1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি

কয়লা আর গাড়ি নিয়ে চাপে ‘ক্লাইমেট চ্যান্সেলর' ম্যার্কেল

জার্মানির চ্যান্সেলর ‘ক্লাইমেট চ্যান্সেলর' হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন৷ এই পরিচিতি ভবিষ্যতে কতটা যৌক্তিক হবে তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে৷ কেননা, জার্মানি কার্বন নির্গমন রোধের লক্ষ্যমাত্রা পূরণে ব্যর্থ হবে বলেই ধারণা করা হচ্ছে৷

সর্বশেষ জাতীয় নির্বাচনের পর এক কঠিন পরীক্ষার মধ্যে পড়েছেন জার্মান চ্যান্সেল আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷ সম্ভাব্য যে জোট সরকার গড়ার পথে তিনি রয়েছেন, তাতে একদিকে রয়েছে পরিবেশবান্ধব দল গ্রিন পার্টি এবং অন্যদিকে ব্যবসায়ীদের দল হিসেবে পরিচিত এফডিপি৷ এই দুই সম্ভাব্য জোটসঙ্গীর মধ্যে অমিল অনেক৷ বিশেষ করে পরিবেশের ইস্যুতে গ্রিন পার্টি যতটা কঠোর উদ্যোগ নেয়ার পক্ষে, এফডিপি ততটা নয়৷ বরং দলটি দেখছে বড় বড় কর্পোরেটদের স্বার্থ৷

এ অবস্থায় কার্বন নির্গমন কমানোর যে লক্ষ্যমাত্রায় জার্মানি অতীতে সম্মত হয়েছিল, তা পূরণ হবে না বলেই মনে হচ্ছে৷ রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, ম্যার্কেল জলবায়ু পরিবর্তন রোধে বিশ্ব মঞ্চে বড় বড় বুলি আওড়ালেও জোট সরকার গড়তে গিয়ে সম্ভবত তাঁকে ব্যবসা এবং রাজনীতির স্বার্থে বেশ কিছুটা ছাড় দিতে হবে৷ এমন শঙ্কা থেকেই জার্মানির সাপ্তাহিক পত্রিকা ‘ডি সাইট' ম্যার্কেলের নীতির সঙ্গে ডোনাল্ড ট্রাম্পের নীতির মিল রয়েছে বলে মনে করছে৷ পার্থক্য এই যে, ট্রাম্প সততার সঙ্গে জলবায়ু পরিবর্তনের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন, লিখেছে পত্রিকাটি৷

এদিকে শনিবার ম্যার্কেল বলেছেন, জার্মানি এবং অর্থনৈতিকভাবে উন্নত অন্যান্য দেশগুলোর বরফ গলা, উষ্ণতা বৃদ্ধি এবং আরো বিরূপ প্রাকৃতিক দুর্যোগ কমাতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নিতে হবে৷ সাপ্তাহিক পডকাস্টে এ কথা বলেন তিনি৷ তবে ম্যার্কেল একইসঙ্গে জানিয়েছেন যে, পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর বিষয়াদি রক্ষার মানে এই নয় যে, জার্মানির মূল শিল্পখাতের উপর বড় আঘাত হানতে হবে৷ যদি বিভিন্ন শিল্পকারখানা জার্মানি থেকে দুর্বল পরিবেশ আইন আছে এমন সব দেশে চলে যায়, তাহলে তা  বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তন রক্ষায় তেমন কোনো ভূমিকা রাখবে না বলে মনে করেন তিনি৷

ম্যার্কেলের সিডিইউ দলের সম্ভাব্য অন্যতম জোটসঙ্গী  গ্রিন পার্টি নির্বাচনের আগে যেসব প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলসেগুলো থেকে কিছুটা সরে আসছে বলে শোনা যাচ্ছে৷ দলটি জোট সরকারে গেলে সঙ্গে সঙ্গে সবচেয়ে পরিবেশ দূষণকারী বিশটি কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র বন্ধ এবং ২০৩০ সালের মধ্যে কয়লা এবং জীবাশ্ম জ্বালানীভিত্তিক গাড়ি বন্ধের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল৷ কিন্তু গত সপ্তাহ সম্ভাব্য জোট সরকারের অন্যান্য দলগুলোর চাপে সময়সীমা সংক্রান্ত প্রতিশ্রুতিগুলো থেকে সরে এসেছে দলটি৷

উল্লেখ্য, ২০২০ সালের মধ্যে কার্বন নির্গমনের হার ১৯৯০ সালের তুলনায় চল্লিশ শতাংশ কমিয়ে আনার ঘোষণা দিয়েছিল জার্মানি৷ কিন্তু বর্তমান যে অবস্থা তাতে ৩২ শতাংশের বেশি কমাতে পারবে না দেশটি৷ ফলে ২০৩০ সালের ৫৫ শতাংশ এবং ২০৫০ সাল নাগাদ ৯৫ শতাংশ কার্বন নির্গমন রোধের যে সিদ্ধান্ত দেশটি নিয়েছিল, তাও বাস্তবায়ন কঠিন হবে বলে মনে করা হচ্ছে৷

এআই/এসিবি (এএফপি, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়