1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি

কয়লাখনির স্বার্থে ঐতিহাসিক গির্জা ভেঙে ফেলা হলো

উন্মুক্ত পদ্ধতিতে কয়লা আহরণের একটি খনির পরিধি বাড়াতে জার্মানিতে ঐতিহাসিক একটি গির্জা ভেঙে ফেলা হয়েছে৷ ২০১৩ সালে সাংবিধানিক আদালত এটি ভাঙার অনুমতি দিয়েছিল৷

সোম ও মঙ্গল - এই দুই দিন লেগেছে গির্জাটি ভাঙতে৷ ১৮৯১ সালে এটি নির্মিত হয়েছিল৷ সময় লেগেছিল প্রায় তিন বছর৷

গির্জা ভাঙার প্রতিবাদ জানাতে সোমবার সেখানে জড়ো হয়েছিলেন স্থানীয় কিছু মানুষ ও পরিবেশকর্মী৷ তবে আগে থেকেই সেখানে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছিল৷ অবশ্য বিক্ষোভের কারণে ভাঙার কাজ শুরু হতে পাঁচ ঘণ্টা দেরি হয়৷ পরিবেশবাদী সংগঠন গ্রিনপিসের একটি ব্যানারে লেখা ছিল ‘‘যারা সংস্কৃতিকে ধ্বংস করে, তারা মানুষকেও ধ্বংস করতে পারে৷''

নর্থরাইন ওয়েস্টফালিয়া রাজ্যের ইমেরাথে সেন্ট লাম্ব্যার্টুস গির্জাটি অবস্থিত ছিল৷ তার পাশে এনার্জি কোম্পানি আরডাব্লিউই-এর একটি কয়লাখনি আছে৷ সেখান থেকে ‘ব্রাউন কোল' বা বাদামি কয়লা, যা লিগনাইট নামেও পরিচিত, উত্তোলন করা হয়৷ খনিটি সম্প্রসারণ করতে ঐ এলাকার বাসিন্দাদের আগেই অন্য এলাকায় সরিয়ে নেয়া হয়েছিল৷

তবে এটি সহজ কাজ ছিল না৷ এই পরিকল্পনার বিরুদ্ধে কয়েকটি মামলা হয়েছিল৷ পরে জার্মানির সাংবিধানিক আদালত এই বিষয়ে একটি রায় দেয়৷ এতে বলা হয়, কয়লাখনি সম্প্রসারণের পক্ষে বেশিরভাগ মানুষ৷ তাই সম্প্রসারণ পরিকল্পনা এগিয়ে নেয়া যেতে পারে৷ ২০১৩ সালের পর থেকে ঐ গির্জায় আর প্রার্থনা অনুষ্ঠিত হয়নি৷

উল্লেখ্য, জার্মানির মোট জ্বালানি চাহিদার প্রায় ৪০ শতাংশ আসে কয়লা থেকে৷ এর মধ্যে ২৫ শতাংশ বাদামি কয়লা বা লিগনাইট, যা বেশি দূষণ ছড়ায়৷

তবে জীবাশ্ম ও পরমাণু জ্বালানির উপর নির্ভরতা কমিয়ে আনার চেষ্টা করছে জার্মানি৷ ফলে নবায়নযোগ্য জ্বালানির দ্রুত প্রসার ঘটছে৷

কয়লাখনি সম্প্রসারণে পরিবেশবাদীদের সমালোচনার জবাবে এনার্জি কোম্পানিগুলোর বক্তব্য হচ্ছে, সৌর ও বায়ুশক্তি উৎপাদন যখন কম হবে তখনকার চাহিদা মেটাতে কয়লার ব্যবস্থা রাখতে হবে৷

জেডএইচ/এসিবি (এএফপি, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন