা হবে সংসদের বিশেষ অধিবেশন৷

বিল পাস হলে প্রত্যেক গরিব পরিবার মাসে ২৫ কিলো খাদ্যশস্য কম দামে পাবার আইনি অধিকার পাবে৷

খাদ্য সুরক্ষা বিল অর্ডিন্যান্সের পথে কার্যকর করার বিষয়ে মন্ত্রিসভা একমত না হওয়ায় সংসদের বিশেষ অধিবেশন ডেকে তা পাস করা হবে৷ ২০০৯ সালের নির্বাচনি ইশতেহারে দারিদ্রসীমার নীচে থাকা পরিবারগুলির জন্য ভরতুকি দামে খাদ্যশস্য দেবার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল কংগ্রেস৷ কিন্তু গত চার বছরে তা কার্যকর হয়নি৷

এখন ২০১৪ সালের সংসদীয় নির্বাচনের মুখে কংগ্রেস তাড়াহুড়ো করে তা পাস করতে মরিয়া হয়ে ওঠার একমাত্র কারণ রাজনৈতিক ফায়দা তোলা৷ নিজেদের দূর্গ সামলাতে কংগ্রেস এই বিলকে করতে চাইছে হাতিয়ার, বিরোধী দলগুলির এমনটাই অভিযোগ৷ বিরোধীদের মতে, সরকারি গুদামে মজুত হাজার হাজার টন খাদ্যশস্য পচে নষ্ট হবার আগে গরিবদের মধ্যে তা বিলি করার সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ এখনো পালিত হয়নি৷

এই বিল পাস হলে গরিবরা কীভাবে উপকৃত হবে? ভারতের ১২০ কোটি জনসংখ্যার দুই-তৃতীয়াংশ, মানে প্রায় ৭০ কোটি পরিবারকে ভরতুকি দামে মাসে মাথাপিছু পাঁচ কেজি খাদ্যশস্য সরবরাহের আইনি গ্যারান্টি দেয়া হবে৷ অর্থাৎ মাথাপিছু পাঁচ কিলো হিসাবে পাঁচজনের পরিবার মাসে পাবে ২৫ কিলো খাদ্যশস্য এক টাকা থেকে তিন টাকা কিলো দরে রেশানের দোকান থেকে৷ গরিব পরিবারগুলির ৭৫ শতাংশ শহরে এবং ৫০ শতাংশ গ্রামে৷ এর জন্য ভরতুকি বাবদ সরকারের খরচ হবে বছরে এক লাখ ২৫ হাজার কোটি টাকা৷

ভারতে কোটি কোটি মানুষ দারিদ্রসীমার নীচে বাস করেন৷ হাজার হাজার শিশু অপুষ্টির শিকার৷ এক সমীক্ষা রিপোর্টে বলা হয়, দেশে পাঁচ বছরের নীচে অর্ধেক শিশুর ওজন কম৷ ঐ বয়সের ৪২ শতাংশ শিশু অপুষ্টিতে ভুগছে৷ বিশ্বের তিনজন অপুষ্ট শিশুর একজন ভারতের৷ ভিটামিন-এ অভাব ভারতে সর্বাধিক৷ প্রায় ৬ শতাংশ শিশু চোখে ভালো দেখতে পায় না৷ বিশ্বে তিন কোটি ৮০ লাখ অন্ধ শিশু৷ তার মধ্যে দেড় কোটি ভারতে৷ তার মধ্যে তিন লাখ শিশুর অন্ধত্ব নিবারণযোগ্য৷ আর অর্থনৈতিক মাপকাঠিতে উন্নত হলেও  সামাজিক স্বাস্থ্য প্রকল্প অবহেলিত৷ ক্ষুধা ও অপুষ্টির অসাম্য তাই প্রকট৷ প্রধানমন্ত্রীর কথায়, ‘‘শিশুদের অপুষ্টি জাতীয় লজ্জা''৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়